প্রত্যন্ত অঞ্চলে ভূয়া ফেইসবুক আইডি আতংক


Facebook Id

মো.আবুল বাশার নয়ন:
শহর থেকে গ্রামে-গঞ্জের সর্বত্র আশঙ্কাজনকভাবে বেড়েছে ভূয়া ফেইসবুক আইডি। এসব ভূয়া আইডি আতংকে ভুগছে প্রত্যন্ত এলাকার রাজনৈতিক নেতা, জনপ্রতিনিধি, ব্যবসায়ী, শিক্ষক, সাংবাদিকসহ সর্বস্থরের জনসাধারণ। এতে করে জনমনে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। প্রশাসনের সঠিক নজরদারী না থাকায় সাইবার অপরাধীরা বেপরোয়া হয়ে উঠেছে বলে মনে করছেন ভুক্তভোগীরা।

জানা গেছে, দেশে ১৮ বছরের কম বয়সীদের মোবাইল ফোন ব্যবহারের নিয়ম নেই। অথচ বিধিনিষেধের তোয়াক্কা না করেই উৎসাহী কিছু শিশু-কিশোর ব্যবহার করছে আধুনিক প্রযুক্তির সব মোবাইল সেট। তারা পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করছে তা নয়, নিজস্ব মোবাইলে ভূয়া আইডি তৈরী করে নিজ শত্রু কিংবা অন্য কারো প্ররোচনায় সমাজের বিভিন্ন শ্রেণীর মানুষের অতীত ভবিষ্যত নিয়ে আপত্তিকর মন্তব্যের মাধ্যমে আতংক সৃষ্টি করছে এলাকায়। এছাড়াও বর্তমানে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নামেও ভূয়া আইডির মাধ্যমে ষড়যন্ত্র হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছে একাধিক ভুক্তভোগী সংগঠন।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে কক্সবাজার সরকারী মহিলা কলেজের এক ছাত্রী এ প্রতিবেদককে জানান, বহু দিন ধরে তার নাম এবং তিনটি ছবি ব্যবহার করে একটি আইডি ছড়িয়ে পড়েছে। এ নিয়ে তার পরিবারে চরম অশান্তি দেখা দিয়েছে বলে জানান।

ওই ছাত্রীর মত প্রতিদিন কেওনা কেউ ভূয়া ফেইসবুক আইডির মাধ্যমে প্রতারিত হচ্ছেন। শুধু তাই নয়, ইতোপূর্বে কক্সবাজার-রামু আসনের সংসদ সদস্য সাইমুম সরওয়ার কমলের নাম ব্যবহার করে একটি আইডি চালু করা হলে তা বন্ধ করার জন্য এমপি নিজেই ৬ মে ২০১৪ সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে অনুরোধ জানান। এছাড়াও দেশের ইতিহাসে কলঙ্কময় রামু বৌদ্ধ বসতিতে হামলার ঘটনাও ঘটেছিল ফেইসবুকের সূত্র ধরে।

এ প্রসঙ্গে বিটিআরসির ভাইস চেয়ারম্যান গিয়াস উদ্দীন আহমেদ বলেন, অনেকেই ভূয়া আইডির বিড়ম্বনার শিকার হচ্ছেন। তাঁরা অভিযোগও করছেন। অভিযোগগুলো আমরা তদন্ত করে দেখি এবং ফেসবুক কর্তৃপক্ষকে ব্যবস্থা নেওয়ার অনুরোধ জানাই’।

এ বিষয়ে কক্সবাজার মডেল থানা পরিদর্শক মো: আসলাম হোসেন এ প্রতিবেদককে জানান, নতুন কর্মস্থলে যোগদানের পর এখনো পর্যন্ত সাইবার অপরাধ সংক্রান্ত কোন অভিযোগ পাওয়া যায়নি। তবে অভিযোগ পেলে অবশ্যয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এ ধরনের ভূয়া ফেইসবুকে সম্মানহানির বিষয়ে ৪ সেপ্টেম্বর বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক তাঁর ফেইসবুক পেইজে লিখেছেন ‘‘আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করে নাইক্ষ্যংছড়িতে বিএনপি-জামাতকে শক্তিশালী করার জন্য বিশাল অংকের অর্থের মিশন নিয়ে কাজ করছে কিছু সংখ্যক বিপদগামী ষড়যন্ত্রকারী। অপর পোস্টে তিনি ভূয়া ফেইসবুক আইডি ‘তালাস টিম’, ‘মিশ্র ভগ্নাংশ’ দু’টি আইডির নাম উল্লেখ করে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।

তথ্যপ্রযুক্তি বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ফেসবুকে ভূয়া আইডি খোলা ও অন্যকে প্রতারণা করাটা ব্যবহারকারীর খারাপ দিক; এটি ফেসবুকের খারাপ দিক নয়। ভূয়া আইডির বিড়ম্বনা থেকে স্বস্তি পেতে বন্ধুত্বের অনুরোধগুলো ভালো করে যাচাই-বাছাই করে দেখা উচিত। এছাড়াও জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের আইসিটি বিভাগের সহযোগীতাও নিতে পারে ভুক্তভোগীরা।

উল্লেখ্য, কয়েক মাস পূর্বে কক্সবাজার জেলা প্রশাসক কার্যালয়, কক্সবাজার সরকারী কলেজসহ বিভিন্ন সময়ে সাইবার নিরাপত্তা আইন বাস্তবায়নে সচেতনতামূলক আলোচনাসভা ও সংবাদ সম্মেলনেও করা হয়। এতে তথ্য ও প্রযুক্তি আইনের বিষয়ে সচেতনা বৃদ্ধির উপর গুরুত্বরোপ করা হয়েছিল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *