পেকুয়ায় স্বাস্থ্য সহকারীর ভুল চিকিৎসায় ডায়রিয়া রোগীর মর্মান্তিক মৃত্যু!


পেকুয়া প্রতিনিধি:

কক্সবাজারের পেকুয়ায় স্বাস্থ্য সহকারীর ভুল চিকিৎসায় ডায়রিয়া রোগী লতিজা বেগমের মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘটনার পর থেকে ওই স্বাস্থ্য সহকারী গা-ঢাকা দিয়েছে। মৃত লতিজা বারবাকিয়া ইউনিয়নের আন্নর আলী পাড়া এলাকার কামাল হোসেনে স্ত্রী ও তিন সন্তানের জননী।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, শুক্রবার (১৮ মে) লতিজা বেগমের ডায়রিয়া হলে তার পরিবারের লোকজন পেকুয়া কবির আহমদ চৌধুরী বাজারের ফাঁসিয়াখালী ব্রীজ সংলগ্ন মেসার্স আজম মেডিকোস্থ স্বাস্থ্য সহকারী মৌলানা দেলোয়ারের চেম্বারে সকাল ১১টার দিকে ভর্তি করায়। এসময় দেলোয়ার ওই মহিলা রোগীকে একটি স্যালাইন পুশ করেন।

পরে দুপুর ১২টার দিকে রোগীর অবস্থার অবনতি হয়। এসময় রোগীর অবস্থার বেগতিক দেখে স্বাস্থ্য সহকারী দেলোয়ার তার চেম্বার তালাবদ্ধ করে পালিয়ে যায়। পরে দুপুর ১টার দিকে রোগীর আত্মীয় স্বজন ও স্থানীয়রা এসে ওই ফার্মেসীর তালা ভেঙ্গে মৃত অবস্থায় ডায়রিয়া রোগীকে উদ্ধার করে। এরপর রোগীর আত্মীয় স্বজনরা লতিজা বেগমের মৃতদেহ বাড়ীতে নিয়ে গিয়ে দাফন করে ফেলে।

গোপনে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, লতিজা বেগমের পরিবারকে মোটা অংকে ম্যানেজ করেছে অভিযুক্ত স্বাস্থ্য সহকারী দেলোয়ার হোসেন।

অপরদিকে ভুল চিকিৎসার অভিযোগ এনে ওই স্বাস্থ্য সহকারী দেলোয়ারের বিরুদ্ধে ২০ মে পেকুয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তার নিকট লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন বারবাকিয়া ইউনিয়নের সবজীবন পাড়া গ্রামের মাহবুবুল আলম নামে একজন সচেতন ব্যক্তি।

স্থানীয়রা আরো জানান, দেলোয়ার দীর্ঘ দিন ধরে ডাক্তার সেজে এলাকার নিরীহ লোকজনকে ভুল চিকিৎসা দিয়ে থাকে। এর আগেও অনেক মৃত্যুর ঘটনা হয়েছে, কিছু দিন পালিয়ে থাকলেও আবার এলাকায় চলে এসে রোগীর আত্বীয়স্বজনকে টাকা দিয়ে ম্যানেজ করে।

পেকুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের প্রধান সহকারী মো. নেজাম উদ্দিন এ প্রসঙ্গে জানান, স্বাস্থ্য সহকারী দেলোয়ার হোসেনের বিরুদ্ধে একটি লিখিত অভিযোগ পাওয়া গেছে।

অভিযোগের ব্যাপারে স্বাস্থ্য সহকারী দেলোয়ার হোসেনের সঙ্গে যোগযোগ করা হলে তিনি জানান, ডায়রিয়া রোগী লতিজা বেগমকে তার চেম্বারে নিয়ে আসলে তিনি একটি স্যালাইন পুশ করেছিলেন সত্য। এরপর স্বাস্থ্য সহকারী দেলোয়ার আর কথা বলতে রাজি হননি।

পেকুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. মুজিবুর রহমান জানান, বিষয়টি তারা খতিয়ে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *