মহান স্বাধীনতা দিবসে এবারও শহীদদের শ্রদ্ধা জানাননি আঞ্চলিক পরিষদ চেয়ারম্যান সন্তু লারমা


নিজস্ব প্রতিনিধি:

প্রতি বছরের ন্যায় এবারো মহান স্বাধীনতা দিবসে শহীদদের শ্রদ্ধা জানাতে শহীদ মিনারে যাননি প্রতিমন্ত্রীর পদমর্যাদা প্রাপ্ত আঞ্চলিক পরিষদ চেয়ারম্যান ও জেএসএস সভাপতি জ্যোতিরিন্দ্র বোধিপ্রিয় লারমা (সন্তু লারমা)।

সন্তু লারমা এক সময় শান্তিবাহিনী নামের বাংলাদেশ বিরোধী একটি সন্ত্রাসী দলের নেতৃত্বে দিয়ে পাহাড়ে অরাজক পরিস্থিতি সৃষ্টি করে। দাবী করা হয়ে থাকে, তার এই সন্ত্রাসী বাহিনীর হাতে দেশপ্রেমিক সেনাবাহিনীসহ ত্রিশ হাজার সাধারণ নিরীহ পাহাড়ি-বাঙালী নিহত হয়েছে।

শান্তি চুক্তির মাধ্যমে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে এসে প্রতিমন্ত্রীর মর্যাদায় দীর্ঘ দুই দশক আঞ্চলিক পরিষদের চেয়ারম্যান পদে অধিষ্ঠিত থাকলেও বাংলাদেশের কোনো জাতীয় দিবস তিনি পালন করেন না। এ নিয়ে রাঙামাটিতে বিভিন্ন সময়ে ব্যাপক আলোচনা সমালোচনা হলেও তিনি এতে ভ্রুক্ষেপ করেন না।


এ বিষয়ে আরো পড়ুন
রাষ্ট্রীয় দিবসে সন্তু লারমা শহীদ বেদিতে শ্রদ্ধা জানাতে যান না কেন?


প্রতিবছরের মতো এ বছরও সারা দেশের ন্যায় রাঙামাটিতে ব্যাপক ভাবমর্যাদার সাথে স্বাধীনতা দিবস পালিত হয়েছে। সকাল থেকে জেলার কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে বিভিন্ন সংগঠন শহীদদের স্মৃতির উদ্দেশ্যে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানালেও সন্তু লারমা মহান স্বাধীনতা দিবসে মুক্তিযুদ্ধে আত্মত্যাগকারী শহীদদের স্মৃতির উদ্দেশ্যে ফুল দিতে যাননি।

এ নিয়ে সকাল থেকে রাঙামাটিবাসী সামাজিক গণমাধ্যমে বিভিন্ন প্রশ্ন ছুঁড়ে দিয়ে তাদের ক্ষোভ প্রকাশ করতে থাকেন। আবু উবায়দা নামের ফেসবুক আইডি থেকে প্রশ্ন করা হয়, ”পাহাড়ের তিন সার্কেল চীফ, শন্তু লারমা, প্রসীত খিসা কখন, কোথায় স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষ্যে শহীদ মিনারে ফুল দিয়েছে? আমরা জানতে চাই। পাহাড়ে এবং দেশে সুশিল ব্যক্তি, মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উজ্জিবিত অগ্নী পুরুষের অভাব নেই। তারা কেন এই রাষ্ট্রদ্রোহীদের বিরুদ্ধে কিছু বলে না?”

অন্যদিকে সোহেল রেগান নামের ফেসবুক আইডি থেকে প্রশ্ন করা হয়, ”মন্ত্রী পদমর্যাদা ভোগকারী সন্তু লারমা কোন শহীদ মিনারে ফুল দিয়েছেন জাতি জানতে চাই?” রাঙামাটির ফেসবুক ব্যবহারকারীরা এসব পোস্টে বিপুল সংখ্যক কমেন্ট করেও তাদের ক্ষোভ প্রকাশ করতে থাকেন।

এ প্রেক্ষিতে পার্বত্যনিউজ বিষয়টির অনুসন্ধান করে জানতে পারে এ বছরও আঞ্চলিক পরিষদ চেয়ারম্যান সন্তু লারমা মহান স্বাধীনতা দিবসে শহীদদের স্মৃতির উদ্দেশ্যে ফুল দিতে শহীদ মিনারে যাননি। বিষয়টি নিশ্চিত হতে পার্বত্যনিউজের পক্ষ থেকে জেলা প্রশাসনে যোগাযোগ করলে জেলা প্রশাসন সূত্রে জানানো হয়, জেএসএস সমর্থিত পাহাড়ী ছাত্র পরিষদের পক্ষ থেকে শহীদ মিনারে ফুল দেওয়া হয়েছে। তবে সন্তু লারমা শহীদ মিনারে যাননি।

এদিকে জেএসএস এর সহ তথ্য ও প্রচার সম্পাদক সজীব চাকমা জানান, জাতীয় প্রোগ্রাম হিসেবে আমরা শহীদ মিনারে ফুল দিয়েছি।

আঞ্চলিক পরিষদ চেয়ারম্যান সন্তু লারমা শহীদ মিনারে ফুল দিয়েছেন কিনা এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, এ ব্যাপারে আমি অবগত নই।

এ বিষয়ে স্থানীয় জাতীয় সংসদ সদস্য ফিরোজা বেগম চিনু বলেন, সন্তু লারমার স্বাধীন বাংলাদেশ রাষ্ট্রের সকল সুযোগ-সুবিধা ভোগ করেও শহীদদের সম্মান না জানানো হচ্ছে রাষ্ট্রকে বৃদ্ধাঙ্গলী দেখানোর মতো। এ বিষয়ে সরকারের নজর কাড়ার জন্য সংসদে একাধিকবার বিষয়টি উত্থাপন করেছেন বলে জানান তিনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *