রামগড়ে কাঁঠালের হাটে দালালদের দৌরাত্ম্য, ন্যায্যমূল্য পাচ্ছে না চাষীরা


Ramgarh 17

রামগড় প্রতিনিধি:

খাগড়াছড়ির রামগড় বাজারের কাঁঠালের হাট ২০ সদস্যের দালাল সিন্ডিকেট নিয়ন্ত্রণ করছে। এদের দৌরাত্মে চাষীরা ন্যায্য মূল্য পাচ্ছে না। অন্যদিকে, সমতল জেলার বেপারীরাও নানাভাবে তাদের নিপীড়নের শিকার হচ্ছে। পুলিশ ও বিভিন্ন সংগঠনের নামেও চাঁদা আদায়ের অভিযোগ পাওয়া গেছে। মৌসুমী ফলের হাট বসার শুরুতে দালাল চক্রের দৌরাত্ম এবং চাঁদাবাজির কারণে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আসা বেপারীরা এ বাজার থেকে বিমুখ হয়ে পড়ছেন।

৫-৬ সপ্তাহ থেকে কাঁঠালের হাট বসতে শুরু করেছে। রবি ও বুধবার সপ্তাহের এ দুদিন হাট বসে রামগড় বাজারে। রামগড় পৌরসভার উপকণ্ঠের এ বাজারে উপজেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে চাষীরা কাঁঠাল নিয়ে আসেন বিক্রি করতে। নোয়াখালি, ফেনী, কুমিল্লা, চাঁদপুর, সিলেট, নরসিংদীসহ দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে বেপারীরা এ বাজারে এসে কাঁঠাল কিনে নিয়ে যান। অভিযোগে জানা যায়, এবার কাঁঠালের হাট পুরোপুরি জমে উঠার আগেই শুরু হয়ে গেছে দালাল চক্রের দৌরাত্ম ও চাঁদাবাজি।

বিভিন্ন স্থান থেকে আসা বেপারীরা দালালদের হাতে নাজেহাল, হয়রানি ও চাঁদাবাজির শিকার হয়েছেন। এদের কয়েকজন অভিযোগ করেন, প্রায় ২০ জন স্থানীয় দালাল সিন্ডিকেট করে পুরো কাঁঠালের হাট নিয়ন্ত্রণ করছে। তারা সমতল জেলা থেকে আসা বেপারীদের হুমকি, ধমকি দিয়ে চাষীদের কাছ থেকে সরাসরি কাঁঠাল কিনতে বাধা দেয়। পরে ওই দালালরা স্বল্প দামে চাষীদের কাছ থেকে কিনে নিয়ে কয়েকগুণ বেশি দরে বেপারীদের কাছে বিক্রি করে।

অন্যদিকে, কাঁঠালের হাট থেকে পুলিশ ও সরকারীদলের সংগঠনের নাম ভাঙ্গিয়ে চাঁদা আদায়ের অভিযোগও রয়েছে। জানা যায়, বড় ট্রাক ও মিনি ট্রাক ভর্তি কাঁঠালের জন্য রামগড় থানার পুলিশ একশ হতে ৩শ টাকা ও সরকারদলীয় সংগঠনের নামে ২শ  হতে ৫শ টাকা হারে চাঁদা আদায় করা হয়। ওই বেপারী আরও জানান, চাঁদা দিতে গরিমসি করায় কয়েকজনকে নাজেহালও করা হয়েছে।

নরসিংদী থেকে আসা এক বেপারী অভিযোগ করেন, রবিবার তার কাঁঠাল বোঝাই ট্রাক আটকে ১৫শ  টাকা চাঁদা দাবি করে সরকারদলীয় এক কর্মী। পরে ওই ট্রাকের মালিক আলমগীরের মধ্যস্থতায় ৫শ টাকা দিয়ে রেহাই পান তিনি। আলমগীরও এ অভিযোগের সত্যতা স্বীকার করেন। এদিকে  মঙ্গলবার সন্ধ্যায় কাঁঠাল হাট থেকে চাঁদা আদায়কালে পুলিশ দুজনকে আটক করে।

পরে আওয়ামী লীগের জনৈক নেতার মধ্যস্থতায় মুছলেকা নিয়ে পুলিশ তাদের ছেড়ে দেয়। কাঁঠাল হাটে দালাল চক্রের দৌরাত্ম ও পুলিশ ও সংগঠনের নামে চাঁদা আদায়ের অভিযোগের ব্যাপারে রামগড় থানার অফিসার ইনচার্জ মো. শরীফুল ইসলাম বলেন, এ বিষয়টি তিনি অবগত ছিলেন না। এখন থেকে প্রতি হাটবারে  তিনি নিজে অভিযোগগুলো অনুসন্ধান করে যথাযথ আইনী ব্যবস্থা নেবেন।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *