পেকুয়ায় জমি দখল নিয়ে সংঘর্ষ, জেলা ছাত্রলীগের সহ সভাপতিসহ আহত ৪, আটক ২


সংঘর্ষ
পেকুয়া প্রতিনিধি:
পেকুয়ায় দু’পক্ষের মধ্যে ব্যাপক সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ সময় দু’পক্ষের মধ্যে অন্তত চার রাউন্ড গুলি বিনিময় হয়েছে। হামলায় উভয় পক্ষের ৪ জন গুরতর আহত হয়েছেন। আহতদের স্থানীয়রা উদ্ধার করে পেকুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। বুধবার সকাল ৮টার দিকে মগনামা ইউনিয়নের ধারিয়াখালী এলাকায় এ ঘটনাটি ঘটে।
খবর পেয়ে পেকুয়া থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। এ সময় পুলিশ দু’জনকে আটক করেছে।

আহতরা হলেন উপজেলার সদর ইউনিয়নের পশ্চিম গোঁয়াখালী এলাকার বীর মুক্তিযুদ্ধা ডা.আফতাব উদ্দিনের পুত্র জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ সভাপতি আমির আশরাফ রুবেল (৩৭), একই এলাকার মৃত. দলিলুর রহমানের পুত্র আমেরিকান প্রবাসী শফিউল আজম চৌধুরী (৫০), পারভেজ সাজ্জাদ চৌধুরী (৫০) ও আসিফ সাজ্জাত চৌধুরী (৪৭)। আহতদের মধ্যে পারভেজ সাজ্জাতের অবস্থা গুরুতর হওয়ায় ওইদিন তাকে চমেক হাসপাতালে ভর্তি করে।

আটককৃতরা হলেন মাতবরপাড়া এলাকার কামরুল সাজ্জাদ ও কমরুদ্দিন। গুলি বিনিময় নিয়ে পরষ্পর বিরোধী বক্তব্য পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় একপক্ষ অপরপক্ষকে দায়ী করছে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও স্থানীয় এলাকাবাসী জানিয়েছেন মগনামা ইউনিয়নের ধারিয়াখালী এলাকায় গোঁয়াখালী ফতেহ আলী মাতবর চৌধুরীর মালিকানাধীন বিপুল জমি রয়েছে। প্রায় ২ একর আয়তন একটি দিঘি নিয়ে ওয়ারিশ নুরুল আজিম চৌধুরী ও আমেরিকা প্রবাসী শফিউল আজম চৌধুরীর মধ্যে বিরোধ দেখা দেয়। দীর্ঘদিন ধরে নুরুল আজিম চৌধুরী দিঘিটি ভোগ দখল করছিলেন। ঘটনার দিন শফিউল আজম চৌধুরী দখলের উদ্দেশ্যে ভাড়াটে লোকজনসহ শ্রমিক নিয়ে দিঘি খনন করতে যায়। এ সময় নুরুল আজিম চৌধুরীর ছেলে পারভেজ সাজ্জাত বাধা দেয়ার চেষ্টা করে।

এ সময় ভাড়াটে সন্ত্রাসীরা তাকে নির্দয়ভাবে পিটিয়ে গুরুতর আহত করে। এ খবর ছড়িয়ে পড়লে শতশত লোকজন সেখানে জড়ো হয়। স্থানীয়রা জানায় ছত্রভঙ্গ করতে শফিউল আলম চৌধুরীর ভাড়াটে লোকজন কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছোঁড়ে। এ সময় দু’পক্ষের মধ্যে ব্যাপক সংঘর্ষ হয়।

এ ব্যাপারে পেকুয়া থানার ওসি জিয়া মোহাম্মদ মোস্তাফিজ ভুইয়া ঘটনার সত্যতা জানিয়ে বলেন বিষয়টি তাদের পারিবারিক জায়গাজমি সংক্রান্ত।

image_pdfimage_print

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *