জাতীয় পার্টি ভক্ত আব্দুল মান্নানের দুরাবস্থা


আলীকদম প্রতিনিধি:

জাতীয় পার্টির অনুসারি আলীকদমের আবদুল মান্নানের দুরাবস্থা দেখার কেউ নেই। তার থাকা নিজস্ব কোন জায়গা নেই।

তাই অন্যের জমিতে ঘর করে স্বপরিবারে বসবাস করছেন চারদশকের বেশী সময় ধরে।

ইউনিয়ন পরিষদ থেকে সরকারি পরিসেবা হিসেবে ভিজিডি ও ভিজিএফ এর কোন সহায়তা পাচ্ছেন না তিনি। ‘জাতীয় পার্টির সমর্থক’ বলেই ইউনিয়ন পরিষদ থেকে কোন ধরণের সহায়তা তাকে দেওয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ করেন তিনি।

আবদুল মান্নান বলেন, জাতীয় পার্টি সরকারের অংশ। কিন্তু এ উপজেলায় জাতীয় পার্টির কর্মী-সমর্থকদের কোন ধরণের মূল্যায়ন নেই। তাই আমরা সরকারি সেবা থেকেও বঞ্চিত।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, অন্য দশজনের মতো রাজনৈতিক খোলস পাল্টাননি আব্দুল মান্নান। অনেক আগে থেকেই তিনি জাতীয় পার্টির অনুসারি। দলটি গঠনের পর থেকেই তিনি জাতীয় পার্টির একজন অন্ধ অনুসারি।

আলীকদম উপজেলা সদর ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের নুরুজ্জামান পাড়ায় স্ত্রীকে নিয়ে বসবাস করছেন তিনি। দুই ছেলের মধ্যে ছোট ছেলে ইসমাইল সড়ক দুর্ঘটনায় মারা যায় গত কয়েকবছর আগে। বড় ছেলে রমজান আলী রাজমিস্ত্রি কাজ করে দৈনিক ৩/৪শ’ টাকা রোজগার করে সংসার চালায়।

সাম্প্রতিক সময়ে পুষ্টি অভাবজনিত কারণে নানান ব্যাধি বাসা বেধেছে আব্দুল মান্নানের শরীরে। নিজের আয়-উপার্জন বলতে কিছুই নেই। স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ থেকে শুরু করে নেতাদের দ্বারে দ্বারে ঘুরেছেন কিছুটা হলেও সরকারি সাহায্য পেতে।

কিন্তু আব্দুল মান্নানের অভিযোগ, ‘তুমি জাতীয় পার্টি করো’ এই অজুহাতে তাকে এ পর্যন্ত ভিজিডি কিংবা ভিজিএফ এর কোন তালিকায় অন্তভর্‚ক্ত করা হয়নি। বিভিন্ন দুর্যোগকালীন বরাদ্দ থেকেও তাকে বঞ্চিত করা হয়। ফলে রোগাক্রান্ত আব্দুল মান্নান এখন অর্ধাহারে-অনাহারে বিনা চিকিৎসায় ধুঁকে ধুঁকে জীবন পার করছেন।

আত্মসম্মানের কারণে মান্নান ভিক্ষা করতে পারে না। তাই অতিপরিচিতদের কাছে তার সমস্যার কথা বলেন। তিনি অন্যের থেকে চেয়ে ৫০/১০০ টাকা নিয়ে নিজের চিকিৎসা ব্যয় নির্বাহ করেন।

মান্নানের আশা, হয়ত জাতীয় পার্টি কিংবা সরকারের সংশ্লিষ্ট উধ্বর্তন কর্তৃপক্ষ একদিন তার খোঁজ নিবেন। এমনটিই প্রত্যাশা তার।

১৯৭৩ সালে কিশোর বয়সে আবদুল মান্নান চট্টগ্রামের সাতকানিয়া উপজেলা থেকে তৎকালীন দুর্গম আলীকদমে এসে বসবাস শুরু করেন। এ পর্যন্ত নিজে একখন্ড ভ‚মির মালিকও হতে পারেননি তিনি। অন্যের জমিতে ঘর নির্মাণ করে বসবাস করছেন।

একজন ভূমিহীন, সমাজ কর্তৃক সুবিধাবঞ্চিত নাগরিক হিসেবে আবদুল মান্নান নিজেকে দাবী করলেও সংশ্লিষ্ট ইউপি চেয়ারম্যান তা মানতে রাজি নন।

সদর ইউপি চেয়ারম্যান জামাল উদ্দিন বলেন, মান্নান সত্যেই একজন দিনদুঃখী। ইউনিয়ন পরিষদ থেকে তিনি সরকারি সুযোগ সুবিধাগুলো পাচ্ছেন কিনা তা খোঁজ নেওয়া হবে।

নিউজটি আলীকদম বিভাগে প্রকাশ করা হয়েছে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *