বঙ্গবন্ধু সাফারি পার্কে যাত্রা শুরু হলো ট্যুরিস্ট পুলিশের


চকরিয়া প্রতিনিধি:

কক্সবাজারের চকরিয়ার বঙ্গবন্ধু সাফারি পার্কের নিরাপত্তার দায়িত্বে নিয়োজিত করা হয়েছে ট্যুরিস্ট পুলিশকে।   সোমবার (৫মার্চ) আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনের মাধ্যমে কক্সবাজার ট্যুরিস্ট পুলিশের সাব জোন বঙ্গবন্ধু সাফারি পার্ক ট্যুরিস্ট পুলিশের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা দায়িত্ব পালন শুরু করেছেন।

এতে এখন থেকে দেশি-বিদেশি পর্যটক-দর্শনার্থীদের নিরাপত্তা নিয়ে আর দুশ্চিন্তায় ভুগতে হবে না পার্ক কর্তৃপক্ষকে। আপাতত ট্যুরিস্ট পুলিশের জনবল পার্কের ঈগল রেস্টহাউজে অবস্থান করে তাদের দায়িত্ব পালন শুরু করেছেন। চলতি বছরের মধ্যে পার্ক সংলগ্ন খাস জায়গা দেখে সেখানে স্থায়ী অবকাঠামো নির্মাণের উদ্যোগ নেওয়ার আশ্বাস দেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব জাফর আলম এমএ।

সোমবার দুপুর বারটার দিকে ট্যুরিস্ট পুলিশের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন ট্যুরিস্ট পুলিশ চট্টগ্রাম জোনের অতিরিক্ত ডিআইজি মোহাম্মদ মুসলিম। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চকরিয়া উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান জাফর আলম, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি রেজাউল করিম, চট্টগ্রাম বন্যপ্রাণী ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগের বিভাগীয় বনকর্মকর্তা ও সাফারি পার্কের প্রকল্প পরিচালক এসএম গোলাম মওলা, ট্যুরিস্ট পুলিশ কক্সবাজারের পুলিশ সুপার জিল্লুর রহমান, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ট্যুরিস্ট) ফজলে রাব্বী, চকরিয়া সার্কেলের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার কাজী মো. মতিউল ইসলাম, উপজেলা পরিষদ ভাইস চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম আজাদ, থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মিজানুর রহমান, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক গিয়াস উদ্দিন চৌধুরী, পার্কের তত্ত্বাবধায়ক কেএম মোর্শেদুল আলম, পার্কের সহকারী তত্ত্বাবধায়ক মাজহারুল ইসলাম চৌধুরী প্রমুখ।

২২ সদস্যের এ ট্যুরিস্ট পুলিশের টিমে আছেন ১জন পরিদর্শক (ইন্সপেক্টর), ২জন উপ-পরিদর্শক (এসআই), ১জন সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) ও ১৮জন কনস্টেবল (মহিলাসহ)। তারা পালাক্রমে সার্বক্ষণিক নিরাপত্তার দায়িত্বে রয়েছেন।

অফিস উদ্বোধন শেষে ট্যুরিস্ট পুলিশ কক্সবাজারের পুলিশ সুপার জিল্লুর রহমানের সভাপতিত্বে ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ট্যুরিস্ট) ফজলে রাব্বীর সঞ্চালনায় প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন ট্যুরিস্ট পুলিশের অতিরিক্ত ডিআইডি মোহাম্মদ মুসলিম। এছাড়াও অন্যান্য অতিথিরাও বক্তব্য রাখেন।

প্রধান অতিথি বলেন, ‘বাংলাদেশ যতদিন থাকবে ততদিন পর্যন্ত ট্যুরিস্ট পুলিশের কার্যক্রম বিদ্যমান থাকবে সাফারি পার্কে। এতে দেশি-বিদেশি পর্যটকদের নিরাপত্তা নিয়ে আর বেগ পেতে হবে না। এই পর্যটনের সুফল যাতে সারা বিশ্বের মানুষ পায় সেজন্য ট্যুরিস্ট পুলিশ সর্বদা কাজ করে যাবে।’

তিনি বলেন, ‘এখন তো পার্কের একটি রেস্টহাউজে অবস্থান করে কার্যক্রম উদ্বোধন করলাম। তাই স্থায়ী একটি অবকাঠামো যাতে নির্মাণ করা যায় সেজন্য জায়গার প্রয়োজন এবং এটি করা খুবই জরুরী। আশা করি আপনাদের মতো জনপ্রতিনিধি থাকলে অচিরেই এই সমস্যাও সমাধান হবে।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *