দেশকে উন্নতি ও সমৃদ্ধ হিসেবে বিশ্বের বুকে দাঁড় করতে স্বেচ্ছায় করদাতাদের এগিয়ে আসতে হবে



চকরিয়া প্রতিনিধি:

“সবাই মিলে দেব কর, দেশ হবে স্বনির্ভর’এ শ্লোগানকে সামনে রেখে কক্সবাজারের চকরিয়ায় কর অঞ্চল-৮৮ আয়োজনে দিনব্যাপী আয়কর মেলা উদযাপিত হয়েছে।

সোমবার (৬নভেম্বর) চকরিয়া পৌরসভার থানা সেন্টারস্থ মা প্রমিলা ভবন মিলনায়তনে আনুষ্ঠানিক ভাবে উদ্বোধনের মধ্যদিয়ে এ আয়কর মেলা অনুষ্ঠিত হয়। নানা ধরণের বর্ণিল বেলুন ও শান্তির পায়রা উড়িয়ে সকাল ১০টার দিকে এ আয়কর মেলা উদ্বোধন করেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি  চকরিয়া-পেকুয়া সংসদীয় আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য ও জেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি হাজ্বী মোহাম্মদ ইলিয়াছ এমপি।

উদ্বোধনের পর পরেই কর অঞ্চল-৪ চট্টগ্রামের যুগ্ম কর কমিশনার শ্রাবনী চাকমার সভাপতিত্বে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি হাজ্বী মোহাম্মদ ইলিয়াছ এমপি তার বক্তব্যে বলেন, আত্মনির্ভরশীল ও উন্নত দেশ হিসেবে গড়ে তুলতে করদাতা ছাড়া সম্ভব নয়।

সঠিক সময়ে নিয়ম মোতাবেক কর প্রদান করলে দেশ এগিয়ে যেতে বেশি সময় লাগেনা। একটি স্বনির্ভর রাষ্ট্র হিসেবে বিশ্বের কাছে তুলে ধরতে করদাতারাই সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছেন। সমাজের প্রত্যেক শ্রেণির মানুষকে জনসচেতনতা বৃদ্ধি করে এ দেশকে উন্নতি ও সমৃদ্ধ দেশ হিসেবে বিশ্বের বুকে দাঁড় করতে হলে স্বেচ্ছায় করদাতাদের কর দিয়ে এগিয়ে আসতে হবে।

কর পরিশোধ মধ্যদিয়ে সরকারকে যতবেশি সহযোগিতা করবে ততবেশি রাষ্ট্র সমৃদ্ধশালী হবে। উক্ত আয়কর মেলা অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন কক্সবাজার জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান ও জেলা মহিলা জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক আসমাউল হোসনা, চকরিয়া উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান এসএম জাহাঙ্গীর আলম বুলবুল, চকরিয়া পৌরসভার প্যানেল মেয়র মো. বশিরুল আইয়ুব।

এতে উপস্থিত ছিলেন জেলা পরিষদের সদস্য ও নারীনেত্রী রেহেনা খানম রাহু, উপজেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি মো. গিয়াস উদ্দিন মেম্বার, চকরিয়ার তরুণ ব্যবসায়ী বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ ও করদাতা এম. খলিল উল্লাহ চৌধুরী, চকরিয়া সনাক (টিআইবি)সভাপতি অধ্যাপক সাহাবউদ্দিন প্রমুখ।

অনুষ্ঠান শেষে সেরা করদাতাদের মাঝে সম্মাননা পত্র ও পুরস্কার তুলে দেন আমন্ত্রিত অতিথিবৃন্দ।

আয়কর মেলার আয়োজনকারীরা জানান, আয়করকে জনগণের কাছে সহজবোধ্য করা এবং সচেতনতা বাড়াতে আয়কর মেলার এ আয়োজন। মেলায় যেসব সেবা প্রদান করা হচ্ছে তার মধ্যে রয়েছে নতুন করদাতাদের জন্য ১২ ডিজিটের টিআইএন রেজিস্ট্রেশন, পুরনো করদাতাদের টিআইএন রি-রেজিস্ট্রেশন, আয়কর রিটার্ন ও সিটিজেন চার্টার সরবরাহ করা, আয়কর রিটার্ন জমা দেওয়ার ব্যবস্থা, তাৎক্ষণিক প্রাপ্তি স্বীকারপত্র প্রদান, হেল্প ডেস্কের মাধ্যমে করদাতাদের প্রয়োজনীয় সহায়তা প্রদান এবং ই-পেমেন্টের মধ্যেমে আয়কর প্রদানের সুবিধা রয়েছে বলে জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *