বিএসপি ইনস্টিটিউটে কম মূল্যে উন্নত হেড লাইটিং সিস্টেম উদ্ভাবন


কাপ্তাই প্রতিনিধি:

ঐতিহ্যবাহী বাংলাদেশ সুইডেন পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট (বিএসপিআই) কাপ্তাই শিক্ষার্থীরা ‘কম মূল্যের উন্নত হেড লাইটিং সিস্টেম’ উদ্ভাবন করে বিভাগীয় পর্যায়ে সেরা ও সাফল্য অর্জন করেছে। আগামী ২৫ ডিসেম্বর জাতীয় পর্যায়ে এ উদ্ভাবনীসহ আরো কয়েকটি দক্ষতা প্রধানমন্ত্রীর উপস্থিতে পরিদর্শন করার কথা রয়েছে বলে বিএসপিআই সূত্রে জানাযায়।

২০০১ সালের সেরা প্রতিষ্ঠান হিসাবে পরিচিত রাঙ্গামাটি জেলার কাপ্তাইয়ের সুন্দর মনোরম পরিবেশে  প্রতিষ্ঠিত বাংলাদেশ সুইডেন পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট।

এ প্রতিষ্ঠান থেকে দেশের নামকরা অনেকই সু শিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে দেশে কিংবা বিদেশে ব্যাপক সাফল্যের শীর্ষে অবস্থান করছে। এর মধ্যে দেশের নামকরা বিনোদন ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান ইত্যাদির  পরিচালক হানিফ সংকেত এ প্রতিষ্ঠানের প্রাক্তন একজন ছাত্র। ছাত্ররা একের পর এক নিজ দক্ষতা ও মেধা বিকাশের মাধ্যমে অত্র প্রতিষ্ঠানের সুনাম অর্জন করে চলেছে।

তারই ধারাবাহিকতায় এবারও অটোমোবাইল শিক্ষার্থীরা উদ্ভাবন করেছে  দেশের সবচেয়ে কম মূল্যের উন্নত হেড লাইটিং সিস্টেম এন্ড সেফটি টেকনোলজি। মুলত এর লাইটিং এর কার্যক্রম হল রাতের বেলায় হাইবিম লাইট কন্টোলিং সমস্যার ফলে প্রতিবছর অনেক সড়কে দুর্ঘটনা ঘটে থাকে। সে সমস্যা নিরসনেই তাদের  এই গবেষণা সফল  কার্যক্রম। এ হেড লাইটিং ব্যবহার করলে রাতে দুর্ঘটনা হতে রক্ষা পাওয়া যাবে।  বর্তমান এ প্রযুক্তি উন্নত গাড়িতে ব্যবস্থা থাকলেও বাংলাদেশের মত উন্নয়নশীল দেশে ম্যানুয়াল অপারেটড গাড়ি গুলোতে অটো হাইবিম টেকনোলজি ব্যবহার করতে হলে খরচ গুনতে হবে প্রায় ৬/৮হাজার টাকা। কিন্ত এই তরুন উদ্ভাবকেরা একই প্রযুক্তি সেবা দিতে পাড়বে মাত্র ৫০০টাকায়। কাপ্তাইয়ে ২২টি স্কিলস কম্পিটিশনের  মধ্যে এ উদ্ভবনীটি প্রথমস্থান লাভ করে।

চটগ্রাম বিভাগীয় পর্যায়ে ১লা ডিসেম্বর আঞ্চলিক পর্যায়ে প্রতিযোগিতা হলে ১২টি প্রতিষ্ঠান অংশগ্রহণ করে ৩৬টি প্রজেক্টর এর ম্যধ্যে কাপ্তাই সুউডেন পলিটেকনিক এ উদ্ভাবনীটি বিভাগীয় পর্যায়ে সেরা ভাবে সাফল্য অর্জন করে। ওই প্রতিষ্ঠানের  অধ্যক্ষ প্রকৌশলী আশুতোষ নাথের হাতে বিভাগীয় পর্যায়ের সেরা পুরস্কার সনদ তুলে দেন অতিরিক্ত সচিব একেএম জাকির হোসেন ভুইয়া (প্রশাসন ও উন্নয়ন) কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগীয়, শিক্ষামন্ত্রণালয়।

রিচার্স টিম লিডার আনোয়ার হোসন, অটোমোবাইল বিভাগের এ উদ্ভাবনী টিমের লিডার ৪র্থ বর্ষের ছাত্র পিয়াল বড়ুয়া, সাদিয়া সুলতানা এ্যানি(৩য় বর্ষ),  হিসবুল্লাহ (৪র্থ বর্ষ), ও মো. শহীদুজ্জামান (৪র্থ) বর্ষ এরা বলেন, আমাদের অটোমোবাইল বিভাগের  শিক্ষক প্রকৌশলী রহমত উল্লাহ, প্রকৌশলী আব্দুল আলী এবং বিভাগীয় প্রধান সেলিম আফ্রাদ জোয়ারদার স্যারদের সার্বিক সহযোগিতায় আজ আমরা এ পর্যায়ে পৌঁছেছি। আমরা সরকারের সহযোগিতা ও রিচার্স এর সুবিধা  পেলে জাতীয় পর্যায়ে সেরাদের সেরা হয়ে দেশের উন্নয়নে অবদান রাখা যাবে বলে উল্লেখ করেন।

এদিকে ওই বিএসপিআই প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ প্রকৌশলী আশুতোষ নাথ বলেন, এ প্রতিষ্ঠানের  শিক্ষার্থীরা তাদের সুন্দর মেধা দিয়ে যে সুনাম অর্জন করছে এবং দেশের উন্নয়ন স্বার্থে যে উদ্ভাবন করছে আশাকরি আগামী ২৫ ডিসেম্বর প্রধানমন্ত্রীর উপস্থিতে জাতীয় পর্যায়ে শিক্ষার্থীরা আবারও সেরা  সাফল্য অর্জন করতে পারবে বলে আশা রাখি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *