পার্বত্যনিউজ-এ সংবাদ প্রকাশের পর আলীকদমে স্কুলের টাকা লুটপাট তদন্তে কমিটি



আলীকদম প্রতিনিধি:
আলীকদম উপজেলার ২০১৫-১৬ ও ২০১৬-১৭ অর্থবছরের সরকারি বরাদ্দের ক্ষুদ্র মেরামত, প্রাক-প্রাথমিক ও স্কুল লেভেল ইমপ্রুভমেন্ট প্ল্যানের (স্লিপ) টাকা লুটপাটের বিষয়ে গত ১২ অক্টোবর পার্বত্যনিউজ-সহ কয়েকটি গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদের বিষয়ে তদন্ত কমিটি গঠন করেছে উপজেলা শিক্ষা কমিটি। মঙ্গলবার একটি বিদ্যালয়ের অনিয়মের তদন্ত করেন উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা ইস্কান্দর নুরী। ‘আলীকদমে স্কুল মরোমত ও স্লপিরে টাকা লুটপাট’ শিরোনামে পার্বত্যনিউজ-এ ১২ অক্টোবর সংবাদ প্রকাশিত হয়।

উপজেলা শিক্ষা কমিটির সদস্য অংশেথোয়াই মার্মা ও জিয়াবুল হক জানান, রবিবার অনুষ্ঠিত এ সংক্রান্ত সভায় কয়েকটি স্কুলে স্লিপের টাকা আত্মসাতের বিষয়ে প্রকাশিত সংবাদ নিয়ে আলোচনা হয়। এ ব্যাপারে তদন্ত করতে সভার বেশিরভাগ সদস্য একমত হন।

উপজেলা শিক্ষা অফিসার ইস্কান্দর নুরী বলেন, মঙ্গলবার অসতি ত্রিপুরা পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে অনিয়মের অভিযোগের তদন্ত হয়েছে। তদন্ত প্রতিবেদন উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নিকট পাঠানো হবে। চৈক্ষ্যং ত্রিপুরা পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও থোয়াইচিং হেডম্যান পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়সহ আরো কয়েকটি বিদ্যালয়ে স্লিপসহ অন্যান্য অনিয়মের তদন্তের জন্য ইউআরসি ইন্সট্রাক্টর মোহাম্মদ আলমগীরকে তদন্ত কর্মকর্তা নিয়োগ করা হয়েছে।

ইউআরসি ইন্সট্রাক্টর মোহাম্মদ আলমগগীর জানান, প্রকাশিত সংবাদের বিষয়ে তদন্তের জন্য আমাকে দায়িত্ব দেওয়ার বিষয়ে জেনেছি। তদন্তের চিঠি পাওয়ার পর পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

প্রসঙ্গ উল্লেখ্য, গত দুই অর্থবছরে ক্ষুদ্র মেরামত, প্রাক-প্রাথমিক, ক্রীড়া পুরস্কার ও স্লিপের বিদ্যালয়ভিত্তিক বরাদ্দের টাকা কাজ না করে লুটপাট করেন কয়েকটি বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক। এসব টাকা দিয়ে বিদ্যালয়ের লেখাপড়ার মানোন্নয়ন, অগ্রাধিকারভিত্তিক ছোট ছোট সংস্কার কাজ এবং গরিব শিক্ষার্থীদের শিক্ষা সহায়তাসহ বিভিন্ন কাজে এসব টাকা ব্যয় করার কথা ছিল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *