গুইমারায় আ’লীগের উদ্যোগে নাশকতা বিরোধী বিক্ষোভ মিছিল ও মোটর সোডাউন


 

গুইমারা প্রতিনিধি:

গুইমারা আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে মোটর সোডাউন ও বিক্ষোভ মিছিল করা হয়েছে। আগামীকাল ৮ ফেব্রুয়ারি বেগম  জিয়ার রায়কে কেন্দ্র করে গুইমারায় যাতে কোন অপ্রীতিকর ঘটনা বা নাশকতা ঘটতে না পারে সে লক্ষে এই বিক্ষোভ মিছিল ও মোটর সোডাউন করা হয়।

বুধবার (৭ ফেব্রয়ারি) বিকালে ব্যাপক নেতাকর্মীকে একত্রিত করে উপজেলার তিনটি ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকায় মোটর সোডাউন করা হয়।

এরপরে গুইমারা উপজেলা আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয় হতে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করা হয়। মিছিলটি উপজেলা আওয়ামী লীগের সংগঠনিক সম্পাদক আইয়ুব আলী মেম্বারের নেতৃত্বে বের হয়ে গুইমারা বাজারের মেইন মেইন সড়ক প্রদক্ষিণ করে। পরে আবার দলীয় কার্যালয়ে এসে আলোচনা সভার মধ্য দিয়ে শেষ হয়।

এসময়ে উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি স্বাগর চৌধুরী বলেন, স্বাধীনতা বিরোধী একটি চক্র  সোনার বাংলাকে ধূলিস্বাত করার জন্য যত বার চক্রান্ত করেছে ততবারই বাংলাদেশ ছাত্রলীগ দূর্বার আন্দোলন করেছে। এবারও বাংলাদেশ ছাত্রলীগ পিছপা হবেনা মর্মে কঠোর হুঁশিয়ারী দিয়ে তিনি বলেন, শান্তি সম্প্রীতি উন্নয়নের জোয়ারকে যারা পেট্রোল বোমা  মেরে সাধারণ জনগণের জানমাল ক্ষতি করার চেষ্টা করবে তাদেরকে শক্ত হাতে প্রতিহত করা হবে এবং  এসএসসি পরীক্ষার্থীরা পরীক্ষা শেষ করে বাড়ি ফিরা পর্যন্ত কোন ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা যাতে কেউ ঘটাতে না পারে সেদিকে লক্ষ রাখার জন্য গুইমারা উপজেলা ছাত্রলীগের সকল নেতা কর্মীকে নিদর্শনা দেন তিনি।

আলোচনা সভায় প্রধান বক্তা গুইমারা সদর ইউপি চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মেমং মারমা বলেন, আমাদের এই বিক্ষোভ মিছিল কোন ব্যক্তি বা দলের বিরুদ্ধে নয়। কোন কুচক্রী মহল বা স্বাধীনতা বিরুধী চক্র যারা মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে বিশ্বাস করেনা তারা যাতে আগামীকাল আদালতের রায়কে কেন্দ্র করে আইন শৃঙ্খলা বিঘ্ন হয় এমন কোন রকম ঘটনা ঘটাতে নাপারে সে বিষয়ে প্রশাসন ও  সকল নেতাকর্মীকে স্বজাগ থেকে আগামী দিন রাজপথে থাকার আহ্বান জানান তিনি।

গুইমারা উপজেলা বিএনপির সভাপতি মো. ইউছুফ বলেন, কেন্দ্রীয় ও জেলা বিএনপি যে কর্মসূচি দিবে আমরা সেই কর্মসূচি পালন করবো। তবে কোন ধরনের কর্মসূচি ছাড়াই আমাদের নেতাকর্মীদেরকে যেভাবে  ধড়পাকড় করেছে আমরা তার তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি এবং অবিলম্বে তাদের মুক্তির দাবি জানাচ্ছি।

উপজেলা বিএনপির সহ সাধারণ সম্পাদক নবী হোসেন বলেন, পুলিশের ভয়ে আমাদের নেতাকর্মীরা বাড়িতে ঘুমাতে পারছেনা এটা অত্যান্ত  নিন্দনীয় কাজ, আমি আমার দলের পক্ষ থেকে এর তিব্র নিন্দা জানাই এবং অবিলম্বে আটককৃত নেতাকর্মীদের মুক্তির দাবি করছি। সেই সাথে তল্লাশীর নামে হয়রানী বন্ধের জোর দাবি করেন তিনি।

আগামীকালকে বেগম জিয়ার রায়কে কেন্দ্র করে আইনশৃঙ্খলার বিষয়ে গুইমারা থানার অফিসার ইনচার্জ সাহাদাত হোসেন টিটু বলেন, গুইমারার গুরুত্বপূর্ণ স্থানগুলোতে আজ থেকে পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। সাধারণ মানুষের ক্ষতি হয় এমন কোন নাশকতা বা আইন শৃঙ্খলা বিঘ্নিত হয় এমন  ঘটনা কোন দল বা ব্যক্তি করার চেষ্টা করলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে বলেও তিনি জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *