দীঘিনালায় প্রাকৃতিকভাবে উৎপাদিত হচ্ছে মাশরুম


দীঘিনালা প্রতিনিধি:

প্রাকৃতিকভাবে উৎপাদিত মাশরুমের চাহিদা বেশি দীঘিনালায়। এখানে উপজাতি এবং বাঙালি সবার নিকট প্রিয় এ মাশরুম। চাহিদা থাকায় প্রতি আটি মাশরুম বিক্রি হয় একশত টাকায়।

মঙ্গলবার দীঘিনালার লারমা স্কোয়ারে বিক্রির সময় কথা হয় মাশরুম বিক্রেতা অমিয় চাকমার সাথে। তিনি জানান, এ মাশরুম প্রাকৃতিকভাবে উৎপাদিত। স্থানীয় কৃষকরা সংগ্রহ করে বাজারে নিয়ে আসে। আর তা সংগ্রহ করে আমরা বিক্রি করে থাকি, চাহিদা থাকায় ভালো দরে বিক্রি হচ্ছে।

জানা যায়, বর্তমোনে বিশ্বের প্রায় ১০০টি দেশে মাশরুম চাষ হয়। দৈনন্দিন খাবার টেবিলে অপরিহার্য্য সবজি হিসেবে ইতিমধ্যে স্থান দখল করেছে মাশরুম। ১৯৭৯ সালে কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগ থাইল্যান্ড থেকে কিছু মাশরুম বীজ এনে আসাদ গেটে নার্সারিতে প্রথম পরীক্ষামূলক ভাবে চাষ শুরু করে।  তার পর জাপান সরকাররে সহযোগিতায় ১৯৮০ সালে একজন জাপানী বিশেষজ্ঞের মাধ্যমে বিজ্ঞান ভিত্তিক ভাবে মাশরুম চাষের জয়যাত্রা শুরু হয়।

মাশরুমের পুষ্টিমান সর্ম্পকে আরো জানা যায়,  ১০০ গ্রাম মাশরুমে আমিষ ২৫-৩৫ গ্রাম, ভিটামিন ও মিনারেল ৫৭-৬০ গ্রাম, শর্করা ৫-৬ গ্রাম, চর্বি ৪-৬ গ্রাম।

এব্যাপারে মাশরুম ক্রেতা মনি চাকমা জানান, আমাদের খাবার তালিকায় মাশরুম পরিবারের সবার পছন্দ। পুষ্টিগুন সমৃদ্ধ এ মাশরুম যখনই পাই, তখনই কিনে থাকি ।

দীঘিনালা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার  ডা. রাশেদুল আলম জানান, গর্ভবতী মা ও শিশুরা নিয়মিত মাশরুম খেলে দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়। মাশরুমে চর্বি ও শর্করা কম থাকায় এবং আঁশ বেশি থাকায় এটি ডায়াবেটিস রোগীদের আদর্শ খাবার।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *