বান্দরবান বিএনপির একাংশের মীর নাছিরকে প্রত্যাখান


নিজস্ব প্রতিবেদক, বান্দরবান:

বান্দরবান জেলার দায়িত্বপ্রাপ্ত বিএনপির কেন্দ্রীয় ভাইস চেয়ারম্যান মীর মোহাম্মদ নাছির উদ্দিন কথা দিয়ে কথা রাখেন নাই। তাই কাল শনিবার কর্মী সমাবেশ প্রত্যাখন করেছেন বান্দরবান জেলা বিএনপি’র সহ-সভাপতি ও জেলা কর্মী সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির আহ্বায়ক আব্দুল কুদ্দুছ। শুক্রবার চৌধুরী মার্কেস্থ বিএনপির কার্যালয়ে এ ঘোষণা দেন।

তিনি বলেন,  আগামী সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে দলের সাংগঠনিক অবস্থা গতিশীল করতে সাচিং প্রু জেরী সমর্থিত বান্দরবান বিএনপির একাংশ কয়েকদিন পূর্বে দলের কেন্দ্রীয় ভাইস চেয়ারম্যান মীর মোহাম্মদ নাসির উদ্দীনের সাথে দেখা করে। সেখানে কেন্দ্রীয় নেতার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী চার উপজেলা চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যানকে সমন্বয়ক করে ২৮ এপ্রিল কর্মী সমাবেশের ঘোষণা দেয়া হয়। সে লক্ষ্যে প্রস্তুতি শুরু করি। আমরা শহরের চৌধুরী মার্কেট এলাকায় কর্মী সমাবেশের জন্য পুলিশ প্রশাসনের কাছে আবেদন করি। পুলিশ আমাদের অনুমতি না দিয়ে  অপর পক্ষকে বান্দরবান ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর সাংস্কৃতিক ইন্সটিটিউট মিলনায়তনে কর্মী সমাবেশের অনুমতি দেয়। একটি সরকারি প্রতিষ্ঠানে কি ভাবে বিরোধী দলীয় অনুষ্ঠান করা অনুমতি দেয় তা আমাদের প্রশ্ন বিদ্ধ করেছে।

তিনি আরও বলেন, দলীয় ভাবে আমরা জেনেছি মীর মোহাম্মদ নাছির উদ্দিন বিতর্কিত বর্তমান জেলা বিএনপির সভাপতি মাম্যাচিং এর সভপতিত্বে কর্মী সমাবেশে যোগ দিবেন। তাই আমরা ঐ অনুষ্ঠান বর্জন করেছি।

এসময় বান্দরবান জেলা বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি অধ্যাপক ওসমান গণি, জেলা বিএনপির যুগ্ম-সম্পাদক মুজিবুর রশিদ, জেলা বিএনপির দপ্তর সম্পাদক মুছা, লামা উপজেলা বিএনপি’র সভাপতি মো. আমির হোসেন, লামা উপজেলা বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক ও লামা উপজেলা চেয়ারম্যান থোয়াইনু র্মামা, থানছি উপজেলা বিএনপির সভাপতি খামলাই ম্রো, জেলা তৃণমূল দলের সভাপতি লুসাইমংসহ বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতা কর্মী উপস্থিত ছিলেন।

লামা উপজেলা বিএনপি’র সভাপতি মো. আমির হোসেন বলেন,  মেয়াদোর্ত্তীণ অনাস্থাকৃত আংশিক বিএনপি’র সভাপতি মাম্যাচিং ও সাধারণ সম্পাদক জাবেদ রেজার ২১ সদস্যের জেলা কমিটির ১৬জন নিজেদের নাম প্রত্যাহার করে নিয়েছেন। এ ছাড়া  বান্দরবান জেলাধীন ৭টি উপজেলা, ২টি পৌরসভা ইউনিট সমুহ এ কমিটিকে প্রত্যাখান করেছে।

এর ধারাবাহিকতায় বান্দরবান জেলার কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক টিমসমূহ যথাক্রমে কেন্দ্রীয় বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু, জয়নাল আবেদী (ভিপি জয়নাল)  চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা আব্দুস সালাম, উপদেষ্টা সুকোমল বড়ুয়া বাস্তবতার নিরিখে বান্দরবান সফরসূচি স্থগিত করেন। চেয়ারপার্সনের মুক্তি ও আগামী নির্বাচনকে সামনে রেখে অনাস্থাকৃত মেয়াদোর্ত্তীণ কমিটির স্থগিত করণের পাশাপাশি কেন্দ্র অনুমোদিত ৯৮৩জন কাউন্সিলরের মাধ্যমে কমিটি গঠনের দাবি জানিয়েছেন।

এদিকে শনিবার ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর মিলনায়তনে সমাবেশের অনুমতি পাওয়ায় স্বস্তিতে রয়েছে সভাপতি ম্যা মাচিং ও সাধারণ সম্পাদক জাবেদ। বিএনপির কর্মী সমাবেশে নির্বাহী কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান মীর মোহাম্মদ নাসির উদ্দীন প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকায় সে লক্ষ্যে কর্মী সমাবেশের প্রস্তুতি চালিয়ে যাচ্ছে।

এ বিষয়ে জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক জাবেদ রেজা সাংবাদিকদের বলেন, সারা দেশের ন্যায় বান্দরবানেও কর্মী সমাবেশের আয়োজন করেছি। এতে কেন্দ্রীয় নেতারা আসবেন। আমাদের কর্মী সমাবেশকে বানচাল করতে বিএনপির কিছু বিদ্রোহী নেতা ষড়যন্ত্র করছে। তারা অতীতেও দলের সাথে বেঈমানী করেছে এবং বর্তমানেও সরকারের এজেন্ডা বাস্তবায়নে দলের দুর্দিনে এসব চক্রান্ত চালিয়ে যাচ্ছে।

জানা গেছে, উভয় পক্ষের দ্বন্দ্বের অবসান না করে বিএনপির কর্মী সমাবেশ নিয়ে মতবিরোধ দেখা দিয়েছে। মত বিরোধ থেকে অনাকাঙ্খিত কিছু ঘটার আশঙ্কা রয়েছে।

উল্লেখ্য, দুই যুগেরও বেশি সময় ধরে বান্দরবান বিএনপিতে সাচিং প্রু জেরী ও মাম্যাচিং নেতৃত্ব নিয়ে দ্বন্দ্ব চলে আসছে। কেন্দ্রীয় কয়েক দফা এ বিরোধ মিটানোর উদ্যোগ নিলেও তার কোন সমাধান হয়নি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *