দিল্লীতে খোঁজ মিলল ৮ বছর আগে হারিয়ে যাওয়া খাগড়াছড়ির ছেলে নুরুল ইসলামের


Khagrachari  Child Re

নিজস্ব প্রতিবেদক:

সাত বছর বয়সে হারিয়ে যাওয়া খাগড়াছড়ির শিশু নুরুল ইসলামের সন্ধান মিলেছে। সে এখন ভারতের দিল্লীতে অবস্থিত একটি এনজি ‘বাচ্পান বাঁচাও আন্দোলন’ আশ্রয় কেন্দ্রে অবস্থান করছে। প্রায় আট বছর আগে হারিয়ে যায় নুরুল ইসলাম। অনেক খোঁজাখুজি করার পরও তার সন্ধান মেলেনি। এক সময় ফিরে পাওয়ার আশা ছেড়ে দেয় তার পরিবার। সন্ধান পাওয়ার পর স্থানীয় পুলিশ প্রশাসন ইতিমধ্যে নুরুল ইসলামকে ফিরিয়ে আনার উদ্যোগ নিয়েছে। ইতিমধ্যে নুরুল ইসলামের সাথে টেলিফোনে কথা বলেছেন মা ফাতেমা বেগম। ফাতেমা বেগম এখন তার সন্তান ফিরে পাওয়ার আশার প্রহর গুনছেন।

খাগড়াছড়ি শহরের শালবন এলাকার বাসিন্দা সরবত আলীর তিন সন্তান। তিনি রিক্সা চালান চট্টগ্রাম শহরে। অভাবী সংসার চালাতে তিন ছেলেকে চাকুরী দেন বিভিন্ন দোকানে। মেজো ছেলে নুরুল ইসলাম খাগড়াছড়ি নতুন পুলিশ লাইনের গেটের সামনে চায়ের দোকানে দেন।  তখন তার বয়স ছিল মাত্র সাত বছর। এক সময় নুরুল ইসলাম হারিয়ে যায়।

নুরুল ইসলামের মা ফাতেমা বেগম জানান, ছেলেকে ফিরে পেতে অনেক খোঁজাখুজি এবং টাকাও খরচ করেও ব্যর্থ হয়ে ফিরে পাওয়ার আশা ছেড়ে দেন। ধারনা ছিল ছেলে মারা গেছে। প্রায় আট বছর পর খাগড়াছড়ি পুলিশ সুপার মো: মজিদ আলীর সহযোগিতায় বৃহস্পতিবার দুপুরে ছেলের সাথে মোবাইলে কথা হয়েছে মা ফাতমা বেগমের।

ফাতেমা বেগম জানান, ছেলে তাকে চিনতে পারলেও  মাতৃভাষা বাংলা অনেকটা ভুলে গেছে। সে এখন হিন্দি ও বাংলা মিশ্রনে কথা বলছে। ফাতেমা  তার ছেলে কবে বুকে দ্রুত ফিরে আসবে এ প্রহর গুনছে।

খাগড়াছড়ি পুলিশ সুপার মো: মজিদ আলী জানান, কয়েক দিন আগে ভারতের দিল্লীতে অবস্থিত এনজিও ‘বাচ্পান বাঁচাও আন্দোলন’র এক কর্মকর্তার কাছ থেকে তথ্য পেয়ে হারিয়ে যাওয়া নুরুল ইসলামের পরিবারকে খুঁজে বের করেন। বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ার পর দিল্লীস্থ বাংলাদেশের হাই কমিশনে প্রয়োজনী কাগজপত্র পাঠিয়ে দেন। দ্রুত নুরুল ইসলামকে তার পরিবারের কাছে ফিরিয়ে দিতে পারবেন বলে তিনি জানান।

দিল্লীস্থ ‘বাচ্পান বাঁচাও আন্দোলন’র যোগাযোগ কর্মকর্তা পরমা আচার্যী জানান, চলতি বছরের জুলাইয়ের শেষ দিকে দিল্লীতে বেশ কিছু শিশুর সাথে নুরুল ইসলামকে উদ্ধার করেন। পরে নুরুল ইসলামের কাছ থেকে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে দিল্লীস্থ বাংলাদেশের দূতাবাসে যোগাযোগ করা হয়।

ফোনে নুরুল ইসলাম জানান, এক যুবকের প্রলোভনে পড়ে তার সাথে চলে  যায় সে। এরপর কি ঘটেছিল তা আর স্বরণ নেই তার। সে এখন দ্রুত মা বারার কাছে ফিরে আসতে চায়।

এদিকে নুরুল ইসলাম শীঘ্রই তার পরিবারের কাছে ফিরে আসবে এ প্রত্যাশা সংশ্লিষ্ট সকলের।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *