মগনামায় সাবেক ইউপি চেয়ারম্যানের বাড়িতে আগুন দিয়েছে দুর্বৃত্তরা, আটক-১


পেকুয়া প্রতিনিধি:

পেকুয়ার মগনামায় সাবেক চেয়ারম্যান ইউনুছের বসতবাড়িতে পুলিশ টহল থাকা শর্তেও দুর্বৃত্তরা আগুন দিয়ে পুড়িয়েছে বসতবাড়ি। তা নিয়ে প্রশ্নবিদ্ধ হয়েছে পেকুয়া থানার পুলিশ। পুলিশের রহস্যময় ভূমিকার কারণে বার বার এ ধরণের ঘটনার জন্ম নিচ্ছে।  রোববার (১৪ জানুয়ারি) রাত ৩টার দিকে উপজেলার মগনামা ইউনিয়নের কাকপাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। সোমবার দুপুরে এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে শফি আলম নামের এক ব্যক্তিকে আটক করেছে পুলিশ।

স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, গভীর রাতে দুর্বৃত্তরা ইউনুছ চৌধুরীর বাড়ির রান্নাঘরে আগুন ধরিয়ে দিয়ে পালিয়ে যায়। এসময় বাড়িতে কেউ ছিলনা। মুহূর্তে রান্নাঘরটি পুড়ে ছাই হয়ে যায়। ভোরেই পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে। সোমবার (১৫ জানুয়ারি)  সকাল থেকে ইউনুছ চৌধুরীর বাড়িতে পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।

ইউনুছ চৌধুরীর ভাই সরওয়ার কামাল চৌধুরী বলেন, যুদ্ধাপরাধ মামলার ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্ত মীর কাশেম আলীর দেহরক্ষি মগনামা ইউপির বর্তমান চেয়ারম্যান ওয়াসিমের নেতৃত্বে গত ১৩ জানুয়ারি সন্ধ্যায় আমার ভাইকে হত্যার চেষ্টা চালায়। বর্তমানে আহতাবস্থায় তাকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। এ ঘটনায় আমরা মামলা দায়ের করেছি। মামলা দায়েরের একদিন পর বাড়ির রান্নাঘরটি পুড়িয়ে দিয়েছে তারা। অথচ বাড়িতে আমাদের কোন লোক ছিলনা। পুলিশ টহল অবস্থায় রান্নাঘরটি পুড়িয়ে দেয়া হয়েছে।

পেকুয়া থানার উপ পরিদর্শক (এসআই) কামরুল হাসান বলেন, মামলার আসামিদের ধরতে পুলিশ সারারাত মগনামাতেই অবস্থান করছিল। রাত ৩টার দিকে জানতে পারি ইউনুছ চৌধুরীর বসতবাড়িতে আগুন দেওয়া হয়েছে। ঘটনাস্থলে পৌঁছানোর আগেই রান্নাঘরটি সম্পূর্ণ পুড়ে যায়। কিভাবে রান্নাঘরটি পুড়েছে তা তদন্ত করা হচ্ছে। এ ঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সুব্রত রায় বলেন, ইউনুছ চৌধুরীর উপর হামলার ঘটনায় একজনকে আটক করা হয়েছে। ঘটনায় জড়িত সন্দেহে সোমবার (১৫ জানুয়ারি) দুপুরে মগনামার নতুনঘোনা এলাকার আহমদ হোসেনের পুত্র মো. শফি আলমকে আটক করা হয়েছে। সে রান্নাঘর পুড়িয়ে দেওয়া এবং হামলার ঘটনায় জড়িত আছে কিনা তা তদন্ত করা হচ্ছে।

পেকুয়া থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মনজুর কাদের মজুমদার বলেন, রাতে পুলিশের অভিযানের ফাঁকে কে বা কারা ইউনুছ চৌধুরীর রান্নাঘরটি পুড়িয়ে দিয়েছে, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। এ বিষয়ে লিখিত এজাহার জমা দিয়েছেন সরওয়ার আলম চৌধুরী। তদন্তপূর্বক আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *