বান্দরবানে মাটির উওম স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনা প্রযুক্তি বিষয়ে মাঠ দিবস অনুষ্ঠিত


বান্দরবান প্রতিনিধি:

বান্দরবানে ট্রাইকো কম্পোস্ট সার ও মাটির উওম স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনা প্রযুক্তি বিষয়ে মাঠ দিবস অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সোমবার(১৯ নভেম্বর) সকালে বান্দরবান পূর্ব চেমি ডলুপারা কুহালং ইউনিয়নে বান্দরবান কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের আয়োজনে ন্যাশনাল এগ্রিকালচারাল টেকনোলজি প্রোগ্রাম -ফ্রেজ প্রজেক্ট এনটিপি -২ এর আওতায় মাঠ দিবসটি অনুষ্ঠিত হয় ।

সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. ওমর ফারুকের সভপতিত্বে মাঠ দিবসে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন, বান্দরবান কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ- পরিচালক কৃষিবিদ আলতাফ হোসেন। পূর্ব চেমি ডলু পারা ব্লকের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা খোরশিদা বেগম , সিআইজি সমিতির সভাপতি চাউগ্য মারমাসহ আরও অনেকে ।

ভালো সার ও মাটির উওম স্বাস্থ্য ব্যাবস্থাপনা প্রযুক্তি ব্যবহার করে কৃষকের দিন পাল্টাতে দিন রাত কাজ করে যাচ্ছে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর আর তারই ধারাবাহিকতায় কৃষকদের ভালো ফসল উৎপাদনের লক্ষ্যে তারা ভালো সার ও উওম মাটির ব্যবহার সর্ম্পকে নানান রকম প্রশিক্ষণ প্রদান করে আসছেন কৃষি বিভাগ ।

মাঠ দিবসে কৃষি বিভাগের সকল কর্মকর্তাগণ কৃষকের ভালো ফসল উৎপাদনে হাতে কলমে নানা প্রশিক্ষণ প্রদান করেন এবং কী করে বিনামূল্যে নিজেরা প্রত্যেকের বাড়িতে জৈবিক সার তৈরী করবেন তা সম্পর্কে আলোকপাত করেন। কৃষি সম্প্রসারণ অতিদপ্তর আশা করছেন, তারা বান্দরবান জেলা ও প্রতিটি উপজেলার কৃষকদের ভাগ্য উন্নয়নে চাবিকাঠি হতে পারবেন। কারণ তারা মনে করেন কৃষক বাচঁলে দেশ বাঁচবে । তাই তাদের সকল সুখ দুখের ভাগিদার হতে চায় কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর।

অতিথিরা মাঠ দিবসে আরও বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সকল প্রান্তিক পর্যায়ের কৃষকদের বর্তমানে বিনামূল্যে বীজ , সার ও প্রশিক্ষণ প্রদান করছে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের মাধ্যমে, কারণ তিনি চান বাংলাদেশ একদিন সত্যিকার অর্থে ডিজিটাল বাংলাদেশে রুপান্তুরিত হোক। যাতে আমরা গর্ব করে বলতে পারি, আমরা মাছে ভাতে বাঙালি ।

মাঠ দিবসে বান্দরবান কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ মো. আলতাপ হোসেন কৃষকদের জানান, জৈবিক পদ্ধতি অনুসারে সার তৈরি করে সে সার মাটিতে  প্রয়োগ করলে মাটি তার থেকে দ্বিগুণ পুষ্টি পায় আর তা থেকে মাটির উর্ররতা শক্তি বৃদ্ধি করে, যা ফসল উৎপাদনের জন্য ব্যাপক কার্যকরি । তাই প্রতি মাসে কৃষকদের জন্য কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর নানান প্রশিক্ষণের মাধ্যমে মাঠ দিবসের আয়োজন করে থাকে যাতে করে কৃষকদের সকল সমস্যা সমাধান করে তাদের সমস্যা নিরসনে পরামর্শ প্রদান করা যায় ।

সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. ওমর ফারুক বলেন, কৃষকরা হল দেশের শক্তি। দেশ যতই উন্নতির দিকে যাক না কেন কৃষক যদি দিন রাত পরিশ্রম করে রৌদে পুড়ে ফসল উৎপাদন না করতো তাহলে আমাদের জীবন ধারনের জন্য বেঁছে থাকা কঠিন হয়ে পরতো। তাই একজন কৃষককে অবশ্যই সম্মানের চোখে দেখতে হবে । আর তাই তাদের ভাগ্য উন্নয়নে আমরা কৃষি সম্প্রসারলণ অধিদপ্তর দিন রাত কাজ করে যাচ্ছি, আশা করছি প্রকৃতি অনুকূলে থাকলে এই বছর কৃষকরা ভালো ফসল ঘরে তুলবে। কৃষকরা অন্যান্য বছরের চেয়ে এই বছর ব্যাপক আশাবাদি যে, তারা এই বছর ভাল ফসল তুলতে পারবে কারণ তারা অনেক রকম প্রশিক্ষণ গ্রহন করেছে যা তাদের অন্যান্য বছরের চেয়ে এই বছর ভালো ফসল উৎপাদনে সহয়তা করেছে। ভবিষ্যতেও সকল ধরনের সহায়তার হাত বাড়িয়ে দিয়ে কৃষকদের মুখে হাসি ফুটাবে বলে জানান কৃষি কর্মকতা মো. ফারুক।

মাঠ দিবসে অংশগ্রহণ করা ডলু পাড়া গ্রামের প্রান্তিক কৃষক ও  সিআইজি কৃষক কমিটির সভাপতি চাউগ্য মারমা জানান, আমরা এখন আগের তুলনায় অনেক সচেতন হয়েছি কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের মাধ্যমে। আমরা আগে কী করে ভালো ফসল উৎপাদন করতে হয় তা জানতাম না। কিন্তু বর্তমানে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের সহয়তায় আমরা ভালো ফসল উৎপাদন করতে সক্ষম হয়েছি।

অতিথিরা সকলে আশা করেন, বান্দরবানের মত সকল জেলায় যদি এ ধরনের কৃষকের ভাগ্য উন্নয়নে প্রশিক্ষণ প্রদান করা যায় তাহলে বাংলাদেশ খুব দ্রুত স্বপ্নের ডিজিটাল বাংলাদেশে রুপন্তুরিত হবে আর তার জন্য সকলকে এক যোগে কাজ করে যাবার আহ্বান জানানো হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *