খাগড়াছড়ির উপজেলাগুলোতে ঢিলে-ঢালা হরতাল পালন


নিজস্ব প্রতিবেদক, খাগড়াছড়ি:

খাগড়াছড়ি জেলা সদর, মাটিরাঙা ও মহালছড়ি ছাড়া অন্য উপজেলাগুলো সোমবার হরতাল পালিত হয়েছে ঢিলে-ঢালাভাবে। দুর পাল্লা যানবাহন চলাচল না করলেও দোকানপাট, ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান ও বিভিন্ন সরকারি দপ্তর খোলা ছিল। কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের উপস্থিতিও ছিল স্বাভাবিক। এমন কি অটো রিক্সা, টমটম ও মোটরসাইকেলও চলেছে স্বাভাবিকভাবে আমাদের প্রতিনিধিসহ স্থানীয় সূত্রগুলো এর সত্যতা নিশ্চিত করেছে।

ছাত্রদল নেতা রবিউল আওয়াল হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদে, অপহৃত গৃহবধূ ফাতেমাকে উদ্ধার ও জেলা পরিষদের শিক্ষক নিয়োগ প্রক্রিয়া বাতিলের দাবিতে পার্বত্য বাঙালি ছাত্র পরিষদ, পার্বত্য নাগরিক পরিষদ, সুসম উন্নয়ন ও দূর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সোমবার খাগড়াছড়িতে সকাল-সন্ধ্যা হরতালের ডাক দেয়।

এদিকে গত ১৩ সেপ্টেম্বর সাংবাদিক সম্মেলনের মাধ্যমে আত্মপ্রকাশ ঘটে জেলা সুসম উন্নয়ন দূর্নীতি প্রতিরোধ কমিটি। খাগড়াছড়ি উপজেলা পরিষদ মিলনাতয়নে আয়োজিত নবগঠিত জেলা সুসম উন্নয়ন দূর্নীতি প্রতিরোধ কমিটি খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও সদস্যদের বিরুদ্ধে শিক্ষক নিয়োগসহ বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্প গ্রহণের ব্যাপক অনিয়ম-দূর্নীতি অভিযোগ নিয়োগ প্রক্রিয়ায় বাতিল না করলে ১৭ সেপ্টেম্বর জেলা পরিষদ ঘেরাও কর্মসূচি ঘোষণা করে। সাংবাদিক সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন, সদ্য গঠিত খাগড়াছড়ি জেলা সুসম উন্নয়ন ও দূর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির আহ্বায়ক ও ইউপিডিএফ সমর্থিত সদর উপজেলা চেয়ারম্যান চঞ্চুমনি চাকমা, সদস্য সচিব ও খাগড়াছড়ি পৌরসভার মেয়র মো. রফিকুল আলম, ইউপিডিএফ সমর্থিত পানছড়ি উপজেলা চেয়ারম্যান সর্বোত্তম চাকমা ও রামগড় পৌরসভার মেয়র কাজী রিপন উপস্থিত ছিলেন।

সাংবাদিক সম্মেলনে বলা হয়, তাদের এ কমিটিতে জেলার সকল উপজেলা চেয়ারম্যান, পৌরসভার মেয়র ও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান-সদস্যরা রয়েছে বলেও জানানো হয়।

জেলা সুসম উন্নয়ন কমিটির জেলা পরিষদ ঘেরাও  কর্মসূচিকে ঘিরে উত্তেজনা সৃষ্টি হওয়ায় জেলা প্রশাসন রবিবার সকাল ৮টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত খাগড়াছড়ি পৌর এলাকায় ১৪৪ধারা জারি করে। ফলে কর্মসূচিতে বাধা দেওয়ার অভিযোগ এনে জেলা সুসম উন্নয়ন ও দূর্নীতি প্রতিরোধ কমিটিও সোমবার জেলায় সকাল-সন্ধ্যা হরতাল আহ্বান করে। তবে এ কয়েকটি সংগঠনের হরতাল খাগড়াছড়ি, মাটিরাঙা ও মহালছড়িতে পালিত হলেও অন্য উপজেলাগুলোতে তেমন কোন প্রভাব পড়েনি বলে জানিয়েছেন, আমাদের প্রতিনিধি ও স্থানীয় সূত্রগুলো।

খাগড়াছড়ি: খাগড়াছড়ি জেলা সদরে সর্বাত্মক হরতাল হয়েছে। হরতালের সমর্থনে সকাল থেকে বাঙালি ছাত্র পরিষদ ও জেলা সুসম উন্নয়ন ও দূর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির নেতাকর্মীদের পিকেটিং করতে দেখা গেছে। হরতালের কারণে চলেনি রিক্সা, অটোরিক্সা, টমটমসহ কোন যানবাহন। খোলেনি দোকানপাটও। এতে করে সীমাহীন দূর্ভোগে শিকার হয়, কর্মজীবি মানুষ। তবে অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে পুলিশও ছিল তৎপর।

আমাদের দীঘিনালা প্রতিনিধি জানান, হরতালে দুর পাল্লা যানবাহন চলাচল না করলে অটো রিক্সা, টমটম ও মোটরসাইকেল চলেছে। উপজেলা সকল দোকানপাট,ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, ব্যাংক-বীমা, স্কুল-কলেজ ও আধা সরকারি প্রতিষ্ঠান খোলা ছিল। উপস্থিতিও ছিল স্বাভাবিক।

আমাদের পানছড়ি প্রতিনিধি জানান, দুর পাল্লা চলাচল বন্ধ ছাড়া হরতালের আর কোন প্রভাব পানছড়িতে পড়েনি।

আমাদের মানিকছড়ি প্রতিনিধি জানান, সকালের দিকে হরতালে সমর্থনে বাঙালি ছাত্রপরিষদ পিকেটিং করেছে। তবে বেলা বাড়ার সাথে সব কিছু স্বাভাবিক হয়ে আসে।

আমাদের মাটিরাঙা প্রতিনিধি জানান, হরতালে কিছু দোকানপাট খোলা থাকলেও বেশির ভাগ বন্ধ ছিল। চলেনি কোন যানবাহনও।

আমাদের মহালছড়ি প্রতিনিধি জানান, মহালছড়ি উপজেলায় হরতাল পালিত হয়েছে স্বতঃস্ফূর্তভাবে।

রামগড় উপজেলা চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম ভূইয়া জানান, রামগড়ে হরতালের কোন প্রভাব পড়েনি। সব কিছুই স্বাভাবিক ছিল।

গুইমারা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সাহাদত হোসেন টিটু জানান, বিগত দিনের তুলনায় সোমবার গুইমারায় হরতালে তেমন কোন প্রভাব ছিল না। পিকেটিংও তেমন হয়নি।

পর্যবেক্ষক মহলের মতে, বিগত দিনে খাগড়াছড়িতে বাঙালি সংগঠনগুলোর ডাকা প্রতিটি হরতাল কঠোর ও সর্বাত্মকভাবে পালিত হলেও এবার ভিন্ন চিত্র হওয়ার পিছনে জেলা সুসম উন্নয়ন ও দূর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির একই দিনে হরতাল কর্মসূচি। জেলা সুসম উন্নয়ন ও দূর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সাথে ইউপিডিএফ সমর্থিত নেতাদের সংশ্লিষ্টতা থাকায় অনেকে রাগে-ক্ষোভে হরতালে সাড়া দেয়নি।

বাঙালি ছাত্র পরিষদের নাম প্রকাশ না শর্তে জনৈক এক প্রভাবশালী জানান, একই দিন জেলা সুসম উন্নয়ন ও দূর্নীতি প্রতিরোধ কমিটি হরতাল ডাকায় বাঙালি ছাত্র পরিষদের নেতারা মাঠে নামেনি। ফলে আমাদের কর্মসূচি ফ্লপ করেছে। যা কাঙ্খিত নয়। তার মতে, জেলা সুসম উন্নয়ন ও দূর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির যে দুই নেতাকে নেতৃত্ব দিতে দেখা গেছে, তারা আঞ্চলিক সন্ত্রাসী সংগঠন ইউপিডিএফ’র রাজনীতির সাথে জড়িত। অতীতে তাদের বিভিন্ন কর্মকাণ্ডে এর প্রমাণ রয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *