রামগড়ে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে পুলিশসহ আহত ১৩, গ্রেফতার ৪


ramgarh-pic-4

রামগড় প্রতিনিধি:

খাগড়াছড়ির রামগড়ে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালনকে কেন্দ্র করে বুধবার ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনায় তিন পুলিশসহ অন্তত ১৩ জন আহত হয়েছে। এদিকে পুলিশ আহত হওয়ার ঘটনায় ছাত্রলীগের  ৪ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সকাল সাড়ে ১০টার দিকে  কলেজ ছাত্রলীগের উদ্যোগে একটি র‌্যালি রামগড় বাজারে আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয়ে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে আসার সময় সিনেমা হল এলাকায় ছাত্রলীগের অপর গ্রুপের নেতাকর্মীদের সাথে মুখোমুখী হয়। ঐ  এলাকায় শিল্পী কমিউনিটি সেন্টারে ছাত্রলীগের ছোটন গ্রুপ প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। এ সময় র‌্যালিতে বাধা দেয়াকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয়।

এ সময় ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া, ইট-পাটকেল নিক্ষেপ ও লাঠিসোটা দিয়ে হামলার ঘটনা ঘটে। এতে কর্তব্যরত পুলিশের এএসআই রফিক, কনস্টেবল মুনির খান ও বাহারসহ অন্তত ১৩ জন আহত হয়। এদের মধ্যে ২-৩ জন ছাত্রীও রয়েছে। আহত পুলিশ সদস্য মনির খানকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

উপজেলা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক কাউছার হাবিব শোভন অভিযোগ করে বলেন, কলেজ ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা র‌্যালী নিয়ে দলীয় অফিসে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে আসার সময় সিনেমা হল এলাকায় ছোটন গ্রুপের নেতাকর্মীরা তাদের উপর হামলা চালায়। এতে ৫-৬ জন আহত হয়। তারা র‌্যালিতে অংশ নেয়া ছাত্রীদেরও লাঞ্চিত করে।

অন্যদিকে উপজেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক আনোয়ার জাহিদ ছোটন বলেন, থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার অফিসে মঙ্গলবার সিদ্ধান্ত হয়েছিল কোন পক্ষ শোভাযাত্রা বা র‌্যালি করতে পারবে না। এ ব্যাপারে দুই পক্ষই লিখিত অঙ্গীকারনামা দেয় ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার কাছে। এ সিদ্ধান্ত লঙ্ঘন করে তারা র‌্যালি নিয়ে যাওয়ার সময় ওখানে উপস্থিত থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার কাছে এর প্রতিবাদ জানানো হয়। এ সময় র‌্যালি থেকে ইট ছুঁড়ে মারার পর দুপক্ষের মধ্যে সংর্ঘষ শুরু হয়। এতে তার গ্রুপের কমপক্ষে ৫ জন আাহত হয় বলেও তিনি জানান।

রামগড় থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) মাইন উদ্দিন খান বলেন, প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে যোগ দিতে কলেজ ছাত্রলীগের ছেলে মেয়েরা দলীয় অফিসে যাওয়ার সময় সিনেমা হল এলাকায় ছোটন গ্রুপ তাদের উপর ইট পাটকেল ছুঁড়ে মারে। এসময় পরিস্থিতি সামাল দিতে গিয়ে কর্তব্যরত এএসআই রফিক, কনস্টেবল মুনির খান ও বাহার আহত হন। এদের মধ্যে কনস্টেবল মনির খানকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এদিকে  তিনজন পুলিশ আহত হওয়ার ঘটনায় পৌর ছাত্রলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক জাহিদুল আলম(২০), সদস্য জয়নাল আবেদীন সোহাগ(২০), জহিরুল হক মুন্না(১৮) ও রুবেল(১৮)কে পুলিশ গ্রেফতার করেছে। এরা সকলে উপজেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক আনোয়ার জাহিদ ছোটনের গ্রুপের সদস্য বলে জানা গেছে। ছোটন অভিযোগ করে বলেন, শিল্পী কমিউনিটি সেন্টারে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠান শেষ হওয়ার পর পুলিশ তাদের উপর বেধরক লাঠি পেটা করে। এ সময় তাদের ৪ জন নেতাকর্মীকে বেদম প্রহার করে আহত অবস্থায় পুলিশ ধরে নিয়ে যায়।

রামগড় থানার সেকেন্ড অফিসার এসআই আনোয়ার হোসেন বলেন, পুলিশের ওপর হামলার ঘটনায় ২৭ জনকে আসামী করে থানায় একটি ‘পুলিশ এসল্ট’ মামলা রুজু করা হয়েছে। তিনি নিজে এ মামলার বাদি। আটককৃত ৪ জন এ মামলার এজাহারভুক্ত আসামী।

image_pdfimage_print

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *