চকরিয়ায় বন বিভাগের অভিযানে ২১ ঘনফুট গর্জন গাছ উদ্ধার


চকরিয়া প্রতিনিধি:

কক্সবাজার উত্তর বনবিভাগের চকরিয়ায় ফাঁসিয়াখালী রেঞ্জের ডুলাহাজারা বনবিটের অধীনস্থ সংরক্ষিত বনাঞ্চল থেকে নিধনকৃত দুটি সেগুন গাছের অংশ উদ্ধার করেছে বনবিভাগের  বনকর্মীরা।

গতকাল (১৩ অক্টোবর) দুপুরে থানা পুলিশের সহায়তায় ফাঁসিয়াখালী রেঞ্জ কর্মকর্তা আবদুল মতিন ও ডুলাহাজারা বনবিট কর্মকর্তা রাজিব ইব্রাহিমসহ বনকর্মীরা গোপন সংবাদের ভিত্তিতে চকরিয়া পৌরসভাস্থ মৌলভীরকুম বাজার এলাকায় অভিযান চালিয়ে স্থানীয় মৃত মোহাম্মদ কালুর ছেলে ফরিদুল আলমের বাড়ি থেকে ৭ টুকরো সেগুন গাছ উদ্ধার করেন।

এ ব্যাপারে ফাসিয়াখালী রেঞ্জ কর্মকর্তা আবদুল মতিন বলেন, বাগান থেকে গাছ দুটি কেটে লুটে নেয়ার পর থেকে আমরা চোরদের সনাক্ত ও লুণ্ঠিত গাছগুলো উদ্ধারে অভিযান শুরু করি।

অবশেষে গতকাল দুপুরে থানা পুলিশের সহায়তায় পৌরসভার মৌলভীরকুম এলাকার একটি বাড়ি থেকে কেটে নেয়া সেগুন গাছের সাতটি মাথা উদ্ধার করা হয়।

উদ্ধারকৃত এসব গাছের পরিমাণ প্রায় ১২ ঘনফুট। তিনি আরো বলেন, বনাঞ্চল থেকে গাছগুলো কেটে নেয়ার ঘটনায় চকরিয়া পৌরসভার ৭নম্বর ওয়ার্ডের বিনামারা গ্রামের বাসিন্দা ফজল করিম ও মোহাম্মদ করিম নামের দুই কাঠ চোরাকারবারীকে ইতোমধ্যে সনাক্ত করা হয়েছে। অভিযুক্তরা ভাড়াটে শ্রমিক ব্যবহার করে রাতের আঁধারে বনাঞ্চল থেকে গাছ দুটি কেটে নেয়। বনবিভাগের পক্ষ থেকে জড়িত চোরদের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট আইনে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

এদিকে ডুলাহাজারা বনবিট কর্মকর্তা রাজিব ইব্রাহিম পার্বত্যনিউজকে বলেন, গতকাল বিকালে বনবিটের অধীন মালুমঘাট রির্জাভপাড়া গ্রামের কালু হেডম্যানের বাড়ির পশ্চিম এলাকা থেকে কর্তনকৃত ২১ ঘনফুট গর্জন গাছ উদ্ধার করা হয়েছে। বনাঞ্চলের ভেতর ঝড়েপড়া ও শুকিয়ে যাওয়া কয়েকটি গাছ কেটে চোরের দল পাচারের চেষ্টা করছিলো। খবর পেয়ে এসব গাছ উদ্ধার করা হয়ছে বলে তিনি জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *