দুই খুনীর স্বীকারোক্তিতে মাইনী নদী থেকে যুবলীগ নেতা নয়নের মোটরসাইকেল উদ্ধার


নিজস্ব প্রতিবেদক, খাগড়াছড়ি:

টানা প্রায় পাঁচ ঘন্টা খাগড়াছড়ির দীঘিনালার মাইনী নদীতে অভিযান চালিয়ে রাঙামাটির লংগদু উপজেলার যুবলীগ নেতা নুরুল ইসলাম নয়নের ব্যহৃত মোটরসাইকেলটি উদ্ধার করেছে, কাপ্তাইয়ের শহীদ মুয়াজ্জেম ঘাটির নৌবাহিনীর ডুবুরী দল ও চট্টগ্রাম ফায়ার সার্ভিস।

শুক্রবার সকালে খাগড়াছড়ি পুলিশ ও পিবিআই নয়ন হত্যাকাণ্ডের আসামী জুনেল চাকমাকে (১৯) চট্টগ্রাম থেকে গ্রেফতার করা হয়। পরে তার স্বীকারোক্তিতে খাগড়াছড়ির দীঘিনালা থেকে রুমেল চাকমাকে গ্রেফতার করে। তাদের স্বীকারোক্তিতে মাইনী নদী থেকে নয়নের মোটরসাইকেল উদ্ধার হয়।

খাগড়াছড়ি পুলিশ সুপার আলী আহমদ খান এক প্রেস ব্রিফিং-এ জানান, রাঙামাটির লংগদু উপজেলার বাসিন্দা জুনেল চাকমা ও বাবু রাজ চাকমা নামে দুই যুবক গত ১ জুন নুরুল ইসলাম নয়নকে খাগড়াছড়ি যাওয়ার কথা বলে ভাড়া করে আনে। পথিমধ্যে দীঘিনালা থেকে রুনেল চাকমা নামে আরেক যুবক তাদের সফর সঙ্গী হয়। খাগড়াছড়ি থেকে ফেরার পথে জেলা সদরের চার মাইল এলাকায় নয়নকে মাথায় রড দিয়ে আঘাত করে হত্যা করার পর তার মটরসাইকেল নিয়ে পালিয়ে যায় সন্ত্রাসীরা।

পরবর্তীতে এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে লংগদুতে হামলা হওয়ায় সন্ত্রাসীরা মটরসাইকেলটি বিক্রি না করে গত ৪ জুন দীঘিনালার মাইনী নদীতে ফেলে দেয়। মোবাইলের কল তালিকা ধরে তদন্তের মাধ্যমে শুক্রবার(৯ জুন) চট্টগ্রামের কর্ণফুলী এলাকা থেকে লংগদুর রাঙ্গিপাড়ার জ্ঞান লাল চাকমার ছেলে জুনেল চাকমা(১৮) কে গ্রেফতার করা হয়।

পরবর্তীতে তার দেয়া স্বীকারোক্তি মোতাবেক একইদিন সন্ধ্যায় দীঘিনালার বাবুছড়া এলাকার রাজ মোহন চাকমা রুনেল চাকমাকে গ্রেফতার করা হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা হত্যাকাণ্ডের কথা স্বীকার করেছে। তাদের স্বীকারোক্তি মোতাবেক শনিবার মাইনী নদীতে তল্লাশি চালিয়ে নয়নের মটরসাইকেলটি উদ্ধার করা হয়।

মূলত মটরসাইকেল ছিনতাইয়ের উদ্দেশ্যে নয়নকে হত্যা করা হয়েছে বলে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা গেছে। তিনি আঞ্চলিক কোন সংগঠনের সাথে নয়নের হত্যাকারীদের সম্পৃক্ত কিনা এমন প্রশ্নের উত্তরে পুলিশ সুপার জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে বলে জানান। এছাড়া পলাতক বাবু রাজ চাকমাকেও গ্রেফতারে পুলিশ অভিযান চালাচ্ছে।

এর আগে, শনিবার বেলা সাড়ে ১১টা থেকে বিকাল সোয়া ৪টা পর্যন্ত রাঙামাটির কাপ্তাইয়ের শহীদ মোয়াজ্জম নৌঘাটির ডুবুরি দল টানা পাঁচ ঘন্টা মাইনী নদীতে তল্লাশি চালিয়ে বিকেল ৪টা ১৫ মিনিটে নয়নের মটরসাইকেলটি উদ্ধার করে। উদ্ধার কাজে নৌ বানিহী ডুবুরি দলকে সহযোগিতা করেন চট্টগ্রামের ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল ও স্থানীয়রা।

তল্লাশি অভিযান চালানোর সময় খাগড়াছড়ির পুলিশ সুপার আলী আহমদ খান ছাড়াও শহীদ মোয়াজ্জম নৌ ঘাটির লে. এম কবির হোসেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এমএম সালাহউদ্দীন, পিবিআই চট্টগ্রাম বিভাগের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাঈন উদ্দিন, দীঘিনালা থানার অফিসার ইনচার্জ(ওসি) সামসুদ্দিন ভূইয়া, খাগড়াছড়ি সদর থানার অফিসার ইনচার্জ(ওসি) তারেক মোহাম্মদ আব্দুল হান্নান, পিবিআই’র পরিদর্শক সন্তোষ চাকমা উপস্থিত ছিলেন।

প্রসঙ্গত, গত ১ জুন দুপুরে খাগড়াছড়ির চার মাইল এলাকায় খুন করা হয় রাঙমাটির লংগদু উপজেলা যুবলীগের নেতা নুরুল ইসলাম নয়নকে। এঘটনাকে কেন্দ্র করে ২ জুন লংগদুর তিনটিলা, মানিকজোড় ছড়া ও বাইট্যাপাড়া এলাকায় ২১২টি পাহাড়ি বাড়ি ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে অগ্নিসংযোগ, ভাংচুর ও লুটপাট  করে দুর্বৃত্তা।

খাগড়াছড়ি সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা তারেক মো. আব্দুল হান্নান জানান, নয়ন হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় তার ছোট ভাই লিটন বাদি হয়ে খাগড়াছড়ি সদর থানায় অজ্ঞাত ব্যক্তিদের  আসামী করে মামলা দায়ের করেন।

image_pdfimage_print

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *