মিয়ানমারের আরাকান রাজ্যে নতুন করে সেনা মোতায়েন: সীমান্তে বিজিবির সতর্কতা বৃদ্ধি


কক্সবাজার প্রতিনিধি:

রোহিঙ্গাদের অবৈধ অনুপ্রবেশ ও অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে মিয়ানমার-বাংলাদেশ সীমান্তের কক্সবাজারে সতর্কতা বৃদ্ধি করেছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)। সীমান্তের গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে অতিরিক্ত বিজিবির সদস্যদের মোতায়েন করে নজরদারি বাড়ানো হয়েছে। গত এক সপ্তাহ ধরে মিয়ানমারের আরাকান রাজ্যে নতুন করে সেদেশের সেনা মোতায়েন করায় এ ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন বিজিবি।

বিজিবি টেকনাফস্থ ২নং ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লেফটেনেন্ট কর্ণেল এসএম আরিফুল ইসলাম জানিয়েছেন, মিয়ানমারের আরাকান রাজ্যে সেনা মোতায়েনের বিষয়টির উপর গুরুত্ব দিয়ে বাংলাদেশের বিভিন্ন সীমান্তে নজরদারি বাড়ানো হয়েছে। একই সাথে মিয়ানমার সরকারকে কড়া প্রতিবাদ জানানো হয়েছে। কারণ আন্তর্জাতিক নিয়মানুযায়ী কোন দেশের সীমান্তে সেনা মোতায়েন করতে হলে পার্শ্ববর্তী দেশকে অবহিত করেই করতে হয়। এজন্য আমরা আমাদের সীমান্তে পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করে সতর্ক রয়েছি। কোনোভাবে রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ করতে দেওয়া হবে না।

উল্লেখ্য, ২০১৬ সালের ৯ অক্টোবরের পর একইভাবে আরাকানে সেনা মোতায়েন করেছিল মিয়ানমার সরকার। সে সময় রোহিঙ্গাদের ওপর চালানো হয় অমানবিক দমন-পীড়ন নির্যাতন। সেনাবাহিনী রোহিঙ্গাদের অন্তত শতাধিক গ্রামে আগুন দেয়। হত্যা করে এক হাজারের বেশি নিরীহ ব্যক্তিকে। নিখোঁজ হয় বহু রোহিঙ্গা। ধর্ষিত হয়েছে অনেক নারী ও শিশু। এতে বাড়িঘর হারিয়ে উদ্বাস্তু হয়েছে লক্ষাধিক মানুষ। সে সময়ে প্রায় ৭০ হাজারের বেশি রোহিঙ্গা পালিয়ে এসে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়। পরবর্তীতে আন্তর্জাতিক চাপের মুখে রাখাইন রাজ্যে কিছু সেনা সদস্যদের আনাগোনা কমে আসে। কিন্তু এখন পুনরায় নতুন করে সেনা মোতায়নে রোহিঙ্গারা অনুপ্রবেশ করতে পারে বলেও আশঙ্কা করছেন সীমান্তে বসবাসরত অনেকই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *