পাহাড়ে চাকমা রাজার বিয়ে উৎসব


marriage ceremony of chakam king

স্টাফ রিপোর্টার, রাঙামাটি:

আবারও বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়েছেন রাঙামাটি পার্বত্য জেলার চাকমা সার্কেল চীফ ব্যারিষ্টার রাজা দেবাশীষ রায়। শুক্রবার সন্ধ্যায় অনুষ্ঠানিকভাবে চাকমা রাজার বিয়ে উৎসব শুরু করা হয়।

রাজা দেবাশীষ রায়ের বিবাহ উপলক্ষে রাজবাড়ী এলাকা সেজেছে বণ্যার্ঢ সাজে। বিয়ের আনন্দে মেতে উঠেছে পার্বত্যাঞ্চলে পাহাড়ি-বাঙালীরা। বিয়ে উপলক্ষে রাজ বাড়িতে নামতে শুরু হয়েছে হাজারও মানুষের ঢল। নিমন্ত্রণ জানানো হয়েছে দেশ- বিদেশ প্রায় ৪হাজার অতিথিকে। কনে ইয়েন ইয়েন বান্দরবানের রাখাইন সম্প্রদায়ের মেয়ে। চাকমা রাজা দেবাশীষ রায়ের এটি হচ্ছে দ্বিতীয় বিবাহ। প্রায় দেড় যুগ আগে তাঁর প্রথম স্ত্রী রানী তাতু রায় ক্যান্সার রোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যান।

চাকমা রাজ পরিবার সূত্রে জানা গেছে, রাঙামাটি শহরের ত্রিদ্বীপ এলাকায় অবস্থিত আগুনে পুড়ে যাওয়া চাকমা রাজ বাড়িতে এই বিয়ে অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। শুক্রবার সন্ধ্যায় চাকমা রাজা দেবাশীষ রায় ও ইয়েন ইয়েন এর মধ্যে আনুষ্ঠানিকভাবে সামাজিক রীতির মধ্যে এই বিবাহ অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়। এ অনুষ্ঠানে দেশ-বিদেশের প্রায় চার হাজার অতিথিকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে।

সূত্র আরও জানায়, শুক্রবার বিকেলে কনে ইয়েন ইয়েন তার বাবা মহেশখালীর বাসিন্দা উমং রী এবং মা বান্দরবানের বাসিন্দা দপু ম্যা খাইনসহ কনের পক্ষের লোকজন রাঙামাটির রাজার নিজ বাড়িতে আসেন। এর পর সন্ধ্যায় চাকমা রাজ দরবারে আনুষ্ঠানিকভাবে সামাজিক রীতিনীতি অনুযায়ী আমন্ত্রিত অতিথিদের উপস্থিতিতে বিবাহের আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করা হয়। চাকমা রাজার এটি দ্বিতীয় বিবাহ হলেও নতুন প্রজন্মের কাছে রাজার বিয়ে অনুষ্ঠান দেখার আগ্রহ কম ছিল না।

রাজ পরিবারের অন্য একটি সূত্রে জানা গেছে, শুক্রবার সকালে বান্দরবান শহরের উজানী পাড়ায় কনে ইয়েন ইয়েনের বাসায় এ রাজভাবে বিয়ে সম্পন্ন হয়। চাকমা রাজা সকালে বর যাত্রী নিয়ে রাঙামাটি থেকে বান্দরবানে যান। বিয়ের প্রথাগত আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্নের পর গুরুজনদের উপস্থিতিতে কন্যা সম্পাদন করা হয়। অষ্ট্রেলিয়ার এডিলেইড বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত বান্দরবানের মেয়ে ইয়েন ইয়েনের সাথে পরিচয়ের সূত্রে প্রেম ও পরে তা বিয়ে পর্যন্ত গড়ায়।

10303792_286564851526928_3331353237977308390_n

গত বছরের ১২ ডিসেম্বর রাজা দেবাশীষ রায় ও ইয়েন ইয়েন অস্ট্রেলিয়ায় অবস্থানকালে আংটি বদলসহ বিবাহ বন্ধনের আবদ্ধ হন। ইয়েন ইয়েন বুয়েটে পড়াশোনার পর স্কলারশিপ নিয়ে অষ্ট্রেলিয়ার এডিলেইড বিশ্ববিদ্যালয়ে পিএইচডি করেন।

উল্লেখ্য, এক ছেলে রাজ কুমার ত্রিভূন আর্য্য দেব রায় এবং এক মেয়ে রাজ কুমারী আয়েত্রী আরাধনা রায়কে রেখে ক্যান্সার রোগে আক্রান্ত হয়ে রানী তাতু রায় ১৯৯৮ সালে প্রয়াত হন। দীর্ঘ এক যুগের অধিক সময় ধরে সঙ্গীনীহীন থাকার পর এ বছর রাজা দ্বিতীয়বারের মতো বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়েছেন। 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *