পেকুয়ায় জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে হামলায় নারী পুরুষসহ আহত ১০


পেকুয়া প্রতিনিধি:

কক্সবাজারের পেকুয়ায় জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে দুপক্ষের হামলায় নারী পুরুষসহ ১০জন   আহত হয়েছে। স্থানীয়রা আহতদেরকে উদ্ধার করে পেকুয়া সদর হাসপাতালে ভর্তি করে।

বুধবার (১১এপ্রিল) দুপুর ১.৩০ টার দিকে উপজেলার উজানটিয়া ইউনিয়নের সুতাচুরা আতর আলী পাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় আহতরা হলেন, একই এলাকার আজিজুর রহমানের স্ত্রী মনোয়ারা বেগম, আজিজুর রহমানের পুত্র আবু ছালেক ও মৃত ছমি উদ্দিনের পুত্র আজিজুর রহমান, অপর পক্ষে আহত হলেন মৃত নুরুল ইসলামের পুত্র নুরুল কবির, মৃত মোজাফফর আহমদের ছেলে তাজুল ইসলাম, নুরুল আলম প্রকাশ বাদশাহ, তাজুল ইসলামের মেয়ে ও উজানটিয়া জুনিয়র হাই স্কুলের ৯ম শ্রেণীর ছাত্রী তাহিয়াতুল জান্নাত, জিয়াবুল করিমের স্ত্রী ছেনোয়ারা বেগম, মেয়ে ইফাত, মৃত নুরুল ইসলামের স্ত্রী গুলতাজ বেগম। আহতদের মধ্যে তিনজনের অবস্থা গুরুতর বলে জনিয়েছেন কর্তব্যরত চিকিৎসক।

স্থানীয়রা জানান, একই এলাকার আজিজুর রহমান গং ও শফিউল আলম গংয়ের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে জমি সংক্রান্ত বিরোধ চলে আসছিল। এ নিয়ে থানায় ও আদালতে মামলা চলমান। বিচারাধীন ওই জমির উপর কার্যস্থিরতা বজায় রাখার জন্য আইন শৃঙ্খলা রক্ষার স্বার্থে ১৪৪ ধারা জারি করে আদালত। ঘটনার দিন বুধবার পেকুয়া থানার এস আই শিমুল গিয়ে উভয়পক্ষকে এ আদেশ অবগত করে। কিন্তু পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে যাওয়ার পরপরই সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে উভয়পক্ষ।

আহত আজিজুর রহমানের পক্ষের মাহাবুল আলম জানান বিরোধীয় জায়গা আমাদের দীর্ঘ ৫০ বছরের ভোগদখলীয়। বর্তমানেও আমাদের দখলে। কিন্তু প্রতিপক্ষ শফিউল আলম গং ওই জমির প্রতি লোলুপ দৃষ্টি দেয়। এ নিয়ে থানায় এবং আদালতে বিচার কার্য চলমান রয়েছে। তারপরও প্রতিপক্ষরা জমিতে বাঁধ নির্মাণ করে ঘটনার দিন দুপুরে থানার এস আই শিমুল গিয়ে জমির মধ্যে নির্মাণ করা ওই বাঁধ কেটে দেয়। পরে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে চলে গেলে প্রতিপক্ষ শফিউল আলম গং পুনরায় ওই বাঁধ নির্মাণ করতে চায় এতে বাঁধা দিলে উভয় পক্ষে সংঘর্ষে লেগে যায়। খবর পেয়ে পুলিশ পুনরায় গিয়ে উভয়কে শান্ত করে। তারা দীর্ঘ দিন ধরে ওই জমি দখলে নিতে চেষ্টা করে। থানায় এবং আদালতের প্রতিবেদনে ওই জায়গা দখল দেখার জন্য পায়তারা শুরু করছে।

এদিকে অপর পক্ষের আহত তাজুল ইসলাম বলেন, পুলিশ চলে যাওয়ার পরে বিনা উস্কানিতে আমাদের উপর হামলা চালায় আজিজুর রহমান গংয়ের লোকজন। দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র দিয়ে হামলা চালিয়ে আমার পরিবারের ৭ সদস্যকে আহত করে তারা।

পেকুয়া থানার উপ পরিদর্শক (এসআই) শিমুল বড়ুয়া বলেন, জমি সংক্রান্ত বিরোধের উত্তেজনা মিট করতে সরেজমিনে গিয়ে উভয়পক্ষকে আদালতের আদেশ অবহিত করতে যায়। কিন্তু এর আধাঘণ্টার মধ্যেই তারা সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে।

এ ব্যাপারে পেকুয়া থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মিজানুর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে  বলেন, এ ঘটনায় এখনও লিখিত অভিযোগ পায়নি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *