মন্ত্রী হিসেবে আমি আর কোনো ধর্ম বা জনগোষ্ঠীর মানুষ নই: বীর বাহাদুর


নিজস্ব প্রতিবেদক, বান্দরবান:

শপথ গ্রহণের পর আমি আর এককভাবে কোনো জেলার মন্ত্রী নই। একটি ধর্ম বা জনগোষ্ঠীতে আমার জন্ম হলেও মন্ত্রী হিসেবে আমি আর কোনো ধর্ম বা জনগোষ্ঠীর মানুষ নই। আমি সব রাজনৈতিক দল, ধর্ম, বর্ণ, সম্প্রদায় এবং সকল শ্রেণী ও পেশার প্রতিনিধি। আমার কাছে সবাই সমান।

পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ে পূর্ণমন্ত্রী হিসেবে নিযুক্ত হওয়ায় শুক্রবার বিকেলে বান্দরবান শহরের রাজার মাঠে আয়োজিত সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের নবনিযুক্ত মন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি এসব কথা বলেন।

শুক্রবার বান্দরবান জেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ক্যশৈহ্লা সভাপতিত্বে গণসংবর্ধনা দেয়া হয়।

পার্বত্যমন্ত্রী বলেন, আপনাদের ভালবাসায় আমি ঋণী ও কৃতজ্ঞ আমি আমার কাজের মাধ্যমে আপনাদের এ ঋন শোধ করার চেষ্টা করব এবং প্রধানমন্ত্রী আমাকে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের পূর্ণ মন্ত্রীর দায়িত্ব দিয়ে কাজ করার সুযোগ দিয়েছেন। নেত্রী পাহাড়ের মানুষকে ভালবাসে বলেই আমাকে পূর্ণ মন্ত্রীর দায়িত্ব দিয়েছেন। এ ভালবাসার দাবীদার আপনারা।

তিনি আরও বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামের যেসব এলাকা উন্নয়নের দিক থেকে পিছিয়ে আছে সেসব এলাকাই হবে তার প্রধান কর্মক্ষেত্র। এসব বক্তব্য শুনে উপস্থিত জনতা মুহূর্মুহু করতালি দিয়ে তাকে অভিনন্দন জানায়।

ব্যাপক জনসমর্থন থাকায় ১৯৯১ সালের নির্বাচনে জাতীয় সংসদের ৩০০ নম্বর বান্দরবান আসনে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হবার পর থেকে ১৯৯৬ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারির বহুল আলোচিত নির্বাচন ছাড়া সবকটি নির্বাচনে টানা বিজয় ধরে রাখেন তিনি। ২০১৪ সালে অনুষ্ঠিত নির্বাচনে বিজয় লাভের পর আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন মহাজোট সরকার তাকে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী নিযুক্ত করে।

এর আগে ১৯৯৮ সালে তাকে উপমন্ত্রীর পদমর্যাদায় পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের চেয়ারম্যান এবং ২০০৯ সালে প্রতিমন্ত্রীর পদমর্যাদায় তাকে আবারও একই দায়িত্ব দেয়া হয়।

স্থানীয় রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করেন, অতীতের দায়িত্ব সফলভাবে সম্পাদন করায় এবার তিনি পূর্ণ মন্ত্রীর প্রমোশন পেয়েছেন। তবে এবারের সংবর্ধনা আয়োজনে তোরণ নির্মাণকে নিরুৎসাহিত করার জন্যে তিনি সংখ্যা নির্ধারণ করে দেন। সংবর্ধনা চলাকালে বিভিন্ন এলাকা ও সংগঠনের পক্ষ থেকে শত শত পুষ্পস্তবক নিয়ে আসা হলেও কয়েকটি গ্রহণের পর তিনি অন্যদের বিরত থাকার অনুরোধ জানান এবং সংক্ষিপ্ত বক্তব্য দিয়ে সভার সমাপ্তি ঘটান। এর আগে বান্দরবান আসার পথে বিভিন্ন পয়েন্টে দাঁড়িয়ে হাজার হাজার জনতা তাকে ফুল ছিটিয়ে অভিনন্দন জানায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *