মাটিরাঙ্গায় বৃদ্ধার বাড়িঘর ভেঙ্গে দিয়ে মালামাল লুটে নিল সন্ত্রাসীরা, এলাকাবাসীর শাস্তির দাবী 


20160830_100649 copy

নিজস্ব প্রতিবেদক:

খাগড়াছড়ির মাটিরাঙ্গায় এবার রাতের আঁধারে এক বয়স্ক বিধবা মহিলার বাড়িঘর ভেঙ্গে গুঁড়িয়ে দিয়েছে সন্ত্রাসীরা। সোমবার দিবাগত রাত ১২ টার দিকে মাটিরাঙ্গা পৌরসভার আদর্শগ্রাম মধ্যপাড়া আবুল হাশেমের বাড়ীতে সন্ত্রাসীরা এ তাণ্ডব চালিয়ে ৮০ উর্ধ্ব বয়স্ক বৃদ্ধার একমাত্র বাড়ীটি সম্পূর্ন ধ্বংস করে দেয়। সন্ত্রাসীরা শুধু বাড়িঘর ভেঙ্গেই ক্ষান্ত হয়নি ঘরের সব ধরনের মালামালও লুটে নিয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় মাটিরাঙ্গায় থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, মাটিরাঙ্গা পৌরসভার আদর্শগ্রাম মধ্যপাড়া মৃত নুর আহাম্মদের বয়ষ্ক স্ত্রী মাবিয়া বেগম (৮০) দীর্ঘ প্রায় ত্রিশ বছর ধরে বসবাস করে আসছে। সম্প্রীতি স্থানীয় এক আনসার/ভিডিপি সদস্য ও মাটিরাঙ্গা কৃষি ব্যাংকের নৈশ প্রহরী মো: নুরুল হক মাবিয়া বেগমের বাড়িটি বেদখলের চেষ্টা চালায়। এক পর্যায়ে মাবিয়া বেগমকে বাড়িটি ছেড়ে দিয়ে অন্যত্র চলে যাওয়ার হুমকিও দেয় সন্ত্রাসীরা। কিন্তু এতেও কোন কাজ না হওয়ায় গত সোমবার রাত ১২টার দিকে দিকে নুরুল হকের নেতৃত্বে ১৫/২০ জন সন্ত্রাসী অতর্কিত হামলা চালিয়ে মাবিয়া বেগমের বাড়ি ঘর ভাঙচুর ও লুটপাট করে। নৃশংসতার এখনেই শেষ নয়, পুণ:রায় যেন বাড়িটি নির্মাণ করতে না পারে সেজন্য সন্ত্রাসীরা ঘরের ভারগুলোও খুলে নিয়ে যায়। এছাড়াও ঘরে থাকা সকল প্রকার আসবাবপত্র সহ সব ধরনের মালামাল লুটে নেয় সন্ত্রাসীরা। এ ঘটনায় মহিলার ছেলে মো: আব্দুল মান্নান মুনাফ বাদী হয়ে মাটিরাঙ্গা থানায় একটি মামলা দায়ের করে।

স্থানীয় একাধিক ব্যক্তির সাথে আলাপকালে তারা জানায়, লুটপাট ও ভাংচুরের ঘটনা সত্য, আমরা গ্রামবাসী এই বর্বর হামলার নিন্দা জানাই। দোষীদের শাস্তির দাবী করছি।

এ বিষয়ে মাটিরাঙ্গা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শাহাদাত হোসেন টিটু জানান, বিষয়টি আমি শুনেছি, ইতিমধ্যে আমাদের একজন অফিসার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। তবে আমরা এখনও কোন লিখিত অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

এদিকে অভিযুক্ত নুরুল হক বাড়ীঘর ভেঙ্গে দেয়ার বিষয়টি স্বীকার করে উপরের নির্দেশ পালন ও শালিশি বৈঠকের সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করেছেন বলে দাবী করেন। শালিশি বৈঠক সম্পর্কে স্থানীয় কাউন্সিলরও অবগত রয়েছেন। আপনারা তাদের সাথে কথা বলেন।

image_pdfimage_print

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *