গুইমারা হাতিমুড়ায় দুর্বৃত্তদের আগুনে পুড়ে ছাই বসত ঘর


গুইমারা প্রতিনিধি:

খাগড়াছড়ির গুইমারা উপজেলার হাতিমুড়া এলাকার শুক্রবার রাতে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে হত দরিদ্র মনির শিকদারের বসত ঘর পুড়ে ছাই হয়ে গেছে।

শুক্রবার দিবাগত রাতে প্রায় ২.১৫মিনিটের সময় হাতিমুড়ার হারুন শিকদারের ছেলে  মনির শিকদারের  ঘরের পিছন থেকে কে বা কারা আগুন ধরিয়ে দিলে এ ঘটনা ঘটে। অগ্নিকাণ্ডের সঙ্গে সঙ্গে স্থানীয় লোকজন আগুন নেভানোর চেষ্টা করলে ও নবসৃষ্ট গুইমারা উপজেলায় ফায়ার ব্রিগেড না থাকায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব হয়নি। এতে করে পুড়ে ছাই হয়ে যায় ভুক্তভোগী মনিরের বসk ঘরটিসহ ব্যবহৃত যাবতীয় আসবাব পত্র।

তাৎক্ষনিক ক্ষয়ক্ষতির পরিমান জানা না গেলেও সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, হতদরিদ্র মনিরের পুড়ে যায় ঘরের সকল আসবাব পত্র, পানির পাম্প, ধানের মেশিন যাবতীয় আসবাবপত্র সহ ধ্বংস হয়ে গেছে পরিবারটি।

স্থানীয় হাফছড়ি ইউপি চেয়ারম্যান চাইথোয়াই চোধুরী আগুনে পুড়ে যাওয়া মনিরের বাড়ি পরিদর্শন শেষে পার্বত্য নিউজের প্রতিবেদককে জানান আগুনে পুড়ে মনিরের ক্ষয়ক্ষতির পরিমান অনেক। তার ধারনা মতে ক্ষয়ক্ষতির পরিমান এক লক্ষেরও উপরে। যারা এমন নেক্কার জনক জঘন্য কাজ করেছে তাদের আইনের আওতায় এনে তাদের বিচারের দাবি জানান তিনি। পাশাপাশি ক্ষতিগ্রস্ত মনিরের পরিবারের প্রতি সার্বিক সহযোগিতা করার জন্য বিত্তবান ও সুশীল সমাজের প্রতি বিনীত আহ্বান জানান তিনি ।

সরজমিনে পরিদর্শন করে গুইমারা উপজেলা কৃষকলীগের সভাপতি সাইফুল ইসলাম ফরিদ বলেন, হাতি মুড়ার মত জায়গায় রাতের অন্ধকারে একটি গরিব অসহায় পরিবারের ঘরটি কোন মানুষ এভাবে জ্বালিয়ে দিতে পারেনা। যে বা যারা এমন ঘটনা ঘটিয়েছে তাদের সবাইকে আইনের আওতায় এনে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য জোর দাবি জানাচ্ছি। সেই সঙ্গে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারকে সকলে মিলে সহযোগিতা করার জন্য বিনীত অনুরোধ জানাচ্ছি।

এবিষয়ে গুইমারা থানা অফিসার ইনচার্জ সাহাদাত হোসেন টিটু বলেন, মনিরের ঘরে আগুনের বিষয়টি আমরা খোঁজ খবর নিচ্ছি। ঘটনার সাথে কাউকে সম্পৃক্ত আছে জানতে পারলে তাৎক্ষনিক আইনগত ব্যবস্থা নিবো।

image_pdfimage_print

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *