বান্দরবানে দুর্গাপূজা উপলক্ষ্যে ৪০টি মন্দিরে নিরাপত্তা জোরদার


নিজস্ব প্রতিবেদক, বান্দরবান:

আসন্ন দুর্গাপূজা উপলক্ষ্যে বান্দরবানের মন্দিরগুলোতে যেন কোনও অপ্রীতিকর পরিস্থিতি এড়াতে জেলার ৪০টি মন্দিরে নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হয়েছে। এছাড়া রোহিঙ্গা শরণার্থীরা যাতে বান্দরবানে প্রবেশ করতে না পারে জেলার বিভিন্ন স্থানে ৬টি অতিরিক্ত চেকপোস্ট বসানো হয়েছে। মঙ্গলবার পুলিশ সুপারের সম্মেলন কক্ষে সংবাদ সম্মেলনে বান্দরবানের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. কামরুজ্জামান এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, বান্দরবানের ২৬টি পূজামণ্ডপের মধ্যে ২১টি গুরুত্বপূর্ণ পূজামণ্ডপ ও পাঁচটি সাধারণ পূজামণ্ডপ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। এসব পূজামণ্ডপে পুলিশ ছাড়াও সাদা পোশাকেও অতিরিক্তি পুলিশ মোতায়েন রাখা হবে। এসময় তিনি সংবাদ কর্মীদের যে কোনও অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটলে তা তাৎক্ষণিক পুলিশ প্রশাসনকে জানানোর জন্য অনুরোধ করেছেন।

সংবাদ সম্মলেনে বান্দরবান অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শম্পারানী শাহা, সহকারী পুলিশ সুপার ইয়াছির আরাফাত, বান্দরবান প্রেসক্লাবের সভাপতি আমিনুল ইসলাম বাচ্চু ও সেক্রেটারি ফরিদুল আলম সুমনসহ বান্দরবানে কর্মরত প্রিন্ট, অনলাইন ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ায় কর্মরত সাংবাদিকরা উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ সম্মেলনে রোহিঙ্গা ইস্যু নিয়ে পুলিশ সুপার বলেন, ইতিমধ্যে বান্দরবান নাইক্ষ্যংছড়ি সদর সীমান্তে ও ঘুমধুম সীমান্তে কাঁটাতারের সীমান্তবর্তী স্থানে মাইন বিস্ফোরণে ৯ রোহিঙ্গা ও একজন বাংলাদেশি নিহত হয়েছে। এছাড়াও আরও ৯জন বাংলাদেশি ও ১জন রোহিঙ্গা আহত হয়েছে।

তবে এগুলোকে মিয়ানমারের অভ্যন্তরীণ ঘটনা হিসেবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, এখন পর্যন্ত নাইক্ষ্যংছড়ি সদর ইউনিয়নের শাপমারা ঝিরি ও বড় ছনখোলায় এক নারী ও দুই পরুষসহ তিন রোহিঙ্গার মৃত্যু ছাড়া আর কোনও সমস্যা হয়নি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *