ব্যাপকহারে মুসলিম হচ্ছেন আইসল্যান্ডের উদারপন্থিরা


image_95755_0.gif
 
আন্তর্জাতিক ডেস্ক:
 
আইসল্যান্ডের উদারমনা লোকজন নাকি এখন মুসলিম হওয়ার জন্য মরিয়া হয়ে ওঠেছেন। এজন্য তারা একটি মুসলিম সংগঠনের কাছে আবেদনও করেছেন। সরকার রাজধানী রেকজাভিকে একটি মসজিদ বানানোর অনুমতি বতিল করে দেয়ার প্রেক্ষিতে তারা এ পদক্ষেপ নিয়েছে বলে বিবিসি জানিয়েছে।
 
এ সম্পর্কে মুসলিম এসোসিয়েশনের প্রতিষ্ঠাতা সালমান তামিমি ‘আইসল্যান্ড রিভিউ ওয়েবসাইটকে’ বলেছেন,‘আমাদের সংস্থার সদস্য হওয়ার জন্য ইতিমধ্যে অনেকেই ইমেইল করেছেন। এতে আমি কিছুটা বিস্মিত হয়েছি। তবে আমার কিন্তু ভালোই লাগছে।’
 
গত বছর মুসলমানদের একটি মসজিদ বানানোর অনুমতি দিয়েছিল দেশটির পার্লামেন্ট। কিন্তু মসজিদ বানানোকে সরকারি জমির অপব্যবহার উল্লেখ করে সম্প্রতি তা বাতিল করে দেয় সরকার। সরকারের এ বর্ণবাদী সিদ্ধান্তে বিক্ষুব্ধ হন দেশের উদারমনারা। তারা বলছেন, মসজিদ বানালে যদি জমির অপব্যবহার করা হয়, তবে গির্জা বানানোর অনুমতি কীভাবে দেয়া হয়! এরই প্রতিবাদে গির্জা ছেড়ে মুসলিম সংগঠনে যোগ দেয়ার আগ্রহ দেখিয়েছেন বহু খিস্ট্রান।
 
প্রসঙ্গত, আইসল্যান্ডে তালিকাভুক্ত মুসলিম ধর্মাবলম্বীদের সংখ্যা মাত্র ৭৭০ জন। কিন্তু সে দেশে তাদের কোনো ধর্মীয় উপাসনালয় নেই। এসোসিয়েশনের কার্যালযের চতুর্থ তলায় তারা নামাজ আদায় করে থাকেন। গত ১৪ বছর ধরে তারা একটি মসজিদ তৈরিতে অনুমোদনের জন্য সরকারের দিকে তীর্থের কাকের মতো তাকিয়ে ছিলেন। ২০১৩ সালে তাদের মসজিদ নির্মাণের অনুমতি মেলে। কিন্তু শেষ মুহূর্তে ঠুনকো অজুহাতে তা বাতিল করা হয়। আর এতেই খেপেছেন সে দেশের নিরপেক্ষ মানুষেরা।
 
মুসলিম এসোসিয়েশনের সদস্য হওয়ার আগ্রহ ব্যক্ত করেছেন আইসল্যান্ডের নেতৃস্থানীয় সাংবাদিক গানার স্মারি ইগিলশন। নিজের ফেসবুকে দেয়া এক পোস্টে তিনি বলেন,‘ আমি তাদের সঙ্গে যোগ দিলে মুসলিম সংগঠনের সদস্যরা সরকারের মিথ্যা অজুহাতের বিরুদ্ধে লড়াই করার শক্তি পাবেন।’ তিনি সরকারি দল প্রোগ্রেসিভ পার্টি এবং তার সমর্থকদের সমালোচনা করে বলেন, তারা ‘অহেতুক ভীতিতে’ আক্রান্ত হয়ে পড়েছে।
 
তবে প্রধানমন্ত্রী ডেভিড গুনলাউগসন তার বিরুদ্ধে আনীত বর্ণবাদের অভিযোগ নাকচ করে দিয়ে বিরোধীদের উদ্দেশ্য করে বলেছেন, তারা চাইলে এ বিষয়ে সরকারের সঙ্গে মুক্ত আলোচনায় অংশ নিতে পারেন।
 
আইসল্যান্ডের আইন অনুযায়ী একজন নাগরিক একসঙ্গে কেবলমাত্র একটি ধর্মীয় সংগঠনের সদস্য হতে পারেন। এ কারণে মসজিদের প্রতি সমর্থন জানাতে গিয়ে আইসল্যান্ডের মানবতাবাদীরা গির্জা ত্যাগ করুক, এটি চাইছেন না মুসলিম এসোসিয়েশনের প্রধান তামিমি। তিনি মনে করেন,‘খ্রিস্টান ধর্মের মধ্যে থেকেও তাদের পক্ষে অন্য ধর্মাবলম্বীদের মানবাধিকার প্রতিষ্ঠায় সংগ্রাম করা সম্ভব।’
 

এ সংক্রান্ত আরো খবর:

ইসলামে ধর্মান্তরিত তারকারা

ইসলাম গ্রহণ করলেন দক্ষিণ ভারতের নায়িকা মনিকা (ভিডিওসহ)

হিন্দু থেকে মুসলিম হলেন একই পরিবারের ৫ জন

মুসলিম হচ্ছেন বলিউডের সেক্স সিম্বল নায়িকা মমতা কুলকার্নি

নায়িকা শাবনাজের বদলে যাওয়ার গল্প

আমি আল্লাহর কাছে তওবা করেছি আর ওড়না খুলবো না- ভীনা মালিক(ভিডিওসহ)

ইসলামকে জানার চেষ্টায় আমার চোখ খুলে গেল- মার্কিন সঙ্গীত শিল্পী জেনিফার(ভিডিওসহ)

চলচ্চিত্রে নিজের অভিনীত চরিত্র দেখলে এখন নিজেই বিব্রত হন শাবানা

ক্ষুদ্র জাতিগোষ্ঠীর মুসলিমরা নির্মম নির্যাতনের শিকার

উপজাতীয় নওমুসলিমদের ওপর খ্রিস্টান মিশনারীদের দৌরাত্ম

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *