বাংলাদেশ আনসার ও প্রেসিডেন্ট পদক পেলেন পানছড়ির দুই সহোদর


নিজস্ব প্রতিবেদক, পানছড়ি:

জেলার পানছড়ি উপজেলার দুই সহোদর লাভ করেছে প্রেসিডেন্ট পদক (সেবা) ও বাংলাদেশ আনসার পদক (সেবা)। গাজীপুরস্থ আনসার ও ভিডিপি একাডেমিতে ৩৮তম আনসার সমাবেশে ১৯ফ্রেব্রুয়ারি তাদের এ পদক প্রদান করা হয়। পানছড়িকে গর্বে ভাসানো দুই সহোদর মো. সবদার আলী ও মো. সুবেদ আলী। তারা উপজেলার ১নং লোগাং ইউপির লোগাং বাজারের বাসিন্দা মৃত মাইজউদ্দিন ও মৃত আয়েশা বেগমের সন্তান। জানা যায়, সেবা, সাহসিকতা ও বীরত্বপূর্ণ অবদানের জন্য চার ক্যাটগরিতে ১২৭জন আনসার সদস্যকে পদক দেয়া হয়।

প্রেসিডেন্ট আনসার সেবা পদক পাওয়া নায়েক মো. সবদার আলী চাকুরীতে যোগদান করেন  ১৯৮৮ সালে। তার ২ মেয়ে ২ ছেলে। বড় ছেলে আশিকুর রহমান আল-আমিন খাগড়াছড়ি সরকারি কলেজে রাষ্ট্রবিজ্ঞান নিয়ে অর্নাসে অধ্যয়নরত। মেয়ে হ্যাপি আক্তারও মাটিরাঙ্গা কলেজে বি.এ অধ্যয়নরত।  লিপি আক্তার পানছড়ি বাজার উচ্চ বিদ্যালয়ে ৬ষ্ঠ শ্রেণিতে ও ছেলে রুহুল আমিন জিসান চতুর্থ শ্রেণিতে অধ্যয়নরত। রাঙামাটি জেলার লংগদু ১ ব্যাটালিয়ন আনসারে কর্মরত সবদার আলী’কে পদক পরিয়ে দেয় বাহিনীর পরিচালক মেজর জেনারেল শেখ পাশা হাবিব উদ্দিন।

বাংলাদেশ আনসার সেবা পদক পাওয়া হাবিলদার মো. সুবেদ আলী চাকুরীতে যোগ দেয় ১৯৯৩ সালে। তার ২ ছেলে ১ মেয়ে। মেয়ে সাহিদা আক্তার পানছড়ি বাজার উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এবার এসএসসি পরীক্ষা দিচ্ছে। ছেলে শোয়াইব হাসান সজিব খাগড়াছড়ি ক্যান্ট পাবলকি স্কুলে ৮ম শ্রেণিতে ও সাখাওয়াত হোসেন শোহানের বয়স আড়াই বছর। পানছড়ি উপজেলা আনসার ও ভিডিপি কর্মকর্তার কার্যালয়ে কর্মরত হাবিলদার সুবেদ আলীকে পদক পরিয়ে দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

ভারত সীমান্ত ঘেঁষা প্রত্যন্ত পানছড়ি উপজেলার ১নং লোগাং ইউপির দুই সহোদরের সেরা সাফল্য পানছড়ি ব্যাপী বইছে খুশীর ঝড়। উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডের জন্য সরকার যে মূল্যায়ন করে এটাই তার দৃষ্টান্ত উদাহরণ বলে অনেকে মতামত জানালেন। পানছড়িবাসীর জন্য এই অর্জন উৎসর্গ করে হাবিলদার সুবেদ আলী জানান, পেশাগত জীবনে সততার সহিত কাজ করে এ পদকের সম্মান রক্ষায় আমি বদ্ধপরিকর। সকলের দোয়া নিয়ে আগামীতে আরো সেবা দেয়ার ব্যাপারে তারা দৃঢ় প্রতিজ্ঞ বলেও জানালেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *