জাতীয়করণের দাবিতে পানছড়ি বাজার উচ্চ বিদ্যালয় শিক্ষার্থী ও এলাকাবাসীর মানববন্ধন


School Pic copy

স্টাফ রিপোর্টার:

খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলার প্রত্যন্ত পানছড়ি উপজেলা সদরের সবচেয়ে প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত পানছড়ি বাজার উচ্চ বিদ্যালয়। উপজেলার একমাত্র এই বিদ্যালয়েই রয়েছে সকল সম্প্রদায়ের শিক্ষার্থীদের মিলন মেলা। সরকারের সব ধরণের নীতিমালার আওতায় থাকা সত্বেও স্বনামধন্য এই বিদ্যালয়টি জাতীয়করণের প্রাথমিক তালিকায় আওতাভুক্ত হতে না পারায় হতাশা বিরাজ করছে বিদ্যালয়টির এক হাজার তিনশত শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও সুশীল সমাজের মাঝে।

১৯৮০ সালে বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠার পর থেকেই দিয়ে আসছে অভাবনীয় সাফল্য। ৮ম শ্রেণির বৃত্তি ও এসএসসিতে ভালো ফলাফলে শিক্ষকদের অপরিসীম ভূমিকার কথা সব সময় জনমনে। কিন্তু এত সাফল্যভরা এই বিদ্যালয়টি জাতীয়করণ নিয়ে শুরু হয়েছে নানা নাটকীয়তা। বিদ্যালয়টিকে জাতীয় করণের দাবিতে শ্রাবণের বৈরী আবহাওয়া উপেক্ষা করেও বুধবার সকাল ১১টায় শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও সুশীল সমাজ মিলিত হয় বিশাল মানববন্ধনে।

এ সময় তাদের হাতে শোভা পায় নানান রঙের ফেস্টুন। পানছড়ি বাজার উচ্চ বিদ্যালয় সরকারি করণ চাই, বিধি বহির্ভূত সরকারিকরণ চলবে না, তিন বছরের ফলাফলে আমরা এগিয়ে, অবকাঠামোয় উপজেলায় সেরা ইত্যাদি লেখা ফেস্টুন।

কর্মসূচি চলাকালে বক্তব্য রাখেন, উপজেলা আওয়ামী সভাপতি মো. বাহার মিয়া, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মো. মনিরুজ্জামান, ইউপি চেয়ারম্যান নাজির হোসেন, প্রধান শিক্ষক জ্ঞান প্রভাত তালুকদার ও সহকারী প্রধান শিক্ষক অলি আহমেদ, ইউপি সদস্য ডা. মতিউর রহমান ও অভিভাবক নুর মোহামম্মদ।

বক্তারা বলেন, পার্বত্য শান্তিচুক্তি বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর দুরদর্শিতার ফসল। পাহাড়ী বাঙালী আজ সকলে আমরা শান্তিতে বসবাস করছি। এ বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠার ১৯৮০ সাল থেকে শান্তি স্থাপনে নানা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকায় অবতীর্ণ ছিল। তাই আমরা এই বিদ্যালয়টি জাতীয়করণেও প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করছি। পানছড়ি-লোগাং সড়কে দুই পাশে দাঁড়িয়ে এলাকাবাসীসহ সহস্রাধিক শিক্ষার্থীরা বিদ্যালয়টি জাতীয়করণের দাবি জানান।

মানববন্ধনে অংশ নেয়া ৮ম শ্রেণির শিক্ষার্থী সুদীপ চাকমা, ধরেন্দ্র ত্রিপুরা, অপি পাল, যুগান্তর ত্রিপুরা, ৭ম শ্রেণির মহিনউদ্দিন, নবম শ্রেণির বৃষ্টি, কলি ত্রিপুরা, মেরাইচিং মারমা, আফরোজা, সুরাইয়া ও ১০ শ্রেণির আসমারা বলেন, আমাদের আত্মবিশ্বাস সুষ্ঠ প্রক্রিয়ার মধ্যে দিয়ে বিদ্যালয়টি জাতীয়করণ হবে বলে তাদের দৃঢ় বিশ্বাস।

বিদ্যালয়টি জাতীয়করণের জন্য শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের যেসব নিয়মনীতি রয়েছে তা পূরণ করে স্থানীয় প্রশাসন, জেলা প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিদের সমন্বয়ে জাতীয়করণের আবেদন করা হয়। ইতিমধ্যে প্রধানমন্ত্রীসহ সংশ্লিষ্ট দপ্তরে আবেদনের প্রেক্ষিতে জাতীয়করণের প্রক্রিয়ার কাজগুলো শুরু হয়েছে। এ কাজ দ্রুত বাস্তবায়নের দাবিতে এলাকাবাসী ও পানছড়ি বাজার উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা এ মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করে।

image_pdfimage_print

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *