মহেশখালীতে এলএনজি টার্মিনাল নির্মাণের চুক্তি


মহেশখালী প্রতিনিধি:

মহেশখালীতে ভাসমান এলএনজি টার্মিনাল স্থাপনে আন্তর্জাতিক দাতা সংস্থা ইন্টারন্যাশনাল ফিন্যান্স করপোরেশন (আইএফসি) ও প্রকল্প বাস্তবায়নের দায়িত্ব পাওয়া এক্সিলারেট এনার্জি বাংলাদেশ লিমিটেডের মধ্যে চুক্তি হয়েছে।

মঙ্গলবার ঢাকার একটি হোটেলে প্রধানমন্ত্রীর জ্বালানি উপদেষ্টা তৌফিক-ই-এলাহী চৌধুরী ও বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপুর উপস্থিতিতে এ চুক্তি হয়।

এসময় জানানো হয়, আইএফসি ছাড়াও জাইকা, সিডিসি, ডিইজি এবং এফএমও এই প্রকল্পে অর্থের যোগান দিচ্ছে। প্রকল্পে খরচ হবে ১৭৯ দশমিক ৫০ মিলিয়ন ডলার, যার ইক্যুইটি ৫৩ দশমিক ৮ মিলিয়ন ডলার এবং ঋণ ১২৫ দশমিক ৭ মিলিয়ন ডলার। প্রকল্পে আইএফসির ঋণ ৩২ দশমিক ৮ মিলিয়ন ডলার। এছাড়া সিডিসি ২৫ মিলিয়ন, ডিইজি ১৫ মিলিয়ন, এফএমও ২০ মিলিয়ন ডলার ঋণ দিচ্ছে।

অনুষ্ঠানে তৌফিক-ই-এলাহী চৌধুরী বলেন,‘এই প্রকল্পটি বাংলাদেশের জন্য মাইলফলক। দ্রুততম সময়ের মধ্যে এ প্রকল্প বাস্তবায়ন করে গ্যাসের চাহিদা পূরণ করা হবে। এ জন্য সব ধরনের সহযোগিতা করা হবে।”

বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেন,জ্বালানি নিরাপত্তা বিধানের অন্যতম চ্যালেঞ্জ দক্ষ জনশক্তি। প্রাকৃতিক গ্যাসের বিকল্প হিসেবে এলপিজি ও এলএনজি ব্যবহারের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এলএনজির ব্যবহার বাংলাদেশে এখনও হয়নি। আশা করা যাচ্ছে ২০১৮ সালের প্রথম দিক থেকে এলএনজির ব্যবহার শুরু হবে। এজন্য ব্যবস্থাপনা লেভেলে দক্ষ জনশক্তি প্রয়োজন।

অনুষ্ঠানে এক্সিলারেট এনার্জির (ইইবিএল) পক্ষে চিফ ফাইন্যান্স অফিসার এবং ম্যানেজিং ডিরেক্টর নিক বিডফোর্ট এবং আইএফসির পক্ষে বাংলাদেশের কান্ট্রি ম্যানেজার মিজ উইন্ডি ওর্য়ানার চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন।
কক্সবাজারের মহেশখালীতে ৫০০ এমএমসিএফডি ক্ষমতা সম্পন্ন একটি ভাসমান এলএনজি টার্মিনাল স্থাপনের লক্ষ্যে ২০১৬ সালের ১৮ জুলাই জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগ এবং এক্সিলারেট এনার্জির মধ্যে ইমপ্লিমেনটেশন এগ্রিমেন্ট এবং পেট্রোবাংলা ও ইউবিএলের মধ্যে টার্মিনাল ব্যবহার চুক্তি হয়। ভাসমান এলএনজি টার্মিনালে এলএনজি ধারণ ক্ষমতা হবে ১ লাখ ৩৮,০০০ ঘনমিটার। ১৫ বছর পর টার্মিনালটি কোনো বিনিময় মূল্য ছাড়া পেট্রোবাংলার কাছে হস্তান্তর করা হবে চুক্তি অনুযায়ী। জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের সচিব নাজিমুদ্দিন চৌধুরী, পেট্রোবাংলার চেয়ারম্যান আবুল মনসুর মো ফয়জুল্লাহ, আইএফসির প্রিন্সিপ্যাল ইনভেস্টমেন্ট অফিসার কামাল দোরাবাইলাসহ দাতা সংস্থাগুলোর প্রতিনিধিরা চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

image_pdfimage_print

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *