পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফের পদত্যাগ


আন্তর্জাতিক ডেস্ক:

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফ পদত্যাগ করেছেন। শুক্রবার পাকিস্তানের জাতীয় জবাবদিহি আদালত নওয়াজ শরীফকে প্রধানমন্ত্রী পদের অযোগ্য ঘোষণার কিছু পরেই তিনি এই পদত্যাগ করেন।

একই সাথে বিপুল অঙ্কের বেনামি সম্পত্তি রাখার অভিযোগে পাক প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু করার নির্দেশ দিল জবাবদিহি আদালত।  একই আদেশে আদালত অর্থমন্ত্রী ইসহাক ধরকেও অযোগ্য ঘোষণা করেছে। পাকিস্তানের জিও টিভি প্রকাশিত খবরে একথা বলা হয়েছে।

পানামা পেপাস মামলার ৫ টি রায়ের সবগুলোই পাকিস্তানের এই প্রধানমন্ত্রী, তার কন্যা মারিয়াম, পুত্র  হোসাইন এবং হাসানের বিরুদ্ধে গিয়েছে। নওয়াজ শরীফ সুপ্রীম কোর্টের এই সিদ্ধান্তে দুঃখ প্রকাশ করেছেন। এবং একই সাথে পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী বাছাইয়ের ব্যাপারে কাজ শুরু করে দিয়েছেন।

এটি নওয়াজ শরীফের তৃতীয় মেয়াদে প্রধানমন্ত্রীত্ব ছিলো। মনে হচ্ছিল পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী হিসাবে তিনিই প্রথম মেয়াদ পূর্ণ করতে চেয়েছেন। কিন্তু মেয়াদ পুর্তির এক বছর আগেই তাকে পদত্যাগ করতে হলো। আগামী ২০১৮ সালে পাকিস্তানে জাতীয় নির্বাচন হওয়ার কথা রয়েছে।

পাকিস্তানের সুপ্রীম কোর্ট নির্বাচন কমিশনকে তার সংসদীয় আসন খালি করার নির্দেশও দিয়েছে। নির্দেশ পেয়ে পাকিস্তান নির্বাচন কমিশন আসন খালি করার কৌশলগত কাজও শুরু করে দিয়েছে। সুপ্রীম কোর্টের মতে, শরীফ তার নমিনেশন পেপারে দুবাই ভিত্তিক ক্যাপিটাল কোম্পানী এফজেডই এর কথা উল্লেখ করেননি। যা অসততা ও অবিশ্বস্ততার পর্যায়ে পড়ে। বিচারকগণ রায়ে বলেছেন, নওয়াজ শরীফ আদালত ও পার্লামেন্টের প্রতি অসততা আচরণ দেখিয়েছেন যা তার পদের প্রতি অযোগ্য প্রমাণ করে।

পাকিস্তানের এটর্নি জেনারেল আসতার আওসাফ আলী জানিয়েছে, পদত্যাগ করা সত্ত্বেও প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফ তার অফিসের থাকবেন এবং রাষ্ট্রপতির সিদ্ধান্তের জন্য অপেক্ষা করবেন।

পাকিস্তান সংবিধানের ১৯০ ধারা অনুযায়ী দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রধানমন্ত্রী ক্ষমতায় থাকবেন না না থাকবেন না সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহনের জন্য রাষ্ট্রপতিকে ক্ষমতা দেয়া হয়েছে।

 

image_pdfimage_print

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *