খাগড়াছড়িতে বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি হলেও দীঘিনালায় অবনতি


নিজস্ব প্রতিবেদক, খাগড়াছড়ি:

পাহাড় ধ্বসে ৪ জনের প্রাণহানি ও ব্যাপক ক্ষতির পর আকস্মিক বন্যায় পুরো খাগড়াছড়ি লণ্ডভণ্ড হয়ে গেছে। বন্যায় ভেসে গেছে অসংখ্য ঘরবাড়ী, হাঁস-মুরগি, গবাদি পুশু ও পুকুরের মাছ। নষ্ট হয়েছে সবজির ক্ষেত। পরিস্থিতির উন্নতির সাথে  সাথে এলাকায় বিশুদ্ধ খাবার পানি ও খাদ্য সংকট দেখা দিয়েছে দূর্গত এলাকাগুলোতে। খাগড়াছড়ি সদরে বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি হলেও দীঘিনালায় অবনতি হওয়ায় খাগড়াছড়ির সাথে রাঙামাটির  লংগদু ও বাঘাইছড়ির সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে।

খাগড়াছড়ির সংসদ সদস্য কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা দূর্গতদে মাঝে ত্রাণ তিবরণ ও রামগড় এবং লক্ষ্মীছড়িতে পাহাড় ধ্বসে নিহতদের পরিবারকে আর্থিক সহায়তা দিয়েছেন।

পাহাড় ধ্বসে নিহত ও ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির পর খাগড়াছড়িতে আকস্মিক বন্যায় জনগণ দিশেহারা হয়ে পড়েছে। সোমবার ভোর থেকে টানা বর্ষণে খাগড়াছড়ি জেলা সদরের মুসলিমপাড়া, গঞ্জপাড়া, মেহেদীবাগ, মিলনপুর, সাতভাইয়া পাড়া মুখ, খবংপুড়িয়া, শান্তিনগর, অর্পণা চৌধুরী পাড়া, কল্যাণপুর, দীঘিনালা উপজেলার মেরুং-এ বন্যায়  ২০টি গ্রামের প্রায় ১৫ হাজার পরিবার পানি বন্দী হয়ে পড়ে। ৫ শতাধিক পরিবার শহরের শিশু সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও মুসসিলমপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রসহ আত্মীয় স্বজনের বাড়িতে আশ্রয় নেয়।

ক্ষতিগ্রস্তরা জানায়, পাহাড় ধ্বসের পর আকস্মিক বন্যায় ভেসে গেছে অসংখ্য ঘরবাড়ী, হাঁস-মুরগি, গবাদি পুশু ও পুকুরের মাছ। নষ্ট হয়েছে সবজির ক্ষেত। খাগড়াছড়ি সদরে বন্যা পরিস্থিতির উন্নতির সাথে  সাথে এলাকায় বিশুদ্ধ খাবার পানির ও খাদ্য সংকট দেখা দিয়েছে দূর্গত এলাকাগুলোতে।

এদিকে খাগড়াছড়ি সদরে বন্যা পরিস্থিতি উন্নতি হলেও দীঘিনালায় অবনতি হওয়ায় খাগড়াছড়ির সাথে রাঙামাটির লংগদু ও বাঘাইছড়ির সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। দীঘিনালার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সামসুউদ্দিন ভূইয়া জানান, দীঘিনালায় মেরুং- কবাখালী এ বন্যায় অন্তত ৮টি গ্রামে ১০ হাজার মানুষ পানি বন্দী হয়ে পড়েছে। শতাধিক দুর্গত পরিবার আশ্রয় নিয়েছে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে। মেরং এলাকায় সড়কে পানি উঠায় দীঘিনালার সাথে রাঙামাটি ও দুই টিলায় সড়কের উপর পাহাড় ধ্বসে পড়ায় দীঘিনালার সাথে বাঘাইছড়ির সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন রয়েছে।

এদিকে মঙ্গলবার সকালে খাগড়াছড়ি জেলা সদরের খাগড়াছড়ি সদরের ৩নং গোলাবাড়ি ইউনিয়ন পরিষদে দূর্গত এলাকার মানুষদের মাঝে ত্রাণের চাল, ডাল, আলু ও তেল বিতরণ করেন খাগড়াছড়ির সংসদ সদস্য কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা। এছাড়া রামগড় ও লক্ষ্মীছড়িতে পাহাড় ধ্বসে নিহত ৪ জনের প্রত্যেক  পরিবারকে ২৫ হাজার এবং ক্ষতিগ্রস্ত ১০টি পরিবারকে ১০ হাজার টাকা করে আর্থিক সহায়তা প্রদান করেন।

কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা এমপি জানান, ক্ষতিগ্রস্তদের দূর্ভোগ লাঘবে প্রাথমিকভাবে এ ত্রাণ দেওয়া হয়েছে। তাছাড়া ক্ষতিগ্রস্তদের তালিকাও করা হচ্ছে।

পাহাড় ধ্বস ও বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের পুনর্বাসনের উদ্যোগ না নিলে খাগড়াছড়িতে মানবিক বিপর্যয়ের আশংকা রয়েছে।

 

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *