দীঘিনালায় কৃত্তিকা ত্রিপুরা ধর্ষণ ও হত্যাকাণ্ডে অাটক ৩


দীঘিনালা প্রতিনিধি:
দীঘিনালায় পঞ্চম শ্রেণীর ছাত্রী কৃত্তিকা ত্রিপুরাকে ধর্ষণ এবং হত্যার ঘটনায় জড়িত থাকার সন্ধেহে  তিন জনকে অাটক করেছে দীঘিনালা থানার পুলিশ। সোমবার (৩০ জুলাই) উপজেলার বিভিন্ন  এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের অাটক করা হয়।
অাটককৃতরা হলেন, উপজেলার বড় মেরুং এলাকার মৃত মোবারক হোসেনের ছেলে শাহ অালম(৩৩), একই এলাকার জালাল উদ্দীনের ছেলে নজরুল ইসলাম ভান্ডারী(৩২) এবং বোয়ালখালী এলাকার ফজর অালীর ছেলে মাহিন্দ্র গাড়ি চালক মো. মনির হোসেন (৩৮)কে অাটক করা হয়।
এ ঘটনায় নিহত কৃত্তিকা ত্রিপুরার মা অনুমতি ত্রিপুরা বাদী হয়ে রবিবার অজ্ঞাত ৩/৪ জনকে অাসামি করে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন অাইনে মামলা দায়ের করেন।
এ ব্যাপারে দীঘিনালা থানার অফিসার ইনচার্জ অাবদুস সামাদ ঘটনায় জড়িত সন্ধেহে তিনজন অাটকের সত্যতা স্বীকার করেছেন।
উল্লেখ্য, গত শনিবার দুপুরে বিদ্যালয়ের টিপিন পিরিয়ডে দুপুর দুইটা বাজে বাড়ি অাসে কৃত্তিকা ত্রিপুরা। পরে টিফিন পিরিয়ডের সে অার বিদ্যালয়ে ফিরে যায়নি। এদিকে কৃত্তিকা ত্রিপুরার মা অনুমতি ত্রিপুরা জুম থেকে সন্ধ্যায় বাড়ি ফিরে দেখে কৃত্তিকা ত্রিপুরা বাড়ি নাই। পরে তাকে অনেক খোঁজাখুঁজি করে  না পেয়ে স্থানীয় প্রতিবেশীদের জানায়।
খোঁজাখুঁজির এক পর্যায়ে রাত সাড়ে দশটায় পুলিশ ও এলাকাবাসী বাড়ির পার্শবর্তী বাগান থেকে  কৃত্তিকা  ত্রিপুরার শরীরে হাতে পায়ে এবং গলায় অাঘাতসহ  লাশ উদ্ধার করে|

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *