পিসিপি’র সমাবেশে যোগদিতে সাধারণ গ্রামবাসীদের ভয়ভীতি প্রদর্শন


নিজস্ব প্রতিবেদক, খাগড়াছড়ি:

ইউনাইটেড পিপল্স ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট (ইউপিডিএফ)সমর্থিত পাহাড়ি ছাত্রপরিষদের ২৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীকে কেন্দ্র করে আবারও পাহাড়ের শান্তিপূর্ণ পরিবেশ অশান্ত হয়ে উঠছে। রবিার (২০ মে) খাগড়াছড়িতে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর সমাবেশকে ঘিরে খাগড়াছড়ি জেলার ও শহরতলীর পাহাড়ি গ্রামগুলোর সাধারণ লোকজনকে সমাবেশে আসার জন্য ভয়ভীতি দেখাচ্ছে পাহাড়ি ছাত্রপরিষদের নেতাকর্মীরা এমনি অভিযোগ করেছে স্থানীয় গ্রামবাসীরা।

নামপ্রকাশে অনিচ্ছুক গ্রামবাসীদের অভিযোগ বিগত কয়েকদিন ধরে দিনে ও রাতে ইউপিডিএফ’র কর্মীরা সমাবেশে যেতে বাধ্য করছে এবং সমাবেশে অংশ গ্রহণ করলে জনপ্রতি ১০০০ টাকা করে দেয়ারও প্রলোভন দিচ্ছে। জেলার সদরের গীরিফুল, গাছবান, যৌথখামার, মনিগ্রাম, ২নং রাবার বাগান, ১২নং রাবার বাগান, ভাইবোনছড়া এলাকার আশপাশের গ্রামগুলোর সাধারণ গ্রামবাসীদের নানা ভাবে ভয়ভীতি প্রলোভন দেখিয়ে সমাবেশে আশার জন্য বাধ্য করছে। পার্বত্যচুক্তি বিরোধী ইউপিডিএফ’র গনবিরোধী কর্মকাণ্ডে পাহাড়ের শান্তিপ্রিয় মানুষ অতিষ্ঠ হয়ে উঠছে। সচেতন সমাজ উদ্বিগ্ন।

পাহাড়ি সমাজের গ্রাম প্রধানরাও তাদের গণবিরোধী কর্মকাণ্ডের ক্ষোভ প্রকাশ করছে। তারা হীনকর্মকাণ্ড বন্ধে স্থানীয় প্রশাসন ও নিরাপওাবাহিনী দ্রুত হস্তক্ষেপ কামনা করছে। পার্বত্য চট্টগ্রামের বর্তমান শান্তিপূর্ন পরিবেশ আগামী জাতীয় নির্বাচনের পূর্বে ক্ষমতাসীন সরকারের ভাবমুর্তিক্ষুন্ন করার হীন প্রচেষ্টায় লিপ্ত হয়ে পার্বত্যচুক্তি বিরোধী ইউনাইটেড পিপল্স ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট (ইউপিডিএফ)সমর্থিত সংগঠন পাহাড়ি ছাত্রপরিষদ, গণতান্ত্রিক যুবফোরাম, হিলইউমেন ফেডারেশনের নেতাকর্মীরা পাহাড়ে পরিকল্পিত ভাবে অশান্তি পরিবেশ তৈরি করছে। পার্বত্য চট্রগ্রামে নিয়োজিত সেনাবাহিনীর ভাবমুর্তিক্ষুন্ন করতে তারা উঠে পড়ে লেগেছে। পার্বত্যচট্রগ্রামে সেনাবাহিনী প্রতিনিয়ত আইনশৃঙ্খলা পরিবেশ স্বাভাবিক রাখতে কাজ করে যাচ্ছে, পাশাপাশি আস্থাফিরিয়ে আনতে কাজ করছে সেনাবাহিনী । তবে পাহাড়ি গ্রামবাসীদের নানা ভাবে ভয়ভীতি পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের খাগড়াছড়ি জেলা সাধারণ সম্পাদক অমল ত্রিপুরা এ অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

পিসিপি’র ২৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে গত শুক্রবার (১৮ মে ২০১৮) সকাল ১১টায় খাগড়াছড়ির জেলা সদরের স্বনির্ভরস্থি ঠিকাদার সমিতি ভবনে সমাবেশ করে। সমাবেশ থেকে ইউপিডিএফ নেতাকর্মীরা সরকার স্থানীয় প্রশাসন ও সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে নানা উস্কানীমুলক বক্তব্য রাখে। এতে প্রধান আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ইউপিডিএফ-এর অন্যতম সংগঠক, গণতান্ত্রিক যুব ফোরামের সভাপতি ও পিসিপি’র কেন্দ্রীয় সাবেক সভাপতি অংগ্য মারমা। সভায় অন্যান্যের মধ্যে আরও বক্তব্য রাখেন পিসিপি’র কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি বিপুল চাকমা, গণতান্ত্রিক যুব ফোরামের খাগড়াছড়ি জেলা শাখার সভাপতি বরুন চাকমা প্রমুখ।

এছাড়া হিল উইমেন্স ফেডারেশন খাগড়াছড়ি জেলা সদস্য এন্টি চাকমা ও পিসিপি’র খাগড়াছড়ি জেলা সাধারণ সম্পাদক অমল ত্রিপুরা ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *