parbattanews bangladesh

জব্বারের বলি খেলায় চ্যাম্পিয়ন চকরিয়ার জীবন বলি

চকরিয়া প্রতিনিধি:

চট্রগ্রাম মহানগরীর লালদীঘি মাঠে অনুষ্ঠিত ঐতিহাসিক জব্বারে ১০৯তম বলী খেলায় কক্সবাজারের চকরিয়ার কৃতি সন্তান তারিকুল ইসলাম জীবন বলী চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করেছেন। নতুন করে জব্বারের এ বলি খেলায় চ্যাম্পিয়ন হয়ে ইতিহাসের পাতায় নাম লেখিয়েছেন ২৫বছর বয়সের প্রতিভাবান যুবক জীবন। ফাইনাল খেলায় কুমিল্লার শাহজালাল বলীকে হারিয়ে তার দীর্ঘ ৯ বছরের সাধনায় নিজের লালিত স্বপ্ন পুরণ করে নতুন চ্যাম্পিয়ন হয়ে গোটা দেশবাসীকে চমক দেখালেন জীবন বলী। বলি খেলার কথা শুনলে তিনি গ্রামে-গঞ্জে ছুটে যেতো। সামান্য চা-দোকান থেকে আজকের জীবন বলি। বলীখেলার রেফারি চট্রগ্রামের কাউন্সিলর মো. আবদুল মালেক বিজয়ী জীবন বলীকে চ্যাম্পিয়ন ঘোষাণা করেন।

বুধবার (২৫ এপ্রিল) বিকেল ৫টা ৩১ মিনিটে লালদীঘি মাঠে শুরু হওয়া ফাইনাল খেলায় তুমুল প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ ১৫ মিনিট পর্যন্ত এ খেলা চলে। খেলায় চকরিয়ার জীবন বলি কুমিল্লার শাহজালাল বলিকে মাটি থেকে জীবন বলি উপরে কাঁধে তুলে ফেলে। পরে শাহজালাল বলিকে মাটিতে শুয়ে দিলে চকরিয়ার জীবন বলীকে চ্যাম্পিয়ন ঘোষণা করেন খেলার দায়িত্বরত  রেফারি মো. আবদুল মালেক। ফাইলাল খেলার পূর্বে সেমিফাইনালে মহেশখালীর মোহাম্মদ হোসেনকে হারিয়ে কুমিল্লার শাহজালাল বলী, উখিয়ার জয়নাল বলীকে হারিয়ে চকরিয়ার তারেকুল ইসলাম জীবন বলী ফাইনালে উন্নীত হন। বিকেল ৪টায় বেলুন উড়িয়ে মেলার উদ্বোধন করেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি চট্টগ্রাম সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন। মেলার উদ্বোধক ছিলেন, চট্টগ্রাম মেট্টোপলিটন পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কমিশনার মাসুদুল হাসান।

এতে বক্তব্য রাখেন, স্পন্সর প্রতিষ্ঠান বাংলালিংক কর্মকর্তা সৌমেন মিত্র, মরহুম আব্দুল জব্বারের দৌহিত্র শওকত আনোয়ার বাদল, ওয়ার্ড কমিশনার জহুরুল হক হাজারী। ওই বলি খেলার প্রতিযোগিতায় মালেক কমিশনারের নেতৃত্বে ৪জন রেফারি দায়িত্ব পালন করেন।

উল্লেখ্য যে, কক্সবাজারের চকরিয়ায় দীর্ঘদিন পরে ঐতিহাসিক জব্বারের ১০৯তম বলি খেলায় ফাইনালে চ্যাম্পিয়ন হয়ে নতুন করে ইতিহাস সৃষ্টি করেছেন ২৫বছরের টগবগে যুবক তারিকুল ইসলাম জীবন। তিনি চকরিয়া পৌরসভা ৬নম্বর ওয়ার্ডের কোর্ট সেন্টারস্থ মরহুম আবু মুছা ড্রাইভারের পুত্র। লালদীঘি মাঠে অনুষ্ঠিতব্য বলি খেলায় জীবন চ্যাম্পিয়ন হওয়ার খুশিতে পুরো উপজেলা জুড়ে চলছে বাঁধভাঙা উচ্ছাস আর আনন্দ। এরই পাশাপাশি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুক ওয়ালে তাকে ঘিরে ঝড় উঠছে অভিনন্দন বার্তায়।

তিনি বিজয়ের মুকুট ছিনিয়ে এনে চকরিয়াবাসীকে গৌরবান্বিত করায়  অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা জানালেন, চকরিয়া-পেকুয়া আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য হাজ্বী মো. ইলিয়াছ এমপি, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব জাফর আলম এম এ,  চকরিয়া উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা জানান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নূরুদ্দীন মুহাম্মদ শিবলী নোমান, চকরিয়া পৌরসভার মেয়র মো. আলমগীর চৌধুরী, চকরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) মো. বখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী, কক্সবাজার জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান ও চকরিয়া পৌরসভা আওয়ামী লীগের সভাপতি জাহেদুল ইসলাম লিটু, জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান(৩) ও জেলা মহিলা জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক আসমাউল হুসনা,উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব কাউচার উদ্দিন কচিরসহ সর্বস্তরের শুভানুধ্যায়ীরা।

তারেকুল ইসলাম জীবন বলী জব্বারের বলি খেলা শেষে রাত সাড়ে ১০টায় চকরিয়া পৌরশহরে পৌঁছলে তাকে ডাক-ঢোল বাজিয়ে বরণ করেন এলাকার সর্বস্তরের জনসাধারণ।