টেকনাফে এক মায়ের তিন সন্তান প্রসব


Teknaf-Pi

নিজস্ব প্রতিনিধি :
টেকনাফের হ্নীলা সূর্যের হাসি ক্লিনিকে এক মায়ের তিন সন্তান প্রসব হওয়ার ঘটনা ঘটেছে। ৩টি সন্তানই ছেলে। প্রসূতী তৈয়বা বেগম হ্নীলা ইউনিয়নের আলীআকবরপাড়া গ্রামের বাসিন্দা বলে জানা গেছে।

সূর্যের হাসি ক্লিনিকের ম্যানেজার অজয় কুমার চৌধুরী (০১৭১৩-৬২৪৪৫১) জানান প্রসূতী তৈয়বা বেগম নিয়মিত গর্ভকালীন সেবা নিতে আসতেন। সেবা গ্রহণকালীন কর্মরত প্যারামেডিক মরিয়ম আকতার তৈয়বা বেগমকে ৩য় চেক-আপ সম্পন্ন করার সময় মাতৃগর্ভে সন্তানের ব্যতিক্রম কিছু সন্দেহ করে ক্লিনিকে এসে আল্ট্রাসনোগ্রাম করার পরামর্শ প্রদান করেন।

কিন্তু তার আগেই গভীর রাত ২টায় তীব্র প্রসব ব্যাথায় তৈয়বা বেগম নিজ বাড়ীতে স্বামী মোহাম্মদ নুরের পরামর্শে পার্শ্ববর্তী ধাত্রীর সহযোগিতায় প্রথম একটি পুত্র সন্তান প্রসব করান। পরবর্তী সময়ে তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে ২.৩০ টায় তাদের আত্মীয় দিল মোহাম্মদ মোবাইল ফোনে ক্লিনিক ম্যানেজারকে অবহিত করলে দ্রুত ক্লিনিকে তৈয়বা বেগমকে নিয়ে আসার অনুরোধ করা হয় ।

রাত ৩টায় ক্লিনিকে আসার পর ডিউটিরত প্যারামেডিক সঞ্চিতা চাকমা তৈয়বা বেগমকে সকল পরীক্ষা সম্পন্ন করে নিশ্চিত হন যে, তার গর্ভে আরো দুটি সন্তান রয়েছে । রাত ৪টায় প্যারামেডিক সঞ্চিতা চাকমা তার সহযোগী জয়শ্রী দাশকে সাথে নিয়ে পরপর আরো দু’টি পুত্র সন্তান প্রসব করান।

তৈয়বা বেগম পর্যায়ক্রমে তিনটি পুত্র সন্তান প্রসব করেন। নির্ধারিত প্রসব সময়ের আগে অর্থাৎ ৭মাস গর্ভকালীন সময়ে প্রসব হওয়াতে তিনটি নবজাতকের ওজন ছিল ১.৪ কেজি, ১.৩ কেজি ও ১.২ কেজি । অক্সিজেন প্রদানসহ সর্বোচ্চ সেবা প্রদানের পরও তিন নবজাতকে বাঁচিয়ে রাখা সম্ভবপর হয়নি।

তৈয়বা বেগম স্বামী-মোহাম্মদ নুর হ্নীলা ইউনিয়নের আলীআকবরপাড়া গ্রামে মাষ্টার কলিমউল্লাহর বাড়ীর পাশে স্থায়ী ভাবে বসবাস করেন। এই দম্পতির বর্তমানে এক ছেলে ও এক মেয়ে রয়েছেন এবং তৈয়বা বেগম শারিরীক ভাবে সম্পূর্ন সুস্থ আছেন বলে জানা গেছে।

image_pdfimage_print

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *