প্রচারের জন্য নয় মানুষের দুঃখ দুর্দশা লাঘবের জন্যই কাজ করে রেড ক্রিসেন্ট


 

রাঙ্গামাটি প্রতিনিধি:

মানুষের দুঃখ দুর্দশা লাঘবের জন্যই কাজ করে রেড ক্রিসেন্ট। একমাত্র রেড ক্রিসেন্টই বিশ্বের সর্বশ্রেষ্ঠ স্বেচ্ছাসেবী মানবসেবা মূলক প্রতিষ্ঠান, ভূমি ও পাহাড় ধসে নিহত লোকজনকে উদ্ধার, আহত লোকজনকে তাৎক্ষনিক প্রাথমিক চিকিৎসা সেবা, ক্ষতিগ্রস্ত লোকজকে মানবিক সহায়তা ও আশ্রয় কেন্দ্রে আশ্রয়গ্রহণকারী লোকজনকে খাবার সহায়তা প্রদানে নিরলস কাজ করার জন্য ইউনিটের যুব স্বেচ্ছাসেবক, কার্য নির্বাহী কমিটি, আজীবন সদস্য, ইউনিটের কর্মকর্তা, কর্মচারী, সাংবাদিক মহল সহ অন্যান্য সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান সমূহকে তার ও ইউনিটের পক্ষ থেকে আন্তরিক ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন। গতকাল রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ হলরুমে সাংবাদিকদের সাথে রাঙ্গামাটি রেড ক্রিসেন্ট ইউনিটের মতবিনিময় সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

১৪ সেপ্টেম্বর রাঙ্গামাটি রেড ক্রিসেন্ট ইউনিট রাঙ্গামাটিতে কর্মরত সাংবাদিকদের সাথে ভূমি ধস পরবর্তী রাঙ্গামাটি রেড ক্রিসেন্ট ইউনিটের ভূমিকা শীর্ষক এক মত বিনিময় সভার আয়োজন করেন। সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন ইউনিট সেক্রেটারি এম. বখতেয়ার উদ্দীন। ভূমি ধস পরবর্তী ইউনিট কর্তৃক বাস্তবায়িত কার্যক্রমের বিষদ বর্ণনা করেন ইউনিট আফিসার আজরু উদ্দিন সাফদার। ভূমি ধস পরবর্তী রাঙ্গামাটি রেড ক্রিসেন্ট ইউনিট কার্য নির্বাহী কমিটি সহ যুব স্বেচ্ছা সেবকদের যৌথ সভার মাধ্যমে ৪টি উদ্ধার ও ৮টি প্রাথমিক চিকিৎসা টিম গঠন করে তাদেরকে দলীয় কাজে নেতৃত্ব প্রদান, দায়িত্ব, কর্তব্য, কাজের সমন্বয় এবং কৌশল ও ব্যক্তিগত নিরাপত্তা বিষয়ক ওরিয়েন্টেশন প্রদানের মধ্য দিয়ে ইউনিটের ৪টি উদ্ধারকারী টিম বাংলাদেশ সেনাবাহিনী, ফায়ার সার্ভিস ও পুলিশের সাথে যৌথ ভাবে উদ্ধার কাজে অংশগ্রহণ করে সেনা সদস্য সহ ১৭টি মৃতদেহ উদ্ধার ও সদর হাসপাতালে স্থানান্তর, ৮টি প্রাথমিক চিকিৎসা টিম ভূমিধ্বসে আহত ও ক্ষতিগ্রস্ত লোকজনকে বিভিন্ন এলাকায় এবং ৮টি আশ্রয় কেন্দ্রে ১৫৭জনকে প্রাথমিক চিকিৎসা প্রদান এবং গুরুতর আহত লোকজনকে সদর হাসপাতালে স্থানান্তর, ১১ জন নিখোঁজ ব্যক্তির তালিকা তৈরি এবং তার মধ্য থেকে ৬জনের মৃতদেহ উদ্ধার কাজে সহায়তা, ক্ষতিগ্রস্ত ও মৃত ব্যক্তির পরিবার সমূহকে শান্তনা সহ মানসিক সহায়তা প্রদান, ত্রাণ কার্যক্রমের আওতায় ১৩০০ পরিবারকে ফুড প্যাকেজ হিসেবে ১৫ কেজি, ডাল ২ কেজি, তৈল ১ লিটার, চিনি ১ কেজি, লবণ ১ কেজি, সুজি ১ কেজি করে প্রদান করেন। এছাড়াও ৪টি আশ্রয় কেন্দ্রে আশ্রয় গ্রহণকারী লোকজনকে দীর্ঘ ১মাস ১দিন দৈনিক  বেলা করে আশ্রয়গ্রহণকারীদের চাহিদা মোতাবেক খাবার সরবরাহ করেন।

সভায় আরো জানানো হয় খুব শিঘ্রই আরো ১৩০ পরিবারকে ফুড প্যাকেজের আওতায় খাদ্য দ্রব্য প্রদান করা হবে। এছাড়াও পাহাড় ধসে সম্পূর্ণভাবে ক্ষতিগ্রস্ত ১২৩১ পরিবারকে চেকের মাধ্যমে পরিবার প্রতি ৪,০০০(চার হাজার) টাকা করে ৪৯,২৪,০০০ টাকা এবং লংগদুতে অগ্নিকাণ্ডে ক্ষতিগ্রস্ত ২১৩ পরিবারের প্রত্যেক পরিবারকে ১২,০০০ (বার হাজার) টাকা করে ২৫,৫৬,০০০ টাকা অর্থ সহায়তা হিসেবে প্রদান সহ  ভূমি ধসে অধিক ক্ষতিগ্রস্ত রাঙ্গামাটি পৌর সভা এবং কাউখালী উপজেলায় “ নিরাপদ পানি ও পয় নিস্কাসন” প্রকল্পের কার্যক্রম শুরু করা হবে। যার আওতায় ওই সকল এলাকার লোকজন নিরাপদ খাবার পানি ও স্বাস্থ্য সম্মত পায়খানা ব্যবহারের আওতায় আসবে।

সভায় আরো বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ প্রতিদিনের রাঙ্গামাটি জেলা প্রতিনিধি ফাতেমা জান্নাত মুমু, রাঙ্গামাটি জার্নালিস্ট নেট ওয়ার্কের শান্তিময় চাকমা, সাংবাদিক ইউনিয়নের মিল্টন বড়ুয়া, রিপোটার্স ইউনিটির সুশিল প্রসাদ চাকমা, প্রেসক্লাব সেক্রেটারি ও দৈনিক রাঙ্গামাটির সম্পাদক আনোয়ার আল হক ও ইউনিটের ভাইস চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম চৌধূরী ভূট্টো। সভায় বক্তারা ইউনিটের কার্যক্রমের প্রশংসা করেন এবং বলেন দুর্যোগ পরবর্তী সময়ে সকলের সম্মিলিত সহযোগিতায় উদ্ধার কাজ পরিচালনা সহ দুর্গতদের সার্বিক সহায়তার যে  ঐক্য এখানে সৃষ্টি হয়েছে এবং সকল সম্প্রদায়ের লোকজন যেভাবে  ঐক্যবদ্ধভাবে দুর্গতদের পাশে এসে দাঁড়িয়েছে তা অন্য সকলের জন্য অনুকরনীয় দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে।

রাঙ্গামাটি ইউনিটের সকল কার্যক্রমে আংশ গ্রহণ সহ প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে আন্তরিক সহযোগিতা প্রদানের জন্য এবং দুর্যোগ পরবর্তী তাৎক্ষনিক সহায়তার হাত বাড়িয়ে দেয়ার জন্য রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ ও রাঙ্গামাটি রেড ক্রিসেন্ট ইউনিটের চেয়ারম্যান জনাব বৃষ কেতু চাকমা, সার্বিক সমন্বয়, বাজার ব্যবস্থা নিয়ন্ত্রণ ও সকল কাজে আন্তরিক সহায়তা প্রদানের জন্য রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলার জেলা প্রশাসক  মানজারুল মান্নান, রাঙ্গামাটি পৌর সভার মেয়র জনাব আকবর হোসেন চৌধূরী, ইউনিট কার্যনির্বাহী কমিটির সম্মানিত সদস্যবৃন্দ, জেলা ও উপজেলা প্রশাসনের বিভিন্ন কর্মকর্তা, যাদের নিরলস পরিশ্রমে রাঙ্গামাটির প্রকৃত ক্ষয়ক্ষতির চিত্র বিশ্ববাসীর নজরে এসেছে সেসকল সাংবাদিক, বিশেষ করে স্থানীয় ও জাতীয় দৈনিক পএিকার সম্মানিত সম্পাদকবৃন্দ, বিভিন্ন ইলেট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিক উদ্ধার কার্যক্রম সহ মানবতার সেবায় নিরলস অক্লান্ত পরিশ্রমের জন্য বাংলাদেশ সেনা বাহিনী, বিজিবি, ফায়ার সার্ভিস, বাংলাদেশ পুলিশ, রাঙ্গামাটির স্বাস্থ্য সেবা বিভাগ, বিদ্যুত বিভাগ, সড়ক ও জনপথ বিভাগ, বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী প্রতিষ্ঠান সহ রাঙ্গামাটিবাসীকে সমবেদনা ও সহায়তা প্রদানের জন্য দুর্যোগের পরপরই  সরকারের একাধিক মন্ত্রী সহ উচ্চ পর্যায়ের সামরিক ও বেসামরিক কর্মকর্তাদের, যারা ছুটে এসেছেন বিধ্বস্ত রাঙ্গামাটিতে তাদেরকে সহ ইউনিটের সম্মানীত আজীবন সদস্য বৃন্দ, ইউনিটের কর্মকর্তা, কর্মচারী ও সকল যুব রেড ক্রিসেন্ট স্বেচ্ছা সেবককে রাঙ্গামাটি রেড ক্রিসেন্ট ইউনিটের পক্ষ থেকে আন্তরিক কৃতজ্ঞতা জানানো হয়।

উল্লেখিত কর্মসূচি সমুহে ইউনিট কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্যগণ, আজীবন সদস্য, যুব রেড ক্রিসেন্ট স্বেচ্ছা সেবক বৃন্দ, স্থানীয় দৈনিক ও জাতীয় পত্রিকার সাংবাদিক ও বিভিন্ন ইলেকট্রনিক্স মিডিয়ার সাংবাদিক বৃন্দ সহ বিভিন্ন পর্যায়ের সুধী জন অংশগ্রহণ করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *