চকরিয়ায় গৃহবধুর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার


চকরিয়া প্রতিনিধি:

কক্সবাজারের চকরিয়ায় শশুরবাড়ি থেকে ঝুলন্ত অবস্থায় রেহেনা (২৪) নামের এক গৃহবধুর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। তবে এটি হত্যা, না আত্মহত্যা? তা নিয়ে এলাকায় মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২১ জুন) সকাল ১০টার দিকে উপজেলার ডুলাহাজারা ইউনিয়নের ৯ নম্বর ওয়ার্ডস্থ পূর্ব রংমহল এলাকা থেকে নিহত গৃহবধুর লাশ উদ্ধার করা হয়। নিহতের শশুরবাড়ির লোকজন গলায় ওড়না পেঁচিয়ে ঘরের ভীমের সঙ্গে ঝুলে আত্মহত্যা করেছে বলে জানালেও তাকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে বলে দাবি করেন ওই গৃহবধুর পরিবারের লোকজন।

সূত্রে জানা যায়, বিগত ৭ বছর পূর্বে রংমহল এলাকার জাফর আলম মিস্ত্রীর পুত্র রমজান আলীর সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কে গড়ে উঠলে ইসলামী শরিয়ত মোতাবেক বিয়ে হয় একই ইউনিয়নের উলুবনিয়া গ্রামের শাহাব মিয়ার কন্যা রেহেনার। বিয়ের পর তাদের সংসার জীবন স্বাভাবিকভাবে চলছিল এবং তাদের ঘরে বর্তমানে ৬ বছর বয়সী একটি পুত্র সন্তান রয়েছে।

বিগত কয়েকমাস ধরে স্বামী রমজান আলী মাছ ব্যবসার কাজে চট্টগ্রামের পটিয়ায় স্ত্রী-পুত্র নিয়ে ভাড়া বাসায় থাকতেন। ওখানে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে মনোমালিন্য হয় এবং নিহত রেহেনাকে তার স্বামী বিভিন্ন অজুহাতে শাররীক নির্যাতন ও মারধর করতো বলে সূত্র জানায়। প্রায় সময় রেহেনার স্বামী মদ্যপান করে রাতে বাসায় আসতো এবং স্ত্রীকে পরকিয়ায় জড়িয়েছে মর্মে মিথ্যা অভিযোগ তুলে নির্যাতন করেতো বলে স্থানীয়রা জানায়।

স্থানীয়রা জানান, বুধবার (২০ জুন) রাতে ৬ বছরের পুত্রকে নিয়ে একা দরজা বন্ধ করে ঘুমিয়ে যান নিহত রেহেনা।পরদিন (বৃহস্পতিবার) ভোরে শয়ন কক্ষে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে ঝুলন্ত মৃতদেহ দেখতে পায় তার শাশুরবাড়ির লোকজন।

তাৎক্ষণিকভাবে ঘটনাটি স্থানীয় ইউপি সদস্য নুর নেওয়াজ বেগম ও জসিম উদ্দিনকে বিষয়টি জানালে তারা দ্রুত থানা পুলিশকে ঘটনার বিষয়ে অবগত করেন।

পুলিশ ঘটনার বিষয়টি জানতে পেরে বৃহস্পতিবার সকাল ১০টার দিকে চকরিয়া থানার ওসি মো. বখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরীর নির্দেশে থানার এসআই জুয়েল চৌধুরীর নেতৃত্বে সঙ্গীয় পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে এসে ঝুলন্ত অবস্থা থেকে লাশটি উদ্ধার করে।

পুলিশ লাশ উদ্ধার করে প্রাথমিক সুরুতহাল রির্পোট তৈরি করেন। থানার এসআই জুয়েল চৌধুরী বলেন, লাশ উদ্ধার করে প্রাথমিকভাবে সুরুতহাল রির্পোট তৈরি করা হয়। নিহতের লাশের শরীরে, উভয় পায়ে আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে।

নিহত গৃহবধূ চার মাসের অন্তঃসত্ত্বা বলে তার পরিবারের স্বজনরা জানান।

লাশ ময়নাতদন্তের জন্য জেলা সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। এ ব্যাপারে চকরিয়া থানার ওসি মো. বখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী বলেন, পুলিশ ঝুলন্তাবস্থা থেকে এক গৃহবধুর লাশ উদ্ধার করেছে। নিহতের শরীরে আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়। প্রাথমিক রির্পোট তৈরি করে লাশ ময়নাতদন্তের জন্য জেলা সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। কি কারণে আত্মহত্যা করেছে তা ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন হাতে না পাওয়া এখনো বলা যাবেনা।

তবে নিহতের পরিবারের পক্ষ থেকে লিখিত একটি অভিযোগ দেয়া হয়েছে বলে তিনি জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *