যেখানে সন্ত্রাসী কর্মকান্ড থাকবে সেখানে সেনাবাহিনী থাকবে: লে.কর্ণেল আ.আলীম


লংগদু প্রতিনিধি:

লংগদু সেনা জোনের বিদায়ী জোন কমান্ডার (২-বেঙ্গল অধিনায়ক) লে. কর্ণেল আ. আলীম চৌধুরী এসজিপি, পিএসসি বলেছেন, এলাকায় সম্প্রীতি ও সৌহার্দপূর্ণ পরিবেশ বজায় থাকবে, সকল জাতী গোষ্ঠি ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সকলের দ্রুত উন্নয়ন ঘটবে। পরিবর্তে এখানে নিজেদের মধ্যে চলছে হিংসা, হানাহানি ও ভ্রাতৃঘাতি সংঘাত।

তিনি আরও বলেন, অবৈধ অস্ত্রধারীরা নিরিহ জনসাধারণকে জিম্মি করে নিজেদের স্বার্থ হাসিলের জন্য খুন, গুম ও অপহরণ করে এলাকার পরিবেশ অশান্ত করে তুলছে। অবৈধ অস্ত্রধারীরা কখনও পার পাবে না। সরকারের নির্দেশ, অবৈধ অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী যেই হোক, তাকে আইনের আওতায় আনতে হবে। তাই যেখানেই সন্ত্রাসী ও তাদের কর্মকান্ড থাকবে সেখানে সেনাবাহিনী থাকবে।

সোমবার (১৬ জুলাই) ‘গোষ্ঠি-ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে দেশ গড়ি, সম্প্রীতির লংগদু জোন’-এই স্লোগানকে সামনে রেখে লংগদু সেনা জোনের উদ্যোগে উপজেলা পরিষদের মিলনায়তনে সেনা জোন কর্তৃক আয়োজিত ‘সম্প্রীতির সন্মেলন-২০১৮’তে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেছেন।

লংগদু উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. তোফাজ্জল হোসেনের সভাপতিত্বে এতে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, জোনের নবাগত বেঙ্গল ২১বীর এর উপ-অধিনায়ক মেজর মোহাম্মদ ইমরান হাসান, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও মাইনীমুখ ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল বারেক সরকার, রাঙামাটি জেলা পরিষদের সদস্য মো. জানে আলম, খেদারমারা ইউপি চেয়ারম্যান সন্তোষ কুমার চাকমা, আটারকছড়া ইউপি চেয়ারম্যান মঙ্গল কান্তি চাকমা, কালাপাকুজ্জা ইউপি চেয়ারম্যান মোস্তফা মিয়া প্রমুখ।

বক্তব্য রাখেন, লংগদু সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রাজিব ত্রিপুরা, লংগদু থানার ওসি (তদন্ত) মো. মহিউল, লংগদু প্রেস ক্লাবের সভাপতি মো. এখলাস মিঞা খান, তিনটিলা বনবিহারের ভান্তে জ্ঞানময় চাকমা ও মিলন কার্বারী চাকমা।

এ সময় প্রধান অতিথি জোন কমান্ডার লে. কর্ণেল আ. আলীম চৌধুরী আরও বলেন, সম্প্রতি লংগদু, বাঘাইছড়ি ও নানিয়ারচরে যে হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটেছে সেই ঘটনাকারী কারা এবং কারা ঘোলা পানিতে মাছ শিকার করে যাচ্ছে আপনারা সকলে অবশ্যই তাদেরকে চিনেন।

তিনি বলেন, অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীরা যেমন অপরাধী, তেমনি তাদের আশ্রয় ও পশ্রয়দাতারাও সমান অপরাধী। আপনারা সকলে ঐক্যবদ্ধ হলে সন্ত্রাসীরা অবশ্যই ভয় পেয়ে পালাবে। যেখানেই সন্ত্রাসী ও তাদের কর্মকান্ড থাকবে সেখানে সেনাবাহিনী থাকবে। আপনাদের ভয়ের কোন কারণ নাই। ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ার আগেই সন্ত্রাসীদের কর্মকান্ড সম্পর্কে জানালে অবশ্যই জোনের সহযোগীতা পাবেন। আর আমার জন্য দোয়া করবেন।

তিনি আরও বলেন, আপনাদের সাথে থেকে এলাকার শিক্ষা ও সার্বিক উন্নয়ন এবং আইন-শৃঙ্খলার স্থিতিশীলতা বজায় রাখার জন্য কাজ করেছি। আরও অনেক কাজ করার ইচ্ছা থাকলেও সরকারের আদেশে অন্যস্থলে চলে যেতে হচ্ছে। আপনারা সবাই ভালো থাকবেন এবং সম্প্রীতির বন্ধনে থাকবেন।

শেষে জোন কমান্ডার আ. আলীম চৌধুরীকে কালাপাকুজ্জা সেনা মৈত্রী উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক, ম্যানেজিং কমিটি ও ইউপি চেয়ারম্যানের পক্ষ থেকে সংবর্ধনা ক্রেস্ট ও উপহার দেওয়া হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *