বৃক্ষরোপণের মাধ্যমে পরিবেশের ভারসাম্য ফিরিয়ে আনতে হবে: কংজরী চৌধুরী


 

নিজস্ব প্রতিবেদক,মাটিরাঙ্গা :

পাহাড়ের ঢালুতে অধিকহারে বৃক্ষরোপণের মাধ্যমে পরিবেশের ভারসাম্য ফিরিয়ে আনার আহ্বান জানিয়ে খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কংজরী চৌধুরী বলেছেন, শুধুমাত্র বৃক্ষ নিধন নয়, নিজেদের বেঁচে থাকার জন্য ভারসাম্যপূর্ণ পরিবেশ সৃষ্টির লক্ষ্যে ব্যাপকভাবে বৃক্ষরোপণ করতে হবে। বৃক্ষরোপণের মাধ্যমে একদিকে যেমন সবুজ বনায়ন তৈরী হবে তেমনি আমাদের চারদিকের পরিবেশও রক্ষা হবে। পাহাড়ে অক্সিজেনের ভাণ্ডার তৈরী হবে।

শনিবার বেলা ১২টার দিকে মাটিরাঙ্গা মডেল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদের উদ্যোগে মাটিরাঙ্গার প্রান্তিক ও ক্ষুদ্র চাষীদের মাঝে মসলা ও ফলদ চারা বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। খাগড়াছড়ি জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর এ কার্যক্রমে সহযোগিতা করে।

মাটিরাঙ্গা উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিএম মশিউর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদের সদস্য মিসেস নিগার সুলতানা, খাগড়াছড়ি জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক তরুণ ভট্টাচার্য্, মাটিরাঙ্গা থানার অফিসার ইনচার্জ মো. সাহাদাত হোসেন টিটো ও মাটিরাঙ্গা পৌরসভার মেয়র মো. শামছুল হক। এছাড়াও মাটিরাঙ্গা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. শাহ আলম মিয়া ও মাটিরাঙ্গা সদর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান হিরনজয় ত্রিপুরা প্রমুখ অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন।

পাহাড়ে ব্যাপকহাবে বৃক্ষ নিধনের ফলেই সাম্প্রতিক সময়ে পাহাড় ধ্বসের মতো ঘটনা ঘটেছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমাদেরকে ঐক্যবদ্ধভাবেই এ দুর্যোগ মোকাবেলা করতে হবে। এজন্য বৃক্ষরোপণের কোন বিকল্প নেই। অধিকহারে বৃক্ষরোপনই পাহাড় ধ্বসের মতো দুর্যোগ মোকাবেলা করতে পারে। আর এ জন্যই সবুজ বনায়ন গড়ে তোলার লক্ষ্যে পার্বত্য জেলা পরিষদ জেলার প্রান্তিক ও ক্ষুদ্র চাষীদের মাঝে মসলা ও ফলদ চারা বিতরণ প্রকল্প গ্রহণ করেছে বলেও জানান তিনি।

অনুষ্ঠানে মাটিরাঙ্গার ৩শ’ ৫০ জন প্রান্তিক ও ক্ষুদ্র চাষীর মাঝে দশটি করে মসলা ও ফলদ চারা বিতরণ করেন খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কংজরী চৌধুরী। পর্যায়ক্রমে মাটিরাঙ্গার তিন হাজার প্রান্তিক ও ক্ষুদ্র চাষীর মাঝে মসলা ও ফলদ চারা বিতরণ করা হবে বলেও জানান তিনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *