পেকুয়ায় ১মাসে ৮ লাখ টাকার ইয়াবা চালান, ২০মামলা, অর্ধশত ওয়ারেন্ট ও ১১আসামী গ্রেপ্তার


নিজস্ব প্রতিনিধি:

কক্সবাজারের পেকুয়ায় চলতি বছরের গত ১মাসের পৃথক অভিযানে ৮ লাখ টাকার ইয়াবা চালানসহ এক ব্যবসায়ী ও অর্ধশতাধিক পলাতক মামলার ওয়ারেন্ট তামিল করেছে পুলিশ। এ ছাড়া নারী ও শিশু নির্যাতন এবং অন্যান্য অপরাধমূলক কর্মকান্ড বন্ধে ২০টি মামলা রুজু হয় থানায়।

ফলে, পুলিশের এ কর্ম তৎপরতায় এলাকার সকল শ্রেণী পেশার মানুষ স্বস্তি ও সন্তোষ প্রকাশ করে পেকুয়া থানা পুলিশের প্রতি সাধুবাদ জানিয়েছে।

জানা যায়, বাঙ্গালী জাতীর শোকের মাস আগস্টে উপজেলার আইন-শৃংখলা পরিস্থিতি শান্ত ও স্বাভাবিক রাখার পাশাপাশি সরকার, পুলিশ বাহিনী ও আইনের প্রতি সাধারণ মানুষের শ্রদ্ধাবোধ অটুট রাখতে পেকুয়া থানা পুলিশ নতুন করে বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করে।

এসময় নিয়মিত টহলাভিযানের পাশাপাশি দফায় দফায় বন্যাক্রান্ত দূর্গতদের ত্রাণ ও পুনর্বাসন কাজে সহযোগিতাপ্রদানসহ ভেজাল পণ্যের বিকিকিনি প্রতিরোধ, চুরি, ডাকাতি, ছিনতাই, চাঁদাবাজি, রাহাজানি, যানজট থেকে জনসাধারণের জানমালের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে কড়া নজরদারী সহ তাৎক্ষনিক এ্যাকশান অবস্থান গ্রহন করে পেকুয়া থানা পুলিশ। যার ফলে, পৃথক পৃথক অভিযানে উপজেলার একাধিক ৮লাখ টাকার ইয়াবার চালান সমেত এক পাঁচারকারী আটক ছাড়াও বিজ্ঞ আদালতের প্রায় অর্ধশতাধিক ওয়ারেন্ট তামিল করেছে পেকুয়া থানা পুলিশ।

এসময় জি.আর মামলার ২৮টি, সি.আর মামলার ১২টি ওয়ারেন্ট তামিলসহ নিয়মিত মামলার ১১জন এজাহার আসামীকে গ্রেপ্তারপূর্বক বিজ্ঞ আদালতে সোপর্দ করে পুলিশ।

থানার তথ্য ও জনসংযোগ বিভাগে কর্মরত কনস্টেবল মোঃ হাসানের সরবরাহকৃত তথ্য উপাত্তের বরাতে আরো জানা গেছে যে, আগস্ট মাসে পুলিশের নিয়মিত অভিযান চলাকালীন সময়ে র‌্যাব প্রথমবারের মতো প্রায় ৮লাখ টাকার ইয়াবা ট্যাবলেটের চালানসহ এক ব্যবসায়ীকে গ্রেপ্তার করে থানায় সোপর্দ করেছে।

এছাড়া, দেশব্যাপী নারী ও শিশু নির্যাতনের ঘটনা বৃদ্ধির তৎপরতা বন্ধে , নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে এবং অন্যান্য অপরাধমূলক আইনে থানায় ২০টি মামলা রুজুসহ নিয়মিত মামলার ১১জন আসামীকে গ্রেপ্তারপূর্বক বিজ্ঞ আদালতের নিকট সোপর্দ্দ করেছে পুলিশ।

তাছাড়া, উপজেলার অপরাধপ্রবণ এলাকাগুলোর আতংক হিসাবে পরিচিত বাহিনীর অপরাধীদের বিচরণ তৎপরতা বন্ধে স্পর্শকাতর পাড়া-মহল্লায় সার্বক্ষনিক নজরদারী জোরদার রাখে পুলিশ। সেই সাথে অসামাজিক কার্যকলাপ ও ফোজদারী অপরাধে সংশ্লিষ্টতার দায়ে ৫জনকে আটক করে ভ্রাম্যমান আদালতে সোপর্দ করে পুলিশ।

পেকুয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (প্রশাসন) মোঃ আবদুর রকিব ও ওসি (তদন্ত) শহিদুল্লাহ পুলিশের এ সাফল্যজনক তৎপরতা নিশ্চিত করে জানিয়েছেন, কর্মস্থল এলাকার মানুষের জানমালের নিরাপত্তা বিধানের পাশাপাশি সরকারী বেসরকারী সম্পত্তির নিরাপদ রাখতে পুলিশ সার্বক্ষনিক তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *