প্রধানমন্ত্রী কুতুবদিয়াকে কখনই বিচ্ছিন্ন দ্বীপ ভাবেন না


কুতুবদিয়া প্রতিনিধি:

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কখনই কুতুবদিয়াকে বিচ্ছিন্ন দ্বীপ ভাবেন না। যে কারণে বেড়িবাঁধসহ দ্বীপের স্কুল, কলেজ, ভবন, রাস্তা নির্মাণে প্রায় ৪‘শ কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ বাস্তবায়ন করে যাচ্ছেন।

শনিবার (৩০ ডিসেম্বর) কুতুবদিয়া থানার এক’শ বছর পুর্তি উদ্যাপন উপলক্ষে আলোচনা সভায় কুতুবদিয়া-মহেশখালীর সাংসদ আলহাজ্ব আশেক উল্লাহ রফিক প্রধান অতিথির বক্তব্যে একথা বলেন।

কুতুবদিয়া আয়োজিত শতবর্ষ উদযাপন অনুষ্ঠানে উপজেলা নির্বাহী অফিসার সুজন চৌধুরীর সভাপতিত্বে কুরআন তেলাওয়াত গীতা পাঠের মাধ্যমে শুরু হয়।

বিশেষ অতিথির মধ্যে বক্তব্য রাখেন জেলা প্রশাসক মো. আলী হোসেন, পুলিশ সুপার ড. একেএম ইকবাল হোসেন, জেলা আ’লীগের সভাপতি এডভোকেট সিরাজুল মোস্তফা, সাধারণ সম্পাদক মুজিবুর রহমান চেয়ারম্যান, এডভোকেট আমজাদ হোসেন, মহেশখালী পৌর মেয়র মকসুদ মিয়া, বড়ঘোপ ইউপি চেয়ারম্যান জেলা আ’লীগ নেতা এডভোকেট ফরিদুল ইসলাম চৌধুরী, জেলা কমিউনিটি পুলিশিং এর সভাপতি আবু হেনা মোস্তফা কামাল, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সৈয়দা মেহেরুন্নেছা, উপজেলা সমাজ সেবা কর্মকর্তা ইমরান খান, উপজেলা আ’লীগের সভাপতি আওরঙ্গজেব মাতবর, সাধারণ সম্পাদক ইউপি চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা নুরুচছাফা প্রমুখ।

এ ছাড়া সভায় অন্যান্যদের মাঝে মহেশখালী-কুতুবদিয়া সার্কেল রতন কান্তি দাশ, চকরিয়া-পেকুয়া সার্কেল কাজী মতিউর ইসলাম, ওসি পেকুয়া মো. জহিরুল ইসলাম খান, জেলা আ’লীগ নেতা শফিউল আলম কুতুবী, জেলা আ’লীগের সমবায় বিষয়ক সম্পাদক খোরশেদ আলম কুতুবী, মহেশখালী উপজেলা আ’লীগ নেতা নুরুল আলম, যুবলীগ নেতা শেখ কামালসহ উপজেলার বিভিন্ন পেশাজীবী, শিক্ষার্থী, সাংবাদিক, সংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য ও উপস্থাপনা করেন থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ দিদারুল ফেরদাউস। এর আগে সকাল ১১টার দিকে পুলিশ, আনসার, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পক্ষে, সংগঠন সম্মিলিত ভাবে বর্নাঢ্য র‌্যালি বের হয়ে সদরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে।

পরে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, নাটক, আতসবাজি আলোক উজ্জল প্রভৃতির আয়োজনের মধ্যে দিয়ে শতবর্ষ পুর্তি অনুষ্ঠানটি সফল ভাবে সম্পন্ন হয়।

image_pdfimage_print

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *