ছাত্রদল নেতা রবিউল আওয়াল হত্যার প্রতিবাদে খাগড়াছড়ি জেলা বিএনপির তিন দিনের কর্মসূচি ঘোষণা


নিজস্ব প্রতিবেদক, খাগড়াছড়ি:

জেলার গুইমারা উপজেলার সদর ইউনিয়ন ছাত্রদলের সহ-সভাপতি রবিউল আওয়ালের হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদে ও হত্যাকারীদের গ্রেফতারের দাবিতে খাগড়াছড়ি জেলা বিএনপি কালো ব্যাজ ধারন, কালো পতাকা উত্তোলন ও প্রতিবাদ সমাবেশসহ তিন দিনের কর্মসূচি ঘোষণা করেছে। একই সাথে আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যে হত্যাকারীদের গ্রেফতারের ব্যর্থ হলে কঠোর কর্মসূচি ঘোষণার হুমকি দেওয়া হয়েছে।

বুধবার খাগড়াছড়ি জেলা বিএনপির সভাপতি ও সাবেক সংসদ সদস্য ওয়াদুদ ভূইয়া সাংবাদিক সম্মেলনে এ কর্মসূচি ঘোষণা করেন। পাশাপাশি ছাত্রদল নেতা রবিউল আওয়াল হত্যাকাণ্ডকে পুজি করে কোন কু-চক্রি মহল যাতে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট করতে না পারে তার দলীয় নেতাকর্মীদের সতর্ক থাকার পরামর্শ দেন।

সাংবাদিক সম্মেলনে গুইমারায় যাত্রীবাহি বাস থেকে অপহৃত গৃহবধূ ফাতেমা বেগমকে উদ্ধার ও পানছড়িতে পাহাড়ি নারী বালতি ত্রিপুরা হত্যাকাণ্ডে নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে দোষীদের আইনের আওতায় আনার দাবি জানান।

তিনি সিএইচটি জুম্মল্যন্ড নামক একটি ফেসবুক পেইজে সোমবার রাতে দেওয়া উস্কানীমূলক স্ট্যাটাসের সাথে ছাত্রদল নেতা রবিউল আওয়ালের হত্যাকাণ্ডের কোন যোগসূত্র আছে কিনা তদন্ত করে দেখতে সরকারের গোয়েন্দা সংস্থাগুলোর দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।

সাংবাদিক সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন খাগড়াছড়ি জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি প্রবীন চন্দ্র চাকমা, কংচাইরী মারমা, যুগ্ম সাধারন সম্পাদক অনিমেষ চাকমা রিংকু, আইয়ুব খান, সাংগঠনিক সম্পাদক এমএন আবছার, জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল-আলম সবুজ, জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক ইব্রাহিম খলিল, জেলা মহিলা দলের সাধারণ সম্পাদক শাহনাজ বেগম রোজি ও সাধারণ সম্পাদিকা কোহেলি দেওয়ানসহ বিএনপি ও সহযোগি সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

ওয়াদুদ ভ্ইূয়া পার্বত্য চট্টগ্রামসহ সারা দেশে খুন, গুম, অপহরণ ও চাদাবাজির সরকার ও তার প্রশাসন যন্ত্রকে দায়ী করে বলেন, এ অবৈধ সরকার জনগণের নিরাপত্তা দিতে সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়েছে।

তিনি খাগড়াছড়িতে খুন ও গুমের চিত্র তুলে ধরে বলেন, খাগড়াছড়িতে যাত্রীবেশি সন্ত্রাসীদের হাতে ভাড়া চালিত মোটরসাইকেল চালক খুন, অপহরণ, গুম ও হামলা করে মোটরসাইকেল ছিণতাই এখন নিত্যনৈতিক ঘটনা হয়ে দাড়িয়েছে। গত প্রায় সাড়ে ৬ বছরে খাগড়াছড়িতে অন্তত ৯জন মোটরসাইকেল চালক যাত্রীবেশী হাতে খুন হয়েছে। গুম হয়েছেন ৮জন। এদের মধ্যে একজন ছাড়া সকলেই খাগড়াছড়ির বাসিন্দা।

মুক্তিপন দিয়ে ছাড়া পেয়েছেন প্রায় অর্ধশতাধিক মোটরসাইকেল চালক। যার সর্বশেষ শিকার খাগড়াছড়ি জেলার গুইমারা সদর ইউনিয়নের ছাত্রদলের সহ-সভাপতি জনাব রবিউল আওয়াল। তিনি ১১ সেপ্টেম্বর (সোমবার) নিখোজ হয় এবং মঙ্গলবার সকালে সিন্দুকছড়ির তৈকর্মা পাড়া এলাকায় ধান ক্ষেতে দু’হাত পিছমোড়া ও মুখ গামছা দিয়ে বাধা অবস্থায় লাশ উদ্বার হয়। আমি রবিউল আওয়াল হত্যাকাণ্ডের সুষ্ঠ তদন্ত  ও সন্ত্রাসীদের বিচার দাবি করছি।

অতীতে খুনের  শিকার মোটরসাইকেল চালকদের পরিবার যেমন বিাচর পায়নি, তেমনি নিখোঁজ ব্যক্তিরা হয়তো ফিরে আসবে সে প্রতিক্ষায় আছে তাদের পরিবার- স্বজনরা। একমাত্র উপার্জনক্ষ ব্যক্তি হারিয়ে যাওয়ায় তাদের পরিবার-পরিজন অভাব-অনটনে দিন পার করছে। এদিকে একের পর এক মোটরসাইকেল চালকদের খুন, অপহরণ ও মোটরসাইকেল ছিনতাইয়ের ভাড়ায় মোটর সাইকেল চালিয়ে জীবিকা নির্বাহকারী প্রায় তিন হাজার মোটরসাইকেল চালক আতঙ্কে দিন পার করছে।

বিচার না হওয়ায় পাহাড়ি-বাঙালি সম্প্রীতিতে আঘাত হানছে। এ নিয়ে বহু আন্দোলন হলেও কোন প্রতিকার পাচ্ছে না ক্ষতিগ্রস্তরা।

শুধু মোটরসইকেল চালক নয়, খাগড়াছড়ি জেলার সর্বত্র চাঁদাবাজি, অপহরণ, খুনের ঘটনা ঘটছে।

৮ সেপ্টেম্বর গুইমারার বাইল্যাছড়ি এলাকায় যাত্রীবাহি বাস থামিয়ে স্বামীর সামনে থেকে ফাতেমা বেগম নামে এক সন্তানের জননীকে অপহরণ করা হয়। সে এখনো উদ্ধার হয়নি।

১২ সেপ্টেম্বর রাতে পানছড়ি বাইন্দং নামক এলাকায় বালাতি ত্রিপুরা নামে এক নারীর গলা কাটা লাশ উদ্বার করেছে পুলিশ।

প্রসঙ্গত, গতকাল মঙ্গলবার দুপরে গুইমারার সিন্দুকছড়ির তৈকর্মা পাড়ার পাহাড়ের নীচে একটি ধান ক্ষেত থেকে থেকে দু’হাত পিছমোড়া ও মুখ গামছা দিয়ে বাধা অবস্থায়  গুইমারা উপজেলার সদর ইউনিয়ন ছাত্রদলের সহ-সভাপতি রবিউল আওয়ালের লাশ উদ্ধার হয়।

গুইমারা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা যোবাইরুল হক জানান, এক ঘটনায় আজ বুধবার সকালে নিহতের বড় ভাই আব্দুল রাজ্জাক অজ্ঞাত ব্যক্তিদের আসামী করে মামলা করেছে। আসামীদের চিহ্নিত করে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *