রাঙামাটি কাপ্তাই হ্রদে মাছধরার ওপর নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার


Rangamati fishing man pic01 copy

নিজস্ব প্রতিবেদক:
দীর্ঘ তিন মাস পর রাঙামাটির কাপ্তাই হ্রদে মাছ ধরার ওপর নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করেছে জেলা প্রশাসক মো. সামসুল আরেফিন । রবিবার বাংলাদেশ মৎস্য উন্নয়ন কর্পোরেশন (বিএফডিসি) রাঙামাটি জেলা ব্যবস্থাপক কমান্ডার, (সি), বিএন মো. মাইনুল ইসলাম স্বাক্ষরিত্ব এক আদেশে এ সিদ্ধান্তর কথা জানানো হয়।
এদিকে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার সর্ববৃহৎ কৃত্রিম জলধারা ও বাংলাদেশের প্রধান মৎস্য উৎপাদন ক্ষেত্র কাপ্তাই হ্রদে মাছধরা ও পোনামাছ নিধন বন্ধে এবারও কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হয়েছিল। বাংলাদেশ মৎস্য উন্নয়ন কর্পোরেশন (বিএফডিসি) ও জেলা প্রশাসন যৌথভাবে এ ব্যবস্থা নেয়। হ্রদে মাছের সুষ্ঠু ও প্রাকৃতিক প্রজনন, বংশ বৃদ্ধি এবং উৎপাদন বাড়াতে প্রতিবছর বর্ষা মৌসুমে অনির্দিষ্টকালের জন্য সবধরণের মাছ শিকারের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়। একই সঙ্গে হ্রদে অবমুক্ত করা হয় কার্প ও সিলভার কার্প জাতীয় মাছের পোনা। এছাড়া মাছের উৎপাদন বাড়াতে বছরের সব ঋতু ও মৌসুমে ৯ ইঞ্চি সাইজের পর্যন্ত পোনামাছ শিকারের ওপর নিষেধাজ্ঞা বলবৎ থাকে।
রাঙামাটি কাপ্তাই হ্রদ মৎস্যজীবিদের তথ্য সূত্রে জানা গেছে, নিবন্ধিত অনিবন্ধিত অর্ধ লক্ষাধিক জেলেসহ ব্যবসায়ী ও শ্রমিক মিলে প্রায় ১ লাখেরও অধিক মানুষ সম্পূর্ণ রাঙামাটি কাপ্তাই হ্রদে মাছের ওপর নির্ভরশীল। হ্রদে মাছ মারা বন্ধের সময় এসব মানুষ বেকার হয়ে পড়ে। তাছাড়া অন্যকোন আয়-উপার্জনের বিকল্প কোন উৎস বা পেশা না থাকায় তাদের অভাব-অনটনের মধ্যে মানবেতর দিনযাপন করতে হয়। এদিকে হ্রদে মাছ শিকারের উপর নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়ার পর ইতিমধ্যে মাছ শিকারের সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে জেলেরা। শুরু করেছে আনুষ্ঠানিকভাবে মাছ শিকার।
বাংলাদেশ মৎস্য উন্নয়ন কর্পোরেশন (বিএফডিসি) রাঙামাটি জেলা ব্যবস্থাপক কমান্ডার (সি), বিএন মো. মাইনুল ইসলাম জানান, হ্রদ এলাকায় অবাধে মা মাছ নিধনের কারণে ২০-২৫ বছর আগেই মাছের সুষ্ঠু প্রাকৃতিক প্রজনন ব্যাহত হয়ে পড়ে। হ্রদে মাছের উৎপাদন বাড়াতে বিকল্প ব্যবস্থা হিসেবে সাম্প্রতিক বছরগুলোতে পর্যাপ্ত পোনা অবমুক্ত করা হচ্ছে। এসব পোনা নিধন এবং বন্ধকালিন হ্রদে সবধরণের মাছ শিকার বন্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হয়।
উল্লেখ্য, গত ১২ মে দেশের সর্ববৃহৎ কৃত্রিম জলরাশি রাঙামাটির কাপ্তাই হ্রদে কার্প জাতীয় মাছের প্রাকৃতিক প্রজনন, পোনা মাছের সুষ্ঠু বৃদ্ধি নিশ্চিতকরণসহ কাপ্তাই হ্রদের প্রাকৃতিক পরিবেশকে মৎস্য সম্পদ বৃদ্ধির সহায়ক হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষ্যে ৩ মাসের জন্য হ্রদ হতে সব প্রকার মৎস্য আহরণ, বাজারজাতকরণ এবং পরিবহনের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *