টেকনাফে মাদক চোরাকারবারী ১৩জনের সাজা


টেকনাফ প্রতিনিধি:

টেকনাফে বিজিবির মাদক বিরোধী অভিযানে বাবুল মেম্বারসহ ১৩জনকে ভ্রাম্যমান আদালতে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা প্রদান করা হয়েছে।

জানা যায়, মঙ্গলবার(৩জুলাই) বিকাল ৪টায় টেকনাফ ২বিজিবি ব্যাটালিয়নের মাদক বিরোধী অভিযানে আটক হ্নীলা ইউপি ৩নং ওয়ার্ড মেম্বার শামসুল আলম বাবুলসহ ১৩জন মাদক চোরাকারবারীদের উপজেলা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এবং সহকারী কমিশনার (ভূমি) প্রণয় চাকমা পরিচালিত ভ্রাম্যমান আদালতে হাজির করা হয়।

আদালতের বিচারক উপস্থিত আসামীদের মধ্যে হ্নীলা ফুলের ডেইলের মৃত আব্দুল গাফ্ফারের পুত্র ও হ্নীলা ইউপির ৩নং ওয়ার্ড মেম্বার শামসুল আলম বাবুল মেম্বার (৩৮) ও পূর্ব সিকদার পাড়ার শামসুল আলমের পুত্র সাইফুল ইসলামকে (২২) কে ২ বছর করে এবং অপরদিকে টেকনাফ পৌর এলাকার জালিয়াপাড়ার রুহুল আমিনের পুত্র সিরাজুল ইসলাম মুন্না (১৮), আবু ছিদ্দিকের পুত্র ছৈয়দ করিম (২৫), নাইট্যং পাড়ার আব্দুস সালামের পুত্র মোহাম্মদ আব্দুল হক (৩৯), সাবরাং মুন্ডার ডেইলের নুরুল আজিম (১৯), লাফারঘোনার মৃত আব্দুল গণির পুত্র মো রফিক (৩০), হারিয়াখালীর মৃত মাহমুদের পুত্র আব্দুল করিম (৩৫), আলী আহমদের পুত্র মোহাম্মদ হাসান (৩৮), মো. হোছনের পুত্র নুরুল ইসলাম (৪৬), সাবরাং মাঝের পাড়ার সোলতানের পুত্র মোহাম্মদ আব্দুল (২৬), শরীয়তপুর কৃষ্ণ নগরের সিরাজ শেখের পুত্র বাচ্ছু মিয়া (৩০), বালুখালী রোহিঙ্গা ক্যাম্পের নুর আহমদের পুত্র আব্দুর রশিদ (১৯) কে ৬মাস করে বিনাশ্রম কারাদণ্ড প্রদান করেন। সাজা প্রাপ্তদের কারাগারে প্রেরণের জন্য টেকনাফ মডেল থানায় সোর্পদ করা হয়েছে।

এদিকে গত বারের মাদক বিরোধী অভিযানে চিহ্নিত মাদক চোরাকারবারীরা আড়ালে গেলেও পৌর কাউন্সিলর একরামুল হক নিহত এবং পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে আবারও এলাকায় জড়ো হয়। র‌্যাব-পুলিশের মাদক বিরোধী অভিযান ধীরগতি হওয়ায় চক্রটি ফের বেপরোয়া হয়ে উঠার বিষয়টি আঁচ করতে পেরে সীমান্তে বিজিবি মাদক বিরোধী অভিযানে নামে। বিজিবির এই মাদক বিরোধী অভিযানের ফলে চিহ্নিত অপরাধীদের বেশীর ভাগই পুনরায় আড়ালে চলে গেছে। এখন গ্রামীণ রাস্তা-ঘাট, হাট-বাজার আবারও ফাঁকা হয়ে আসায় সাধারণ মানুষ স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলছে।

নিউজটি টেকনাফ বিভাগে প্রকাশ করা হয়েছে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *