খাগড়াছড়িতে স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে সোহেল ত্রিপুরাসহ দু’জন আটক


নিজস্ব প্রতিবেদক, খাগড়াছড়ি:

ফেসবুকে প্রেমের ফাঁদে ফেলে খাগড়াছড়িতে ত্রিপুরা সম্প্রদায়ের দশম শ্রেণীর এক স্কুল ছাত্রীকে হোটেলে আটকে রেখে ধর্ষণের অভিযোগে একই সম্প্রদায়ের সোহেল ত্রিপুরা(১৮) ও তার সহযোগী বাবুল কুমার ত্রিপুরাকে(১৪) পুলিশ আটক করেছে।

রক্তাক্ত অবস্থায় ধর্ষিতাকে খাগড়াছড়ি সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় ধর্ষিতার পিতা বাদী হয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা করেছে।

পুলিশ ও ধর্ষিতা সূত্রে জানা গেছে, খাগড়াছড়ি সদর উপজেলার সাত মাইল এলাকার বাসিন্দা পবন ত্রিপুরার মেয়ে গণিতা ত্রিপুরার সাথে সম্প্রতি চট্টগ্রামের ভুজপুরা থানার বাসিন্দা চন্দ্র কুমার ত্রিপুরার ছেলে সোহেল ত্রিপুরার ফেসবুকের মাধ্যমে পরিচয় ও টেলিফোনে কথা হয়। এক পর্যায়ে নানা প্রলোভনে ফেলে গণিতা ত্রিপুরাকে প্রেমের ফাঁদে ফেলে সোহেল ত্রিপুরা।

সে সূত্র ধরে মঙ্গলবার সকালে সোহেল ত্রিপুরা ও বাবুল ত্রিপুরা খাগড়াছড়ি এসে গনিতা ত্রিপুরার সাথে যোগাযোগ করে মিলিত হয়। সারা দিন খাগড়াছড়ি শহরের বিভিন্ন দর্শনীয় স্থানে ঘুরাঘুরির এক পর্যায়ে রাতে খাগড়াছড়ি শহরের হোটেল প্যালেসে ওঠে। সেখানে সোহেল ত্রিপুরা গণিতা ত্রিপুরাকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। ধর্ষণের এক পর্যায়ে গণিতা ত্রিপুরা অসুস্থ্য হয়ে পড়লে রক্তাক্ত অবস্থায় রাতেই তাকে খাগড়াছড়ি সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। পুলিশ খবর পেয়ে সোহেল ত্রিপুরা ও বাবুল ত্রিপুরাকে আটক করে।

খাগড়াছড়ি সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সাহাদত হোসেন টিটো ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ধর্ষিতার পিতা পবন ত্রিপুরা বাদী হয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা করেছে। ধর্ষক সোহেল ত্রিপুরা জিজ্ঞাসাবাদে ধর্ষণের কথা স্বীকার করেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *