নিমার্ণ কাজ শেষ হওয়ার পূর্বেই এলজিইডির সড়ক ধস


লামা প্রতিনিধি:

উপজেলা সদরের লামা-মেরাখোলা সড়কের মেরামত ও সংস্কার কাজ শেষ হওয়ার পূর্বেই বিভিন্ন অংশ ধসে পড়েছে। এলজিইডির এই সড়ক নিমার্ণ কাজে নিম্নমানের নির্মাণ সামগ্রী ব্যবহার এবং সিডিউল মোতাবেক কাজ না করার অভিযোগ তুলেছেন স্থানীয় জনসাধারণ।

তবে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান মিলন ট্রেডার্স দাবী করেছেন, সিডিউলের বাহিরে গিয়েও আমরা অনেক কাজ করেছি এবং সিডিউলে বর্ণিত সিলেটের পাথরের অপেক্ষা স্থানীয় পাথরের গুণগত মান অনেক বেশী ভালো।

জানা গেছে, এলজিইডি চলতি অর্থ বছরে রক্ষণাবেক্ষণ বরাদ্দের আওতায় লামা-মেরাখোলা রোডের ০-১৪৭০ মিটার চেইনেজ কাজ বাস্তবায়নের জন্য মেসার্স মিলন ট্রেডার্সকে ঠিকাদার নিযুক্ত করে। ৩৯ লক্ষ ৭৮ হাজার টাকা চুক্তিমূল্যে কাজ বাস্তবায়নের জন্য ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান মিলন ট্রেডার্স এর সাথে এলজিইডি চুক্তিবদ্ধ হয়। স্থানীয় জনসাধারণ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকসহ বিভিন্নভাবে অভিযোগ তুলে বলেছেন নিমার্ণ কাজে নিম্নমানের পাথর ব্যবহার করা হচ্ছে। নিয়ম মোতাবেক বিটুমিন ব্যবহার করা হচ্ছে না।

এছাড়া সিলেটের নিম্নমানের পাথর দিয়ে সড়কের মেরামত কাজ করা হচ্ছে। স্থানীয়ভাবে কিছু পাথর সংগ্রহ করা হলেও সেগুলোর মানও খুবই নিম্নমানের। যার ফলে সামান্য বৃষ্টিপাতে চলমান কাজের বিভিন্ন অংশ ধসে পড়েছে।

ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান মিলন ট্রেডার্সের পক্ষে মনসুর আলম জানিয়েছেন, সিডিউলে সড়কের উভয় পাশে মাটি ধরা নেই। সড়কের হাই স্কুল অংশে সিডিউলের বাহিরে গিয়ে আমরা উচু-নিচু সমান করেছি। সড়কের বিভিন্ন অংশে মাটির কাজ থাকলেও সিডিউলে তা ধরা হয়নি। আমরা স্থানীয়ভাবে গুণগত মান সম্পন্ন পাথর ব্যবহার করার চেষ্টা করলে অভিযোগের প্রেক্ষিতে বাদ দিয়েছি। তবে বর্তমানে সিলেটের পাথর ব্যবহার করছি। সড়কের অনেক জায়গায় ড্রেন প্রয়োজন। উভয় পাশে মাটি দেওয়া প্রয়োজন। কিন্তু সিডিউলে এসব ধরা নেই।

এলজিইডির উপজেলা প্রকৌশলী মো. মোবারক হোসেন জানিয়েছেন, কাজের অগ্রগতি ৬০%। সড়কে ১৫ মি.মি. ডেন্স কার্পেটিং করা হবে। ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানকে এখনো কোন বিল পরিশোধ করা হয়নি। বৃষ্টির কারণে নিমার্ণ কাজের সমস্যা হয়েছে। বিল প্রদানেব পূর্বে ঠিক করে নেওয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *