মাটিরাঙ্গায় মধ্যরাতে ইউপিডিএফের ব্রাশ ফায়ার


18.02.2017_Matiranga UPDF Fire News Pic

নিজস্ব প্রতিবেদক, মাটিরাঙ্গা:

নিজেদের আধিপত্য বিস্তার আর দাবিকৃত চাঁদা আদায়ের লক্ষ্যে মধ্যরাতে বাঙ্গালী অধ্যুষিত জনপদে উপর্যপুরি ব্রাশফায়ার করেছে পার্বত্য চট্টগ্রামের উগ্রসাম্প্রদায়িক পাহাড়ি সংগঠন ইউনাইটেড পিপলস ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট-ইউপিডিএফ‘র স্বশস্ত্র সন্তাসীরা। এসময় স্বশস্ত্র সন্ত্রাসীরা ৭/৮ রাউন্ড গুলি ছুঁড়ে এলাকা ত্যাগ করে বলেও জানা গেছে।

বৃহস্পতিবার মধ্য রাতে মাটিরাঙ্গা পৌরসভার ১নং ওয়ার্ডের বটতলীতে ব্রাশ ফায়ারের এ ঘটনা ঘটে। তবে এতে হতাহতের কোন ঘটনা ঘটেনি।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার রাতে সবাই যখন ঘুমিয়ে গেছে বা ঘুমের প্রস্তুতি গ্রহণ করছে ঠিক তখনই রাত ১১টার কিছু পরে বটতলীতে এ ব্রাশ ফায়ারের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় ঘুমন্ত মানুষ জেগে ওঠে। সকলের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। আতঙ্কিত জনগণ নিরাপত্তার জন্য ঘর থেকে বেরিয়ে আসে। এসময় হাজার হাজার নারী-পুরুষ আলুটিলা জুনিয়র হাই স্কুল মাঠে জড়ো হয়।

স্থানীয় একাধিক সূত্রের সাথে কথা বলে জানা গেছে, দীর্ঘদিন ধরেই পাহাড়ি সংগঠন ইউনাইটেড পিপলস ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট-ইউপিডিএফ স্থানীয় ব্যবসায়ী ও জনগণের কাছে চাঁদাদাবি করে আসছিল। চাঁদা আদায় নিশ্চিত করতেই মধ্য রাতে স্বশস্ত্র সন্ত্রাসীরা ফাঁকা গুলির মাধ্যমে এলাকায় আতঙ্ক সৃষ্টি করে।

এদিকে ঘটনার পরপরই ১৭ ফিল্ড রেজিমেন্ট আর্টিলারির অধিনায়ক লে. কর্ণের কাজী শামশের উদ্দিন পিএসসি, জি’র নেতৃত্বে নিরাপত্তাবাহিনী, বিজিবি ও পুলিশ ঘটনাস্থলে ছুটে যায়। তবে নিরাপত্তাবাহিনী-বিজিবি-পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছার আগেই স্বশস্ত্র সন্ত্রাসীরা ঘটনাস্থল ত্যাগ করে। এসময় নিরাপত্তাবাহিনী-বিজিবি পুরো এলাকা জুড়ে ব্যাপক তল্লাশী চালায়।

এসময় ঘটনাস্থল থেকে ৪টি গুলির খোসা উদ্ধার করে নিরাপত্তাবাহিনী। স্থানীয় গোয়েন্দা সূত্রগুলোর মতে চাঁদাবাজির জন্যই এ ঘটনা ঘটিয়ে থাকতে পারে ইউপিডিএফ।

মাটিরাঙ্গা পৌরসভার ১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. এমরান হোসেন বলেন, স্বশস্ত্র সংগঠন ইউপিডিএফ দীর্ঘদিন ধরেই এ এলাকায় নীরবে চাঁদাবাজি করে আসছে। জনগণ চাঁদা দিতে অস্বীকৃতি জানানোর কারণেই তারা মধ্যরাতে ফাঁকা গুলি ছুঁড়ে এলাকায় আতঙ্ক সৃষ্টির চেষ্টা করে। তিনি জনগণের নিরাপত্তার স্বার্থে আলুটিলা বটতলীতে নিরাপত্তাবাহিনীর অস্থায়ী ক্যাম্প স্থাপনেরও দাবি জানান।

সাম্প্রতিক সময়ে ইউপিডিএফের দুই শীর্ষ নেতার বাসা থেকে অবৈধ পিস্তল ও চাঁদাবাজির টাকা উদ্ধারসহ একাধিক ইউপিডিএফের স্বশস্ত্র সন্ত্রাসী আটকের পর গুইমারা উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ইউপিডিএফ সমর্থিত প্রার্থীর জয় নিশ্চিত করতেই আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর দৃষ্টি অন্যদিকে সরাতেও এ ব্রাশফায়ারের ঘটনা ঘটিয়ে থাকতে পারে বলেও ধারনা করছেন অনেকেই।

image_pdfimage_print

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *