ঝালকাঠিতে হিন্দু ধর্মাবলম্বী একই পরিবারের ৪ জনের ইসলাম ধর্মগ্রহণ


স্ত্রীকে গুম করার অভিযোগ শশুরবাড়ীর লোকদের বিরুদ্ধে

24.

ডেস্ক নিউজ:

সনাতন (হিন্দু) ধর্ম ত্যাগ করে পরিবার সহ নিয়ে ইসলাম ধর্মগ্রহন করার পর শ্বশুর বাড়ীর লোকজন ওরফে মিনতী রানী মন্ডল ও ওরফে অনিক কে তুল নিয়ে গুম করায় ঝালকাঠির গাবখান-ধানসিড়ি ইউনিয়নের পশ্চিম বিন্নাপাড়া গ্রামের মোঃ ওমর ফারুক ওরফে অমল মন্ডল দিশেহারা হয়ে পড়েছে।

প্রায় একমাস পূর্বে প্রানপ্রিয় স্ত্রী মিনারা বেগম ও ছোট্টছেলে মোঃ হোসাইন কে ফিরে পাওয়ার জন্য পুলিশ-আদালতের দরজায় আহাজারি করার পর নওমুসলিম মোঃ ওমর ফারুক এবার ঝালকাঠি জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের সাথে সাক্ষত করে লিখিত আবেদন জানিয়েছে। বর্তমানে স্ত্রী ও পুত্রকে গুমকারী চক্রের হাত থেকে উদ্ধারের জন্য আইন-আদালত ও প্রশাসনের দ্বারস্থ হওয়া তাকেও বিভিন্ন ভাবে ভয়ভীতি ও হুমকি-ধূমকি দেয়ার সে ও তার অপর পুত্র মোঃ হাসান ওরফে অসিম কে নিয়ে এলাকা ছেড়ে এক প্রকার আত্মগোপন করে দিনকাটাচ্ছে।

২২ ফেব্রয়ারী জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপারের কাছে নওমুসলিম মোঃ ওমর ফারুক লিখিত আবেদনে উল্লেখ করেন, সে তার স্ত্রী ও দুই সন্তানকে নিয়ে ১২ জানুয়ারী প্রথম শ্রেনীর ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতের বিচারক আরিফুল ইসলাম এর কাছে স্বশরীরে উপস্থিত হয়ে হলফনামা দিয়ে সনাতন (হিন্দু) ধর্ম ত্যাগ করে ইসলাম ধর্ম গ্রহনের ঘোষনা দেন। পরবর্তীতে বিশিষ্ট ইসলামী দার্শনিক মরহুম হযরত মাও: কায়েদ ছাহেব হুজুর রা: এর নেছারাবাদ কম্পেলেক্সে উপস্থিত হয়ে মাওলানা খলিলুর রহমান নেছারাবাদীর কাছে কলেমা পাঠ করে ইসলাম ধর্ম গ্রহনের কার্য সম্পন্ন করেন ৫ওয়াক্ত নামাজ সহ ধর্মীয় রীতি-নীতি অনুযায়ী জীবন-যাপন শুরু করি। কিন্তু এক পর্যায়ে তার শশুর বাড়ীর লোকজন তাদের এ সিদ্ধান্ত মেনে নিতে না পেরে গোপনে তার স্ত্রীকে ফুসলিয়ে নিয়ে যেতে মরিয়া হয়ে ওঠে।

এক পর্যায়ে ২৬ জানুয়ারী বেলা ১১ টার দিকে নিজবাড়ী থেকে তার স্ত্রী মিনারা বেগম কে শশুর বাড়ী এলাকার রামকৃষ্ণ, শংকর, অসিম, বিপুল  মজুমদার, দীলিপ ঘরামী, পুতুল মিস্ত্রি, জয়দেব হাং, শ্যামল হাং, বিধান মজুমদার সহ ১০/১২জন এসে কীর্তিপাশা শ্বশুরালয় কীর্তিপাশার উদ্দেশ্যে নিয়ে বর্তমনে গুম করে রেখেছে। বিষয়টি থানায় লিখিত ভাবে জানালে এসআই মিনহাজ সঙ্গীয় ফোর্স ও স্বামী ওমর ফারুককে নিয়ে কীর্তিপাশা শ্বশুরালয়ে তার স্ত্রীকে খুজতে গেলে তাকে পুলিশের সামনে চরম র্দূব্যবহার ও লাঞ্চিত করে তারিয়ে দেয় এবং তাদের মেয়ে কোথায় আছে তারা জানেনা বলে এসআই মিনহাজ কে কিছু টাকা পয়সা দিয়ে বিদায় করে।

এব্যাপাওে নিরুপায় হয়ে সে প্রসঙ্গতম র গত ১২ জানুয়ারী এদের পরিবারের সবাই ইসলাম গ্রহনের সংবাদে সাংবাদিকরা ছুটে যায় ও তাদের প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে নওমুসলিম মোঃ ওমর ফারুক জানায়, আমি বেশ কয়েক জনকে দীর্ঘ দিন ইসলাম ধর্মীয় অনুসাশন পালন করতে দেখেছি। এছাড়াও বিভিন্ন মাহফিল সহ ইসলামী জলসার ওয়াজ শুনে আকৃষ্ট হয়ে পরিবারের সাথে আলাপ করে ইসলাম ধর্ম গ্রহনের সিদ্ধান্ত নিয়েছি।

আর তার স্ত্রী নওমুসলিম মিনারা বেগম জানায়, ইসলাম ধর্মের নিয়ম-কানুন আমার ভাল লাগায় আমি স্বেচ্ছায়-সজ্ঞানে ইসলাম গ্রহন করেছি কারো চাপে বা কোন ভয়ে নয়। আমার স্বামী-স্ত্রী আলোচনা করে নিজেরাই ইসলাম সত্য ও শান্তির ধর্ম হওয়ায় এ ধর্ম গ্রহন করেছি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *